ব্রেসলেট নিলামে পাওয়া অর্থ যেভাবে খরচ করছেন মাশরাফি

মাশরাফি বিন মর্তুজা ব্রেসলেট
Vinkmag ad

করোনা সংকটে শুরু থেকেই নানা সামাজিক কার্যক্রমে সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন বাংলাদেশের সদ্য বিদায়ী অধিনায়ক ও নড়াইল-২ আসনের সাংসদ মাশরাফি বিন মর্তুজা। নিজের প্রতিষ্ঠিত ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’ এর মাধ্যমে অসহায়দের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসা মাশরাফি নিজের দেড় যুগের বেশি সময়ের সঙ্গী হাতের ব্রেসলেটটিও নিলামে তুলে সংগ্রহ করেন বড় অঙ্কের তহবিল।

৪২ লাখ টাকায় বিক্রি হয় তার প্রিয় ব্রেসলেটটি, কিনে নেয় আর্থিক ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানদের সংগঠন বাংলাদেশ লিজিং এন্ড ফিন্যান্স কোম্পানিস অ্যাসেসিয়েশন (বিএলএফসিএ)।

নিলাম থেকে অর্জিত অর্থে পুরোটাই পায় ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’। তবে এর মধ্য থেকে ২৫ লাখ টাকা নড়াইলে ব্যয় করা হলেও বাকি অংশ দেশের বিভিন্ন স্থানে সামাজিক কার্যক্রম পরিচালনায় ব্যয় করা হবে বলে জানান মাশরাফি।

গতকাল (২৩ মে) তামিম ইকবালের লাইভ শো এর শেষ পর্বে অতিথি হিসেবে যোগ দেওয়া টাইগারদের সফল অধিনায়ক বলেন নড়াইলের বাইরে করোনাকালে ক্ষতিগ্রস্থ কোচ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল ছাত্র-ছাত্রী ও রক্তদাতা সংগঠনগুলোর পাশেও দাঁড়াবে ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’।

মাশরাফি ছাড়াও লাইভ আড্ডায় অংশ নেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিমও। অনুষ্ঠান সঞ্চালক তামিম শুরুর দিকেই মাশরাফির কাছে জানতে চান নিলাম থেকে অর্জিত অর্থ কীভাবে ব্যয় করা হচ্ছে?

জবাবে টাইগাদের অন্যতম সফল অধিনায়ক বলেন, ‘যে পরিকল্পনা করেছি, ২৫ লাখ খরচ করব নড়াইলে, বাকিটা বাইরে যত জায়গায় দেওয়া যায়। যেহেতু নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে এসেছে, সেই শ্রদ্ধাটা তাদেরকে করতে হবে। নড়াইলের সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম কর্মী, ফাউন্ডেশনের কর্মী যারা আছেন, কয়েক দফায় সভা করেছেন তারা, নড়াইলের অংশের টাকা কীভাবে খরচ করা যায়।’

‘নড়াইলের বাইরের অংশ নিয়ে কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এরমধ্যেই যে পরিকল্পনা করেছি, ঢাকা মেট্রোপলিটনের ভেতরে ৮০ জন ক্রিকেট কোচ আছেন, যারা এখন বেকার। কাজ নেই, প্র্যাকটিস করাতে পারছেন না। এটা দ্রুতই দিয়ে দেব। আরও কয়েকটা জায়গা আছে, যেগুলো সামনে আস্তে আস্তে তুলে ধরব।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গরীব শিক্ষার্থী, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও রক্তদান করা সংগঠনগুলোকেও সাহায্য করবেন উল্লেখ করে মাশরাফি যোগ করেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গরীব শিক্ষার্থী যারা করোনা ভাইরাসের শিকার, ডাকসুর মাধ্যমে তাদের সহায়তা দিচ্ছি। মুক্তিযোদ্ধা সংসদে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছি। সেই সঙ্গে ব্লাড ডোনারদের সংগঠনে দিচ্ছি। এরকম জায়গা ঠিক করছি আরও। পুরোটা এখনও চূড়ান্ত হয়নি, চেষ্টা করছি পরিকল্পনা সাজানোর।’

উল্লেখ্য, মাশরাফি ছাড়াও নিজের প্রিয় একটি ব্যাট নিলামে তোলেন মুশফিকুর রহিম। ২০১৩ সালে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানোর পথে ব্যবহৃত তার ব্যাটটি প্রায় ১৭ লাখ টাকায় কিনে নেয় পাকিস্তানি আলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি। মুশফিকও নিলাম থেকে অর্জিত অর্থ ব্যয় করেছেন বগুড়ায় নিজ শহরে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর কার্যক্রমে।

মুশফিকের অনুদান পেয়েছে হুইল চেয়ার ক্রিকেট ও নারায়ণগঞ্জে তামিম ইকবাল ও নাজমুল ইসলাম অপুর চলমান উপহার বিতরণে। অন্যদিকে দেশের ক্রিকেটে সাইলেট কিলার খ্যাত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর কাজটাও করছেন অনেকটা নিরবে, তামিমের শোতেও সেটা পাশ কাটিয়ে যান টাইগারদের এই অভিজ্ঞ সেনানী।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

একের চোখে অন্যের সেরা ইনিংস/স্পেল

Read Next

‘শুধু পারফরম্যান্সেই সবকিছু হয়না’

Total
70
Share