শ্রীলঙ্কা সফরে যাবার প্রশ্নে পাপনের উত্তর

নাজমুল হাসান পাপন
Vinkmag ad

করোনা ভাইরাস প্রভাবে স্থগিত হচ্ছে দ্বিপাক্ষিক সিরিজগুলো, তবে আগামী জুন-জুলাইয়ে ভারত ও বাংলাদেশকে আতিথ্য দিতে পুরোপুরি প্রস্তুত বলে জানিয়েছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড। দেশটির করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিকের দিকে যাচ্ছে বলেই এমন পরিকল্পনা। তবে ভারত ও বাংলাদেশের পরিস্থিতি এখনো ক্রমশ অবনতির দিকে। ফলে শ্রীলঙ্কা সফর নিয়ে খুব একটা আশা দেখছে না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। সর্বোচ্চ সুরক্ষার নিশ্চয়তা ও সরকারি নির্দেশনার দিকে তাকিয়ে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডও।

নিজেদের দিক থেকে সিরিজ দুটি আয়োজনের ব্যাপারে বেশ আশাবাদী হলেও লঙ্কান বোর্ড অবশ্য বলছে তারা বিসিবি ও বিসিসিআইয়ের সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলছেন যেখানে বিশ্বকাপের মত আইসিসি ইভেন্টই পিছিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা চলছে সেখানে দ্বিপাক্ষিক সিরিজের সম্ভাবনা ক্ষীণই। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদে আজ (২০ মে) ক্ষতিগ্রস্থ খেলোয়াড়দের ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের তরফ থেকে আর্থিক সাহায্য প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে বিসিবি বস এমনটাই জানান।

শ্রীলঙ্কা সফর নিয়ে বোর্ডে কোন আলোচনা হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে উপস্থিত সাংবাদিকদের নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘না কোন আলোচনা হয়নি। আলোচনা হবে কীভাবে? আমি তো কোন তারিখ দিতে পারব যে জুলাইতে খেলব, অগাস্টে খেলব । কিছুই তো জানি না। কাজেই ওগুলো নিয়ে আলোচনা হচ্ছে না। এখানে বিশ্বকাপ যেটা ছিল সেটাই পেছানোর কথা বলছে।’

‘এখানে দ্বিপাক্ষিক কি হবে এটা বলা অত্যন্ত কঠিন। মানে বলতে চাই আইসিসি ইভেন্টগুলো কবে হবে আমরা জানি না। তাহলে ওই অনুযায়ী আবার রিশিডিউল করতে হবে। তো এটা বিরাট ঝামেলা সামনে আছে। তবে এটা সবার জন্য তো একই। আমরা চেষ্টা করব বেশিরভাগ খেলা যা ছিল তা রাখতে পারি কিনা।’

শ্রীলঙ্কা আয়োজন করতে প্রস্তুত হলেও বাংলাদেশ দলের যাওয়াটা সহজ হবেনা বলে মনে করেন বিসিবি সভাপতি। এখনো করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিকের দিকে না যাওয়া ও সরকারি নানা বিধি নিষেধই বড় বাধা বলে উল্লেখ করেন নাজমুল হাসান পাপন,

‘দেখেন হোস্ট (শ্রীলঙ্কা) করতে চাইলেই তো হলো না। আমরা পাঠাতে পারব কিনা, আমাদের খেলোয়াড়দের পাঠানো ঠিক হবে কিনা এই মুহুর্তে। কোথায় থাকবে, কি করবে। এগুলো সহজ সিদ্ধান্ত না।’

‘একটা জায়গা এখন ভাল আছে, একমাস পরে দেখা গেল আবার হচ্ছে ওখানটায়। এটা তো বলা যাচ্ছে না শেষ হবে কোথায়। বা কখন কি পরিস্থিতি। আমরা অন্যদের পর্যবেক্ষণ করব। আইসিসি কি করে, এসিসি কি করে। অন্য দেশগুলো কি করছে। এখন পর্যন্ত কেউ নির্দিষ্ট তারিখ দিলে বলতে পারেনি খেলা কবে হবে। আমরাই এক্ষেত্রে প্রথম হবো এটা ভাবা ঠিক না।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত খেলোয়াড়দের আর্থিক সহায়তায় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

Read Next

১৯৯৭ তে সবচেয়ে বড় উপহার পেয়েছিলেন পাইলট

Total
6
Share