‘বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচে অবসর নিতে চেয়েছিলাম’

মাশরাফি বিন মর্তুজা
Vinkmag ad

বিশ্বকাপে টাইগারদের দলীয় ব্যর্থতা ছাপিয়ে বড় ইস্যু ছিল অধিনায়ক মাশরাফির অবসর। বিশ্বকাপের আগেই রাজনীতিতে জড়ানো ও নড়াইল-২ আসনের সাংসদ নির্বাচিত হওয়ায় বিশ্বকাপেই বিদায় বলবেন ক্যাপ্টেন ফ্যান্টাস্টিক এমনটাই ধারণা ছিল সবার। বিশেষ করে বল হাতে বেশ বাজে পারফর্ম করায় সম্ভাবনাটা বেড়েছিল আরও। কিন্তু বিশ্বকাপতো বটেই এরপরে দেশে ফিরেও মাশরাফি দেননি অবসরের ঘোষণা। বরং বিপিএল চলাকালীন জানিয়ে দিয়েছিলেন খেলা চালিয়ে যাবেন আরও কিছুদিন, সময় হলেই বিদায় বলবেন।

এদিকে বোর্ড বলে আসছে মাশরাফি চাইলে তারা ঘরের মাঠে একটি ওয়ানডে সিরিজ আয়োজনের মাধ্যমে মাঠ থেকে বিদায় দিতে চান তাকে। অনেকটা খোলামেলাভাবেই মাশরাফি ফিরিয়ে দিয়েছেন এই প্রস্তাব। পারফরম্যান্স বিবেচনায় তাকে পরবর্তী সিরিজে দলে না রাখা হলেও মন খারাপ করবেন না তবে অবসর এখনই নয়। দেশের অন্যতম সফল এই অধিনায়কের এসব মন্তব্যে যে কেউই ধারণা করবে বিশ্বকাপেই অবসরে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিলনা মাশরাফির নিজের।

মার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোম সিরিজে অধিনায়কত্ব ছাড়লেও খেলা থেকে অবসরের ঘোষণা দেননি নড়াইল এক্সপ্রেস। এতদিন পর এসে মাশরাফি জানালেন অবসর নিতে চেয়েছেন বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচেই, বোর্ডের অনিচ্ছাতেই সেটি করেননি। আবার ঘরের মাঠে ওয়ানডে আয়োজনের মাধ্যমে বিদায়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ার কারণও জানিয়েছেন দেশসেরা এই পেসার।

সাংবাদিক নোমান মোহাম্মদের ‘নট আউট নোমান’ ইউটিউব চ্যানেলে গতকাল (২৭ মে) অতিথি হিসেবে ছিলেন টাইগারদের অন্যতম সফল অধিনায়ক। অবসর প্রসঙ্গে তিনি বলেন,

‘বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচে আমি অবসর নিতে চেয়েছিলাম। বিসিবি থেকে যদি কেউ এটা অস্বীকার করতে পারে, তাহলে আমার সামনা সামনি এসে লাইভে কথা বলতে হবে, আলাদা নয়। আমি আজ আপনাকে বলছি, তারা অন্যদিন বলবে, সেটা হবে না। আমি চেয়েছিলাম শেষ ম্যাচে অবসর নিতে। কিন্তু তখন এমন একটা কথা এসেছিল যে, এভাবে না হোক, সুন্দরভাবে হলে ভালো।’

মাঠ থেকে অবসর নেওয়া তার প্রাপ্য সেটা মানলেও কোটি টাকা খরচ করে শুধু তার জন্যই বাড়তি ম্যাচ আয়োজনে আবার সায় ছিলনা নড়াইল এক্সপ্রেসের। আর সে কারণেই ফিরিয়ে দেন ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ আয়োজন করে অবসরের ঘোষণা দেওয়ার প্রস্তাব,

‘জিম্বাবুয়েকে কত টাকা (২ কোটি) খরচ করে একটা ম্যাচ আয়োজন করার ব্যাপার ছিল। তখন আমার মনে হয়েছে, মাশরাফি হয়তো মাঠ থেকে অবসর নেওয়ার দাবিদার।’

‘কিন্তু একটা ম্যাচের জন্য ২ কোটি টাকার দাবিদার মাশরাফি নয়। যেখানে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের এই অবস্থা, সেখানে একটা ম্যাচের জন্য এতো টাকা তার প্রাপ্য নয়। তাই আমি তখন অবসর নিইনি। এরপর হয়তো আস্তে আস্তে চিন্তা-ভাবনায় পরিবর্তন এসেছে।’

শেষ দিকে বোর্ডের আচরণে মনে হয়েছিল মাশরাফি বুঝি অবসরের যেতেই রাজি নয়। সদ্য সাবেক হওয়া টাইগার দলপতি নিজে থেকে রাজি নাহলে বিকল্প ভাববে বোর্ড এমন মন্তব্যও করেছিল খোদ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। মাশরাফি বলছেন তিনি অবসরে যেতে চাননি এমন কিছু প্রমাণ করতে পারবেনা কেউই,

‘আমি অবসর নিতে চাইনি বা নিবো না। এমনটা যদি কেউ দাবি করে তাহলে সামনাসামনি বসতে হবে। ওই সময় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সেই ম্যাচের প্রস্তাব কেন নিইনি সেটা বললাম।’

‘আপনি যেটা বললেন, জিদ বিষয়টা ঠিক না। তবে এসব জিনিস মাথায় কাজ করেছে। আর আমাকে যে মাঠ থেকেই অবসর নিতে হবে, এমন কোনো প্রয়োজনীয়তাও দেখছি না।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ঝুলে রইল ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টি ২০২০ এর ভাগ্য

Read Next

ইংল্যান্ডে আরো এক দফা স্থগিত ঘরোয়া ক্রিকেট

Total
10
Share