রান তাড়া প্রসঙ্গে কোহলি- ‘মুশফিকও সাহায্য করে!’

মুশফিকুর রহিম ভিরাট কোহলি

সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন নিঃসন্দেহে ভিরাট কোহলি। বর্তমানে রান তাড়াতে তার চেয়ে বেশি সফল ক্রিকেটার নেই বললেই চলে। নিয়মিতই একা হাতে বের করে আনেন বড় লক্ষ্যের ম্যাচ। লক্ষ্য তাড়ায় নেমে মানসিক দিক থেকে কীভাবে নিজের পরিকল্পনা সাজান সেটি জানিয়েছেন কোহলি।

বাংলাদেশের নতুন ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবালের নিয়মিত লাইভ আড্ডায় গতকাল (১৮ মে) অতিথি হিসেবে ছিলেন ভিরাট কোহলি। রান তাড়ায় মানসিক পরিকল্পনা জানতে চেয়ে তামিমের করা প্রশ্নের জবাবে কোহলি বলেন,

‘লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে মানসিক ব্যাপারটা অনেক সহজই। কখনো কখনো মুশফিকও সাহায্য করে দেয়, পিছন থেকে কিছু বলে আমাকে আরো মোটিভেট করে দেয় (হাসি)।’

রান তাড়ার ক্ষুধাটা তার ছোট বেলা থেকেই উল্লেখ করে ভারতীয় কাপ্তান যোগ করেন, ‘আমি যখন ছোট ছিলাম টিভিতে প্রায় খেলা দেখতাম। যদি ভারত লক্ষ্য তাড়ায় নেমে হেরে যেত আমার কাছে মনে হত আমি যদি ওখানে থাকতাম তাহলে হয়তো জিতিয়ে আসতাম।’

রান তাড়ার অন্যতম সুবিধা আগে থেকেই জানা যায় কী করতে হবে বলছেন ভারতীয় রান মেশিন, ‘তাড়া করা এমন একটা পরিস্থিতি যেখানে আপনি জানেন কত রান আপনাকে করতে হবে। আমার জন্য জয়টা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আমি যখন তাড়া করতে নামি আমার মনে হয় আমি অপরাজিত থাকতে পারবো। ঐ সময় আমি ভাবি যে দলকে জেতাতে পারবো। লক্ষ্য ৩৭০/৮০ হলেও আমার ভাবনাটা একই থাকে।’

২০১২ সালে কমনওয়েলথ ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে যেতে হোবার্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪০ ওভারে ৩২১ রানের লক্ষ্যও ভিরাট কোহলির দুর্দান্ত এক ইনিংসে মাত্র ৩৬.৪ ওভারে টপকে যায় ভারত। ৮৬ বলে ১৩৩ রানের ইনিংস খেলেন কোহলি।

ঐ ম্যাচের উদাহরণ টেনে ভারতীয় কাপ্তান বলেন, ‘হোবার্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এমন একটা ম্যাচ ছিল যেখানে ফাইনালে পৌঁছাতে আমাদের ৪০ ওভারে ৩২০ টপকাতে হত। আমি রায়নার (সুরেশ রায়না) সাথে আলাপ করছিলাম যদি আমরা দুটো টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলি তাহলেই জিতে যাবো।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

তামিমের লাইভ শো’তে আসছেন ওয়াসিম আকরাম

Read Next

বাড়ছে রিভিউ ও লোকাল আম্পায়ারের সংখ্যা

Total
5
Share