ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক ডেলিভারি!

ক্রিস ট্রেমলেট মোহাম্মদ আশরাফুল
Vinkmag ad

৩৮ বছর বয়সী ক্রিস ট্রেমলেট ইংল্যান্ডের হয়ে খেলেছেন ১২ টি টেস্ট, ১৫ টি ওয়ানডে ও ১ টি টি-টোয়েন্টি। ৬ ফুট ৭ ইঞ্চি উচ্চতার এই ডানহাতি পেসারের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল ২০০৫ সালের ২১ জুন। বাংলাদেশের বিপক্ষে সেই ম্যাচে প্রায় হ্যাটট্রিক করে ফেলেছিলেন তিনি।

ইনিংসের ১০ম ও ক্রিস ট্রেমলেটের ৫ম ওভারের দ্বিতীয় বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন শাহরিয়ার নাফিস। পরের বলেই জেরাইন্ট জোন্সকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তুষার ইমরান। হ্যাটট্রিকের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে থাকা ট্রেমলেট হ্যাটট্রিকটা পেয়েই যেতেন। তবে তা হয়নি দুর্ভাগ্যক্রমে। হ্যাটট্রিক বল মোকাবেলা করা মোহাম্মদ আশরাফুল বল মিস করলে আঘাত হানে স্টাম্পে, তবে বেল পড়েনি!

ব্রোকেন ট্রফি পস্টকাডে ক্রিস ট্রেমলেট সেই স্মৃতি নিয়ে বলেন, ‘আমি তৃতীয় বলটি করেছিলাম আশরাফুলের বিপক্ষে। সে ব্যাক ফুটে গিয়েছিল। বলটা বাউন্স করে নিচু হয়ে বেলের উপরে পড়ে। কি কারণে জানি না বেল দুটি পড়েনি! এটা মনে হয় ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক ডেলিভারি, যেটা কিনা ইংল্যান্ডের হয়ে আমার অভিষেকেই হয়েছে।’

সেযাত্রায় বেঁচে যাওয়া মোহাম্মদ আশরাফুল খেলেছিলেন দারুণ এক ইনিংস। ৫২ বলে ১১ চার ও ৩ ছক্কায় ৯৪ রান করেন তিনি। যদিও সেটা কেবল পরাজয়ের ব্যবধানই কমাতে পারে। ৩৯২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নামা বাংলাদেশ থামে ২২৩ রান করে, ম্যাচ হারে ১৬৮ রানে।

ম্যাচে ৪ উইকেট পান ক্রিস ট্রেমলেট। হ্যাটট্রিক না হলেও সেদিনের বোলিং ফিগার নিয়ে সন্তুষ্ট তিনি। ওয়ানডেতে তার সেরা বোলিং ফিগার সেটিই।

‘আমার জন্য ওটা দারুণ অভিষেক ম্যাচ ছিল। আমি ৩০ রান (আসলে ৩২) খরচে ৪ উইকেট নিয়েছিলাম। কিন্তু এটা খুব ভাল হত যদি দেশের হয়ে হ্যাটট্রিকটা করা যেত।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

সাব্বিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ, পিটিয়েছেন পরিচ্ছন্নকর্মীকে

Read Next

নিজেকে ছোট্ট বাচ্চা মনে হচ্ছে মিকি আর্থারের

Total
78
Share