কোহলির প্রশংসায় পঞ্চমুখ ইমরুল কায়েস

ইমরুল কায়েস ভিরাট কোহলি
Vinkmag ad

গত নভেম্বরে ভারত সফরে টেস্ট খেলতে যাওয়া বাংলাদেশের বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েসের সাথে ভারতীয় অধিনায়ক ভিরাট কোহলির বেশ আবেগঘন মুহূর্তের একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। দুজনের বন্ধুত্ব যে পুরোনো সেটি সামনে আসে ভালোভাবে। কীভাবে সময়ের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যানের সাথে বন্ধুত্ব হয়েছে ইমরুলের জানিয়েছেন নিজে। ইমরুল বলছেন মাঠে অন্যদের স্লেজিং করলেও কোহলির কাছে টাইগার ওপেনার থাকেন নিরাপদই।

করোনা প্রভাবে গৃহবন্দী সময়ে লাইভ আড্ডায় সময় কাটাচ্ছেন ক্রিকেটাররা, এসব আড্ডায় উঠে আসছে অনেক অজানা তথ্য, মজার স্মৃতি। ক্রিকেট ভিত্তিক ওয়েবসাইট ‘ক্রিকফ্রেঞ্জির’ লাইভ আড্ডায় এসে গতকাল (১৩ মে) ইমরুল কায়েস শোনালেন কোহলির সাথে পরিচয় ও বন্ধুত্ব শুরুর গল্প। কাজী সাবিরের সঞ্চালনায় লাইভ আড্ডায় বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান জানান মাঠের বাইরে কোহলি একজন অসাধারণ মানুষ।

টাইগার ওপেনার ইমরুল দুজনের পরিচয়ের শুরুটা জানাতে গিয়ে বলেন, ‘২০০৭ সালের ঘটনা, অস্ট্রেলিয়াতে একটা ক্যাম্প হয়। বাংলাদেশ থেকে আমি ও দেলোয়ার নামের একজন গিয়েছিলাম। ভারত থেকে ভিরাট কোহলিসহ ৪-৫ জন গিয়েছিল। ওরা অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জিতে ওখানে যায়। ওখানে প্রায় এক মাস আমরা এক সাথে অনুশীলন করেছি, একসাথে গল্প হত। যেহেতু আমরা দুজনেই পাশের দেশের মানুষ অস্ট্রেলিয়াতে ক্যাম্প করছিলাম।’

 

View this post on Instagram

 

Friendship!

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

‘অস্ট্রেলিয়ানরাতো এশিয়ানদের একটু অন্য চোখে দেখে আমরা সবাই জানি। দেখা যেত আমাদের ঠিকমত ব্যাটিং দিতনা। আমি আর ভিরাট একসাথেই থাকতাম, মেশিনে যখন ব্যাটিং করতাম, আমাদের দুজনকে ব্যাটিং পার্টনার করে দিত ওখানকার কোচ। তখন ও বলতো আমরা এতদূর থেকে আসছি ওদের বোলারদের খেলতে, এখানেতো মেশিনে খেলতে আসিনাই। আমাদের দেশে বহু মেশিন আছে। এরকম বিষয়গুলো নিয়ে আমার সাথে ওর আলোচনা হত। আমাদের দেশের মানুষ হিন্দি মুভি দেখে কিনা এসব জিজ্ঞেস করতো। অনুশীলন শেষে আমরা অনেকক্ষণ ধরে গল্প করতাম, আড্ডা দিতাম। এভাবে আরকি ওর সাথে আমার পরিচয় ২০০৭ সালে।’

কিন্তু জাতীয় দলে অভিষেকের পর প্রথম মুখোমুখি হয়ে বন্ধু কোহলির কাছ থেকে স্লেজিং সহ্য করতে হয় ইমরুলকে। মন খারাপ করা ইমরুলের হয়ে বদলাটা নেন তামিম ইকবাল, ‘যখন জাতীয় দলে ঢুকলাম ওর বিপক্ষে আমার প্রথম খেলা হয় ২০১১ সালে। ও আমাকে স্লেজিং করেছিল মাঠে। আমি খুব অবাক হয়েছি যে একটা মাস ওর সাথে এত ভালো সময় কাটালাম কিন্তু মাঠে এসে সে আমাকে স্লেজিং করে। আমি কিছু বলিনাই, তামিমকে বললাম। তামিম আবার ওরে ডেকে উল্টো একটা স্লেজিং করছে, পরে ও থেমে গেছে, তামিমতো এগুলো ভালো পারে। মাঠের ভেতর ভালোই আগ্রাসী থাকে।’

ঐ ঘটনার পর অবশ্য আর কখনোই পুরোনো বন্ধুকে স্লেজিং করেনি ভিরাট কোহলি। টাইগার শিবিরের সবাইকে ভারতীয় কাপ্তান স্লেজিং করলেও ইমরুল থাকতেন নিরাপদই, ‘তারপর থেকে ভিরাট কোহলির সাথে আমার যতবার দেখা হয়েছে কোন খারাপ ব্যবহার করেনি। ফতুল্লাতে যখন খেলা হয় টেস্ট ম্যাচ প্রায় সবাইকেই ও স্লেজিং করেছে আমাকে একটা কথাও বলেনি। আমরা যে ভারতে টেস্ট সিরিজ খেলতে গেলাম সে কিন্তু কমবেশি সবাইকেই গালিগালাজ করেছে, আমাকে একটা কথাও বলেনি।’

বড় মাপের ক্রিকেটার হয়েও ইমরুলদের ভুলে যায়নি কোহলি, বিষয়টি আনন্দিত করে টাইগার এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানকে। এ প্রসঙ্গে ইমরুল যোগ করেন, ‘আসলে ও ওর লেভেলে, ও তো লিজেন্ড প্লেয়ার। ওর সাথেতো আমাদের হিসাব করলে হবেনা। একটা জিনিস ভালো লাগে কি। এত বড় প্লেয়ার হলেও আমাদের মনে রাখে এখনো। দেখা হলে নিজে থেকে কথা বলে।’

মাঠের ভিরাট কোহলি যেন এক টুকরো অগ্নিশিলা, প্রতিপক্ষকে চোখ রাঙানো তার কৌশলে পরিণত হয়েছে। বিতর্কিত কান্ড আর আগ্রাসী আচরণে হয়েছেন খবরের শিরোনাম। তবে মাঠের বাইরে কোহলি যে ভিন্ন একজন ইমরুল কায়েসও বলছেন সেটিই, ‘মাঠের বাইরে ভিরাট কোহলি কিন্তু আমাদের দেশের ক্রিকেটারদের সাথে খারাপ আচরণ করেনি। মাঠের বাইরে আমি বলবো যে সে আসলেই অসাধারণ একজন মানুষ।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

বাংলাদেশ ক্রিকেটের সেকাল-একাল; ডু প্লেসিসের মূল্যায়ন

Read Next

ডু প্লেসিসকে বিপিএল খেলার আমন্ত্রণ জানালেন তামিম

Total
82
Share