পেরিয়ে গেছে ১২ বছর, রফিকের কণ্ঠে আক্ষেপ-অভিমান

মোহাম্মদ রফিক খালেদ মাহমুদ সুজন
Vinkmag ad

মোহাম্মদ রফিককে বাংলাদেশ ক্রিকেটের এক টুকরো জাদুর কাঠি বললেও কম হয়ে যায়। দেশের ক্রিকেটের নানা অর্জনে নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন। টাইগারদের ক্রিকেট ইতিহাসের যেকোন একাদশে জায়গা পাবেন বিনা দ্বিধায়। এই টাইগার স্পিন কিংবদন্তী দেশকে সেবা দিয়ে গেছেন এক যুগের বেশি সময়। আকরাম, নান্নু, বুলবুল হয়ে খেলেছেন সাকিব তামিমদের সাথেও। ২০০৮ সালে অবসরে যাওয়া এই তারকা ক্রিকেটার কাজ করতে চেয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাথে। তবে অদ্ভুত এক কারণে উপেক্ষিতই রয়ে গেছেন।

অবসরের পর কেটে গেছে ১২ বছর, বোর্ডের সুনজরে আসতে ব্যর্থ মোহাম্মদ রফিক। এই টাইগার স্পিনার উপেক্ষিত হলেও বিভিন্ন সময়ে বোর্ডে কাজ করেছেন তার চাইতেও কম জনপ্রিয় বিদেশি কোন ক্রিকেটার। বিশেষ করে ভারতীয় সাবেক স্পিনার সুনীল যোশিতো কাজ করে গেছেন কিছুদিন আগেও। ভারতেরই আরেক স্পিনার ভেঙ্কটপতি রাজু কাজ করে গেছেন বিসিবির হাই পারফরম্যান্স দলের সাথে। আলাপ আলোচনা করা হয়েছে জাতীয় দলের স্পিন বোলিং কোচ করার ব্যাপারেও।

ভিনদেশী অখ্যাতদের ভীড়ে নিজ দেশের কিংবদন্তী রফিক উপেক্ষিত হতে হতে ছেড়ে দিয়েছেন আশাই। হতাশ সাবেক এই স্পিনার জানালেন তিনি থাকা সত্বেও সাক্ষাৎকার দিতে ডাকায় অবাক হয়েছেন ভেঙ্কটপতি রাজু নিজেই।

গতকাল (৫ জুন) সাংবাদিক নোমান মোহাম্মদের ইউটিউব চ্যানেল ‘নট আউট নোমান’ এর লাইভ আড্ডায় অতিথি হিসেবে ছিলেন মোহাম্মদ রফিক। বিসিবির কাছ থেকে উপেক্ষিত হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি শুধু সুনীলের (সুনীল জোশি) কথা বলবোনা, তার আগে রাজু আসছিল একবার। তখন আমি একাডেমির সাথে এক মাসের চুক্তিবদ্ধ। একাডেমির জন্যই তাকে ডাকা হয় (মূলত জাতীয় দলের জন্য)। সাক্ষাৎকার নেওয়ার সময় সে বলল রফিক ভাই থাকতে আমাকে কেন নিয়ে আসলেন?’

‘রফিক ভাইকে আমরা ভারতে নিয়ে যাই একাডেমিতে, এক সপ্তাহ, দশ দিন কাজ করে আসে। আমিই তার কাছ থেকে শিখি, আমাকে কি দরকার তাহলে? এরপর তাকেও নেয়নি আবার আমাকেও ব্রেক দিয়ে দিল।’

নানা সময়ে গণমাধ্যমে বিসিবির তরফ থেকে বলায় তারা কাজ করতে চান রফিককে নিয়ে। তবে ৪৯ বছর বয়সী এই সাবেক তারকা ক্রিকেটার জানান অফিসে ডেকেও ঠিকমত সময় দেওয়া হয়নি তাকে। যেখানে বোর্ডই খুঁজে নেওয়ার কথা তার মত অভিজ্ঞ ক্রিকেটারকে সেখানে নিজে দেখে কড়া নেড়েও সাড়া পাননি রফিক।

বাঁহাতি এই স্পিনার বলেন, ‘গর্ডন গ্রিনিজ আসার পর তার সাথে বোর্ড সভাপতি আমাকে বলল…। আমাকে সময় দিয়েছে সুজন (খালেদ মাহমুদ)। পরে আমি গেলাম, অফিসে কেউ নাই। আমি তিনদিন গিয়েছি অফিসে। নাম বলতে চাইনা, অনেকের সাথেই যোগাযোগ করেছি। তারা বলেছে ঠিক আছে, আমরা ব্যস্ত আছি পরে আপনাকে বলবোনে। পরে বলতে বলতে ১২ বছর চলে গেল। ১২ বছর চিন্তা করুন কতগুলো দিন।’

স্থগিত হওয়া ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে শেখ জামাল ধানমন্ডির স্পিন কোচ হিসেবে দায়িত্ব পান টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে প্রথম ১০০ উইকেটের মালিক। বিপিএলে কাজ করেছেন বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকানাধীন রংপুর রাইডার্সের সাথে। বসুন্ধরা ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে নিজস্ব একাডেমির। আর সেটির দায়িত্ব বাংলাদেশের এই স্পিন কিংবদন্তীকে বুঝিয়ে দিতে চায় তারা।

বোর্ডের আশা ছেড়ে দেওয়া রফিক এখন স্বপ্ন দেখছেন সেটিকে ঘিরেই,’এ বছর শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের হয়ে কাজ করছি (ডিপিএলে)। পাশাপাশি ফ্রাই ডে ক্রিকেট খেলতেছি। বসুন্ধরা স্টেডিয়াম বানাচ্ছে। বসুন্ধরার মালিকের ছেলে আমাকে বলেছে, আবার ঈশতিয়াক আছে (ঈশতিয়াক সাদেক) ওরা বলেছে আমরা এখানে একাডেমি করবো। আপনি আজীবন নিজের মত করে একাডেমিটা করবেন এবং নিজের মত করেই চালাবেন। আসলে সত্যি কথা আমি ওটা নিয়েই এখন আগ্রহী। আমি জানি এত বছর হয়ে গেছে বোর্ড সাড়া দিচ্ছে না, আমি মনে করি আর সাড়া দিবেওনা।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

‘৩’ ইনস্টাগ্রাম পোস্ট দিয়েই এত আয় ভিরাট কোহলির!

Read Next

শচীন-লারাদের কাছ থেকে যেসব পরামর্শ নিতে চাইবেন মুমিনুল

Total
49
Share