কঠিন সময়ে মাশরাফির অবদানের কথা সামনে আনলেন লিটন

লিটন মাশরাফি

কিছুদিন আগেই তামিম ইকবালের লাইভ আড্ডায় অতিথি হিসাবে এসে মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেছিলেন লিটন দাস, মুস্তাফিজুর রহমান, সৌম্য সরকাররা ওয়ানডে অধিনায়ক তামিমের বড় অস্ত্র। তাদেরকে ম্যাচ উইনার উল্লেখ করে তাদের কাঁধে সর্বক্ষণ হাত রাখার পরামর্শও দিয়েছিলেন তামিমকে। একই প্ল্যাটফর্মে লিটন জানালেন ক্যারিয়ারের কঠিন সময়ে কীভাবে তার কাঁধে হাত রেখেছিলেন মাশরাফি। 

২০১৫ সালের জুনে ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেক হয় লিটন দাসের। শুরুর ১৫ ওয়ানডেতে লিটনের রান ছিল এরকম- ৮, ৩৬, ৩৪, ০, ১৭, ৫*, ০, ৭, ১৭, ২১, ১৪, ৬, ০, ৬ ও ৭। টপ অর্ডারে ব্যাটিং করা লিটনের পক্ষে কথা বলার খুব বেশি যুক্তি ছিল না। তবুও লিটনের সামর্থ্য জানতেন বলে তাকে টানা সুযোগ দিয়ে গিয়েছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। লিটন তার মূল্যও দিয়েছেন, এশিয়া কাপে ভারতের বিপক্ষে ১২১ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন ১৮ তম ম্যাচে।

মাশরাফির অবদানের কথা স্বীকার করে লিটন বলেন, ‘হ্যা, মাশরাফি ভাই তো এই বিষয়ে আমাকে যথেষ্ট পরিমাণে সাহায্য করেছে। উনি ব্যাকাপ না দিলে ঐ সময়ে ১৫ টা ম্যাচও হয়তো খেলার সুযোগ হতো না। আমার যে পারফরম্যান্স ছিল, বিশেষ করে ওয়ানডেতে। সেখানে ১৫ টা ম্যাচ টানা খেলা অনেক বড় বিষয় ছিল। তো উনি ঐদিক দিয়ে আমাকে আসলেই অনেক ব্যাক করেছে।’

লিস্ট এ ক্রিকেটে ৪০ ছুঁইছুঁই গড় লিটনের, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে গড়টা প্রায় ৫০। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখনো নিজেকে ঠিক সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি লিটন। টেস্টে ২৬.০৩, ওয়ানডেতে ৩২.৬৯ ব্যাটিং গড় আপনাকে সেই কথাই বলবে।

ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে ঘরোয়া ক্রিকেটের মতো মনে করে ফেলেছিলেন বলে স্বীকার করেন লিটন।

লিটন বলেন, ‘আমি জাতীয় দলে খেলার আগে যেখানেই খেলেছি আমি কিন্তু পারফর্ম করেছি। আমার ৫০/১০০ সবসময়ই ছিল কোথাও না কোথাও। ঐ একটা স্টেজ ছিল যেখানে ২০ টার মতো ম্যাচে আমার কোন রেজাল্ট ছিল না। আমি আমার মত নরমাল ক্রিকেট টা খেলতে পারছিলাম না।’

‘ঐ সময়ে প্রতিদিন আমি চিন্তা করতাম যে আমার স্বভাবজাত খেলাটা খেলবো। কিন্তু ওখান থেকে আমি কখনোই ফিরে আসতে পারতাম না। আমি যেতাম, শট খেলতে পছন্দ করতাম বলে শট খেলতাম আর ভুলের জন্য আউট হয়ে যেতাম। ঐ সময়ে আমার মাথাটা অতো কাজ করতো না। আমি ভেবেছিলাম ঘরোয়াতে আমি যেভাবে খেলে রান করেছি, আন্তর্জাতিক ম্যাচেও সেভাবে খেলতে পারবো। পরবর্তীতে আমি বুঝতে পেরেছি যে আন্তর্জাতিক ম্যাচে অনেক কিছু নিজেকে হ্যান্ডেল করতে হয়।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নেটে পৃথিবীতে তাইজুলের চেয়ে বেশি ছক্কা কেউ খায়নি!

Read Next

সৌম্য শোনালেন নিদাহাসের ফাইনালে শেষ ওভার করার অভিজ্ঞতা

Total
62
Share