ঢাকায় খেলা যে ইনিংস কোহলির চোখে ‘গেম চেঞ্জার’

featured photo1 72
Vinkmag ad

সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ভিরাট কোহলি ২০১২ সালের এশিয়া কাপে ঢাকায় পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলা ১৮৩ রানের ইনিংসটিকে নিজের ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা হিসেবে উল্লেখ করছেন। সতীর্থ অফ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনের সাথে সম্প্রতি ইন্সটাগ্রাম লাইভ আড্ডায় এমনটিই জানালেন ভারতীয় কাপ্তান।

ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার ঐ ম্যাচটি এমনিতেই নানা রেকর্ডের সাক্ষী। পাকিস্তানের দেওয়া ৩৩০ রানের লক্ষ্য ১৩ বল হাতে রেখেই জিতে যায় ভারত। যা এখনো পর্যন্ত পাকিস্তানের বিপক্ষে সর্বোচ্চ রান তাড়ার রেকর্ড হিসেবে টিকে আছে। সে সময় পর্যন্ত এর চাইতে বেশি রান তাড়া করে একটি ম্যাচই জিতেছিল আকাশী নীল জার্সিধারীরা।

কোহলির খেলা ১৮৩ রানের ইনিংসটি খেলার পথে কোহলি গড়েন ওয়ানডেতে পাকিস্তানের বিপক্ষে কোন ভারতীয়র সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের রেকর্ড। অশ্বিনের সাথে লাইভ আড্ডায় ইনিংসটিকে গেম চেঞ্জার বলে উল্লেখ করেছেন কোহলি। পাকিস্তানের কঠিন বোলিং আক্রমণের কারণেই তার চোখে অন্যতম সেরা ইনিংসগুলোর একটি।

কোহলি বলেন, ‘তাদের বোলিং আক্রমণ বেশ শক্তিশালী ছিল। বোলিং বৈচিত্রের কারণে তারা সে সময় সত্যি কঠিন ছিল। শহীদ আফ্রিদি, সাঈদ আজমল, উমর গুল , আইজাজ চিমা, মোহাম্মদ হাফিজও ছিল।’

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে স্কোরবোর্ডে কোন রান যোগ করার আগেই ফিরে যান ওপেনার গৌতম গম্ভীর। কোহলি-টেন্ডুলকার মিলে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে যোগ করেন ১৩৩ রান, টেন্ডুলকার ৫২ রান করে ফিরলেও কোহলি খেলেন ম্যাচ জেতানো ১৮৩ রানের ইনিংসটি। ঐ ইনিংসটি শচীনের শেষ ওয়ানডে ইনিংস ছিল। টেন্ডুলকারের সাথে জুটি বাঁধতে পারায় যারপরানই খুশি ছিলেন বর্তমান ভারতীয় কাপ্তান।

ভিরাট কোহলি বলেন, ‘প্রথম ২০-২৫ ওভার ম্যাচ ওদের হাতেই ছিল আমার স্পষ্ট মনে আছে। তবে আমি পাজির (শ্চীন টেন্ডুলকার) সাথে জুটি গড়তে পেরেছি বলে খুব খুশি ছিলাম। ঐ ইনিংসই তার শেষ ওয়ানডে ইনিংসে পরিণত হয়। তিনি ফিফটি করেন আমার সাথে শতরানের জুটি হয় যা আমার জন্য সত্যি স্মরণীয় মুহূর্ত ছিল।’

রান তাড়াতে সাফল্য পাওয়াদের মধ্যে বর্তামেন ভিরাট কোহলির ধারে কাছে নেই কেউ। পাকিস্তানের বিপক্ষে ঐ ম্যাচ দিয়েই রান তাড়াতে কতটা সাবলীল প্রথমবারের মত জানান দেন ভারতীয় এই তারকা ব্যাটসম্যান। তার ১৪৮ বলে খেলা ইনিংসটিকে গেম চেঞ্জার বলছেন নিজেই,

‘এটা স্বাভাবিকভাবেই ঘটেছিল এবং আমি নিজেকে যথেষ্ট উৎসাহী করছিলাম এমন কিছু যেন ঘটাতে সক্ষম হই। আমি মনে করি এটি আমার জন্য ‘গেম চেঞ্জার’ হয়ে উঠেছিল।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

‘ক্রিকেটে সব ম্যাচই ফিক্সড’

Read Next

হঠাৎ করেই মিরাজের আইডল হয়েছিলেন রমেশ পাওয়ার

Total
6
Share