আফ্রিদি ও গম্ভীরকে ঝামেলা মিটিয়ে নিতে বললেন ওয়াকার

গৌতম গম্ভীর শহীদ আফ্রিদি
Vinkmag ad

পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি ও ভারতের সাবেক ব্যাটসম্যান গৌতম গম্ভীরের মধ্যে কথার লড়াই যেন নিয়মিত ঘটনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দুজনেই প্রতিনিয়ত ব্যস্ত একে অপরকে খোঁচানোতে। তাদের দুজনের প্রতিই শান্ত হওয়ার আহ্বান জানালেন সাবেক পাকিস্তানি তারকা পেসার ও দলটির বর্তমান বোলিং কোচ ওয়াকার ইউনুস। দুজনে মুখোমুখি হয়ে সবকিছু মিটমাট করার অনুরোধও করছেন তিনি।

দুজনের বাগ বিতন্ডার শুরুটা হয় ২০০৭ সালে যখন দুজনেই মাঠের ক্রিকেটে ছিলেন সরব। কানপুরে ভারত-পাকিস্তান ওয়ানডে ম্যাচে প্রথমবারের মত সামনাসামনি কথার লড়াইয়ে জড়ান দুজনে। এরপর মাঠে নিয়মিতই তারা একে অপরের প্রতি রাগের বহিঃপ্রকাশ করতেন। সময়ের বিবর্তনে গম্ভীর-আফ্রিদি এখন সাবেক ক্রিকেটার তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বদলৌতে লড়াইটা প্রতিনিয়তই সামনে আসছে ভক্তদের।

নিজের আত্মজীবনীতেও শহীদ আফ্রিদি জানান ভারতীয় ওপেনার গৌতম গম্ভীরকে নিয়ে আসলে বলার কিছু নেই, গম্ভীরের পুরোটাই নাকি অহংকার আর গাম্ভীর্যে ভরপুর। এরপর টুইটারে ভারতীয় এই ব্যাটসম্যানও ছেড়ে কথা বলেননি আফ্রিদিকে। আফ্রিদির বয়স লুকানোর প্রসঙ্গ টেনে বিতর্কে ঘি ঢেলে দেন।

শহিদ আফ্রিদি, গৌতম গম্ভীর

দুজনের দ্বন্ধ আবারও সামনে এলো সম্প্রতি আফ্রিদি জম্মু কাশ্মীর পরিদর্শনে গিয়ে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করার পর।

ওয়াকার ইউনুস দুজনের প্রতিই শান্ত হওয়ার অনুরোধ করেন, ‘গম্ভীর-আফ্রিদির ঝামেলা লম্বা সময় ধরে চলছে। আমি মনে করি তারা দুজনেই স্মার্ট ও বুদ্ধিমান। তাদের কাছে আমার পরামর্শ হল বিশ্বের যেকোন জায়গাই ধরুন এবং যদি সত্যি সত্যি এটা শান্ত করা সম্ভব না হয় তবে কথা বলুন।’

দুজনেই ভক্ত-সমর্থকদের কাছে হাসির খোরাক হন বলেও মত পাকিস্তানি সাবেক গতি তারকার, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনি যদি এটি চালিয়ে যান তবে লোকজন পছন্দ করবে এবং উপভোগ করবে। কিন্তু আমি মনে করি তারা দুজনেই বেশ বুদ্ধিমান ও স্মার্ট।’

এদিকে ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নেই ২০১২-১৩ মৌসুমের পর থেকে। কিন্তু ভক্তরা এখনও দুই দলের লড়াই দেখতে মুখিয়ে বলে বিশ্বাস পাকিস্তান জাতীয় দলের বর্তমান বোলিং কোচের।

ওয়াকার এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আপনি যদি পাকিস্তান-ভারত ম্যাচ নিয়ে উভয় দেশের লোকজনকে জিজ্ঞেস করেন তবে তাদের ৯৫ শতাংশই একমত হবে দুই দলের খেলা দেখতে।’

‘এটি ইমরান-কপিল সিরিজ বা ইনডিপেন্ডেন্স কাপ যে নামেই হোক আমি মনে করি ক্রিকেট প্রেমীদের কাছে অন্যতম বড় লড়াই হবে। দুই দেশের ভক্ত-সমর্থকদের বঞ্চিত না করে নিয়মিত খেলা প্রয়োজন।’

অদূর ভবিষ্যতেই ভারত-পাকিস্তান সিরিজ দেখতে পাচ্ছেন উল্লেখ করে ওয়াকার আরও যোগ করেন, ‘আমি ভারত-পাকিস্তান সিরিজ দেখতে পাচ্ছি। সেটা ভারত, পাকিস্তান যেখানেই হোক। আপনি তাদেরকে অন্য কোন দেশে খেলতে দেখতে চান না কারণ আপনি দেখতে চান তারা তাদের নিজ দেশে খেলুক। আমি নিশ্চিত কয়েক বছরের মধ্যেই ভারত-পাকিস্তান খেলতে যাচ্ছে।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

জাতিসংঘের গুডউইল অ্যাম্বাসেডর হলেন তামিম

Read Next

কোহলিকে ভয় পান না নাসিম শাহ

Total
4
Share