‘৪০’ জনকে চাকরীচ্যুত করল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

করোনা ভাইরাস প্রভাবে আর্থিক সংকটে পড়া বোর্ডগুলোর একটি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। শুরু থেকেই কর্মী ছাঁটাইসহ বিভিন্ন আনুসাঙ্গিক খরচ কমানোর পথ খুঁজে আসছিলো তারা। শেষ পর্যন্ত বেতন কর্তন, ৪০ জনের মত কর্মীকে চাকরীচ্যুত করা, স্থানীয় লিগ ও বয়সভিত্তিকের সফর বাতিলের মাধ্যমে ৪০ মিলিয়ন ডলার বাঁচিয়েছে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাটি। আর্থিক টানাপোড়নের সময়টায় নানা বিতর্কে জড়িয়ে পদত্যাগ করতে হয়েছে বোর্ডের প্রধান নির্বাহীকেও।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার চেয়ারম্যান আর্ল এডিংস বলেন, ‘তিন মাস আগে আমাদের যে অবস্থা ছিল তাতে আর কোথায় খরচ কমানো যায় সেটার পথ খুজছিলাম। তবে সকলের দারুণ ভূমিকায় আমরা কিছুটা নমনীয়তা আনতে পেরেছি। শেষ কয়েক সপ্তাহে আমরা আমাদের মূল ক্ষতিটি রক্ষা করতে পেরেছি।’

পরিস্থিতির স্বীকার হয়ে ৪০ জন কর্মীকে চাকরি হারাতে হয়েছে যেখানে তাদের কোন ভুল ছিলনা। এ প্রসঙ্গে দুঃখ প্রকাশ করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া চেয়ারম্যান যোগ করেন, ‘আমরা অনেকগুলো চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে গিয়েছি। কিন্তু যখন আপনি ভালো কিছু কর্মীকে হারাবেন তা সত্যি দুঃখজনক। বিশেষ করে যেখানে তাদের কোন দোষই ছিলনা। এই সংকট সবাইকে আঘাত করেছে।’

‘৪০ জন ভালো কর্মী হারানো আমাদের জন্য ধ্বংসাত্মক ছিল। সুতরাং এটি সত্যিই কঠিন সিদ্ধান্ত এই লোকদের বিদায় বলাটা।’

ঘরোয়া ক্রিকেটে অদল বদল, কিছু লিগ-টুর্নামেন্টকে প্রাধান্য দিয়ে আয়োজন সাজাতে হচ্ছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে। তবে করোনা পরবর্তী সব সূচী ঠিকঠাক করে পূর্বের অবস্থায় নিতে এক বছরের বেশি সময় লাগবেনা বলেও মনে করেন এডিংস।

তিনি বলেন, ‘আমাদের কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। কিছু প্রোগ্রাম অগ্রাধিকার পাবে কিছুতে বিরতি দিতে হবে। তবে সেটা ১২ মাসের বেশি সময় ঝুলে থাকবেনা।’

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার নেওয়া সিদ্ধান্তে বেশ কিছু লোকের রুটি-রুজিতে আঘাত এসেছে। আর্ল এডিংস ক্ষমা চেয়েছেন তাদের কাছে, ‘আমি সত্যি সেই লোকগুলোর কাছে ক্ষমা চাচ্ছি যারা এ বছর ক্ষতিগ্রস্থ হতে যাচ্ছে।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

হগের সেরা ওয়ানডে একাদশে ‘৫’ ভারতীয়

Read Next

পরীক্ষামূলক ফরম্যাট দিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকায় মাঠে ফিরছে ক্রিকেট

Total
2
Share