সাকিবকে দেখে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হন লিটন

সাকিব আল হাসান লিটন দাস
Vinkmag ad

লিটন কুমার দাসের প্রতিভা আর সামর্থ্য নিয়ে সন্দেহ ছিলনা কখনোই। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজেকে সেভাবে যেন মেলে ধরতে পারছিলেন না দেশের ক্রিকেটের অন্যতম স্টাইলিষ্ট এই ব্যাটসম্যান। অভিষেকের পর লম্বা সময়ই ধারাবাহিকভাবে হয়েছেন ব্যর্থ, ঘরোয়া ক্রিকেটে লিটনকে দেখে বাজি ধরা যে কেউই নিশ্চিতভাবে পড়েছেন দ্বিধায়।

তবে ২০১৮ সালে এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে জানান দিয়েছেন নিজের দিনে কতটা খুনে মেজাজে ব্যাটিং করতে পারেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। এর আগেও কিছু দারুণ ইনিংস খেললেও ধারাবাহিকতা ছিলনা। তবে নির্বাচকরাও যেন তার সেরাটা বের করে আনবেন বলেই পণ করেছিলেন।

অবশ্য বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে ভাগ্যে জুটেনি একটির বেশি ম্যাচ। যদিও ঐ এক ম্যাচেই ব্যাট হাতে করেছেন ৭৬ রান। এরপর বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ হয়নি প্রথম কয়েক ম্যাচে। ব্যাট হাতে নেমেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বড় লক্ষ্য তাড়ার ম্যাচ, বিশ্বকাপের অভিষেক ম্যাচেই সাকিবকে নিয়ে রীতিমত তান্ডব চালানো ইনিংসে দলের জয় নিশ্চিত করেছেন।

এরপরের গল্পটা কেবইলই লিটনের, বিশ্বকাপের পর বিপিএল হয়ে রেকর্ড গড়া জিম্বাবুয়ে সিরিজ লিটন রান করেছেন ধারাবাহিকভাবে। লিটনের এমন সাফল্যে অন্যতম সহায়ক ভূমিকা রেখেছে ফিটনেস।

বিশ্বকাপতো বটেই আয়ারল্যান্ড সিরিজেই একাদশে থাকবেন কিনা এমন দোটানায় থাকা ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান জানান অনুপ্রাণিত হয়েছেন সাকিব আল হাসানকে দেখে। অনুশীলনে সময় দিয়েছেন আগের চাইতে বেশি।

জনপ্রিয় ক্রিকেট ওয়েবসাইট ‘ক্রিকবাজকে’ লিটন বলেন, ‘আমি যখন আয়ারল্যান্ড সফরে যাচ্ছি আমি তখনো জানতাম না বিশ্বকাপে খেলতে পারবো কীনা, এমনকি আয়ারল্যান্ড সিরিজেও খেলবো কীনা জানতাম না। তবে একটা জিনিস আমি নিশ্চিত করি, অনুশীলনে প্রচুর সময় দেওয়া।’

‘অনুশীলন শেষে আমি খুশি হতে শুরু করি, বিশ্বাস করি যে আমি ঠিকপথে আছি। কিন্তু আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি কম ব্যাটিং করবনা। যখনই নেট খালি দেখতাম পুনরায় ব্যাটিং শুরু করতাম। সবার ব্যাটিং অনুশীলন শেষ হলে আমাকে যেন নেট দেওয়া হয় সে জন্য কোচকে অনুরোধ করতাম।’

আর ঐ বাড়তি অনুশীলনেই ব্যাটিং ও ফিটনেসে পরিবর্তন দেখতে পান ২৫ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান। বিশ্বকাপের আগে সাকিবের দুর্দান্ত ফিটনেস দেখে অনুপ্রাণিত হয়েছেন উল্লেখ করে লিটন যোগ করেন,

‘সেখান (নেটে বাড়তি সময় দেওয়া) থেকে আমার ফিটনেস ও ব্যাটিংয়ে পরিবর্তন দেখা শুরু করি। বিশেষ করে সাকিব ভাইকে দেখার পর ফিটনেসের ক্ষেত্রে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হই, বিশ্বকাপের সময় তার দুর্দান্ত ফিটনেস ছিল। আর এটিই আমার পারফরম্যান্সে বড় ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করি।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

থাকছে না টয়লেট বিরতি, আম্পায়ারকে দেওয়া যাবে না ক্যাপ

Read Next

ঈদ আনন্দ, বিবেকে বাধছে তাসকিনের

Total
11
Share