ফিক্সিং হবে ফৌজদারি অপরাধ, অনুমোদন দিলেন ইমরান খান

ইমরান খান
Vinkmag ad

ম্যাচ ফিক্সিং ও পাকিস্তান যেন সমার্থক শব্দে পরিণত হয়েছিল। ফিক্সিং কান্ডে জড়িয়ে দেশটির অনেক সম্ভাবনাময় ক্রিকেটারদের ক্যারিয়ার শেষ হয়েছে অঙ্কুরেই। কিছুদিন আগে ফিক্সিংকে আইন করে কঠোরভাবে দমন করার প্রস্তাব দেন বেশ কয়েকজন সাবেক ক্রিকেটার। অবশেষে পাকিস্তানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও দেশটির বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক ইমরান খান দুর্নীতি দমন আইন সংশোধনে করার অনুমোদন দিয়েছেন।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) ম্যাচ ফিক্সিংকে একটি ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে গণ্য করার পরিকল্পনা প্রস্তাব দেয়। আর সেটিই অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। পিসিবি সূত্রের বরাত দিয়ে পাকিস্তানি গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশিত হয়। চলতি সপ্তাহের শুরুতে পিসিবি চেয়ারম্যান এহসান মানি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সাথে দেখা করেন। আর সেখানেই বিষয়টি চূড়ান্ত হয়।

বোর্ডের সূত্র জানিয়েছে, ‘ইমরান খান নতুন আইনের খসড়া অনুমোদনে সমর্থন দিয়েছেন। এহসান মানিকে আইন ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় দ্বারা প্রয়োজনীয় কার্যক্রম সম্পন্নের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। যাতে সংসদে উপস্থাপিত হয়ে একটি লিখিত আইন হতে পারে।’

মূলত নতুন দুর্নীতি দমন কোডের মাধ্যমে বোর্ড ম্যাচ ফিক্সিং ও স্পট ফিক্সিংকে অপরাধীকরণ করতে চায় পিসিবি। এছাড়া অভিযুক্তের জেল ও শাস্তির মেয়াদ নির্দিষ্ট করারও ইচ্ছে পোষণ করা হয়েছে।

পিসিবির ঐ সূত্র আরও বলেন, ”নতুন আইনের অধীনে প্রমাণিত অপরাধীরা নির্দিষ্ট সময়ের জেল সাজা ভোগ করবেন। দুর্নীতির সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে যে কোনও খেলোয়াড়ের সমস্ত সম্পদ এবং অর্থ পাচারের তদন্ত করার ক্ষমতা বোর্ড পাবে।’

বর্তমানে পিসিবি আইসিসি কর্তৃক বেঁধে দেওয়া দুর্নীতি দমন আইনের অধীনে ফিক্সিং কেলেঙ্কারির সাজা দিচ্ছে। এই আইনটি ফিক্সিংকে ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করেনা। অপরাধীর শাস্তিও সীমাবদ্ধ। ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা বলছেন অপরাধীরা পরিষ্কার শাস্তির বিধান নেই জানে বলে ফিক্সিংয়ে উৎসাহী হয়। তারা নিশ্চিত থাকে কয়েক বছর সাজা পেয়ে ফিরে এসে আবার ক্রিকেট খেলা যাবে।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ড্রেসিংরুমে এসে আশরাফুলকে স্টাম্প দিয়ে গিয়েছিলেন গিলক্রিস্ট

Read Next

স্টোকসের মাঝে কোহলির ছায়া দেখতে পান রুট

Total
7
Share