মুস্তাফিজ ও মুডির যোগাযোগ, সেতু ছিলেন রিকি ভুই

মুস্তাফিজুর রহমান রিকি ভুই টম মুডি সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ
Vinkmag ad

২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকেই নজর কেড়ে নেন টাইগারদের বাঁহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। কাটারে বিভ্রান্ত করে ব্যাটসম্যানকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখানোকে অভ্যাসে পরিণত করেন। যার ফলস্বরূপ পরের বছর আইপিএলে সুযোগ পেয়ে যান সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদে। কিন্তু ভাষাগত সমস্যার কারণে তাকে নিয়ে কাজ করতে কিছুটা ভোগান্তিতে পড়তে হয় দলটির কোচ টম মুডিকে। সেক্ষেত্রে শ্রীলঙ্কার কোচ হয়ে মালিঙ্গার সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়েছেন এই অস্ট্রেলিয়ান কোচ।

নিজের আইপিএল অভিষেক মৌসুমে বল হাতে চেনা ছন্দে ছিলেন মুস্তাফিজ। হায়দ্রাবাদের হয়ে ১৬ ম্যাচে শিকার করেন ১৭ উইকেট। সেবার জিতেছেন প্রথম বিদেশি ক্রিকেটার হিসেবে আইপিএলের সেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরষ্কার। ব্যাটসম্যানদের কাছে তার কাটার যতটা দুর্ভেদ্য ছিল, ইংরেজিও তার কাছে ঠিক ততটাই দুর্ভেদ্য। ফলে তাকে নিয়ে কাজ করতে সমস্যায় পড়তে হয় কোচিং স্টাফদের।

দলের বাঙলা জানা ক্রিকেটার রিকি ভুইকে শেষ পর্যন্ত সামলাতে হইয়েছিল দোভাষীর কাজও। তরুণ এই ব্যাটসম্যানের সাহায্য ছাড়াও দলের প্রধান কোচ টম মুডি কাজে লাগিয়েছেন মালিঙ্গার সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা। ২০০৫ সাল থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার প্রধান কোচ হিসেবে কাজ করেন এই অস্ট্রেলিয়ান।

সম্প্রতি ক্রিকেট ওয়েবসাইট ক্রিকবাজে ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলের সাথে লাইভ আড্ডায় মুস্তাফিজকে সামলানোর অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন টম মুডি। তিনি বলেন, ‘২০০৫ সালের কথা সেসময় আমি শ্রীলঙ্কার কোচ ছিলাম। সবার সঙ্গে একে একে কথা বলতাম। তাদের ভূমিকা কি, কি করে উন্নতি সম্ভব এসব কিছু। এমন করে ৪ মাস চলে গেল, একদিন মাহেলা আমার কাছে এসে বলে, কোচ আপনি অনেক ভালো কাজ করছেন কিন্তু একটা জায়গায় সমস্যা আছে। মালিঙ্গা একটা কথাও বুঝতে পারেনি আপনার।’

আইপিএলে মুস্তাফিজের ক্ষেত্রে সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো প্রসঙ্গে ৫৪ বছর বয়সী এই কোচ বলেন, ‘এটা আমার কোচিং ক্যারিয়ারের জন্য বড় একটা শিক্ষা ছিল। এরপর কোন খেলোয়াড়ের ইংরেজিতে সমস্যা থাকলে আমি লোকাল খেলোয়াড়দের দিয়ে তাদের বোঝানোর চেষ্টা করি, যেন এটা মনে না করে তারা দলের কাছে কম গুরুত্বপূর্ণ। ঐ সময় (২০১৬ আইপিএল) রিকি ভুই দলে ছিল। সে মুস্তাফিজের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারতো।’

‘সে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে মুস্তাফিজকে বার্তা পৌঁছে দিতে। মুস্তাফিজের মতো কারো সঙ্গে কথা বলতে হলে আপনাকে অল্পতে কথোপকথন শেষ করতে হবে। একই সঙ্গে বেশ সাধারণ এবং সহজভাবে কথাগুলো বুঝাতে হবে তাকে। তার সঙ্গে সর্বোচ্চ ১০ সেকেন্ড কথা হতো। এক্ষেত্রে রিকি না থাকলে খেলোয়াড় এবং দলের জন্য যোগাযোগ রক্ষা করা অসম্ভব হতো।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

বৃষ্টিবিঘ্নিত ১ম দিনে খেলা হল কেবল ১০৬ বল

Read Next

ডিপিএল দিয়েই ফিরবে দেশের ক্রিকেট

Total
13
Share