লম্বা ক্যারিয়ারে মুশফিকের চোখে যারা সেরা কোচ

মুশফিকুর রহিম মতিউর রহমান মতি বিকেএসপি
Vinkmag ad

চলতি মাসের ২৬ তারিখ ১৫ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে মুশফিকুর রহিমের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের। এই লম্বা সময়ের ক্যারিয়ারে বহু জয়ের সাক্ষী হয়েছেন ড্রেসিং রুমে, অনেক জয়ে অবদান রেখেছেন। ক্রিজে থেকে দলের জয়সূচক রানও নিয়েছেন বহুবার। সেসবের মধ্য থেকে অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান বেছে নিয়েছেন নিজের প্রিয় তিন জয়, জানিয়েছেন তার কাছে প্রিয় ও সেরা মনে হওয়া কোচদের নাম।

ক্যারিয়ারের এই সময়টায় কাজ করতে হয়েছে অনেক বিদেশি কোচের সাথে, তার মুশফিকুর রহিম হওয়ার পেছনের কারিগর হিসেবে কাজ করেছেন দেশি কয়েকজন কোচও। আজ (৭ মে) ডেইলি ক্রিকেটের লাইভ সেশনে এসে মিস্টার ডিপেন্ডেবল খ্যাত উইকেট রক্ষক এই ব্যাটসম্যানকে উত্তর দিতে হয়েছে ভক্তদের নানা প্রশ্নের।

সেরা জয়গুলো সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি জানান, ‘বেশ কয়েকটি জয়ই আছে এবং ঐ জয়গুলোতে আমি অংশ হতে পেরে আনন্দিত। যদি আলাদা করে বলতে পারেন প্রথমে ২০০৭ সালে ভারতের বিপক্ষে জয়টা। একজন তরুণ ক্রিকেটার হিসেবে ঐ বিশ্বকাপটা বিশেষ কিছু ছিল আমার জন্য। আমার প্রথম বিশ্বকাপ, প্রথম ম্যাচ আর ভারতের প্রায় সব কিংবদন্তী ক্রিকেটার যেমন শচীন টেন্ডুলকার, সৌরভ গাঙ্গুলি, রাহুল দ্রাবিড়, জহির খানদের মত খেলোয়াড়দের বিপক্ষে খেলা।’

‘তখনতো তাদের বিপক্ষে খেলাটাই স্বপ্ন ছিল, আর সেখানে তাদেরকে হারানো, ফিফটি করা, উইনিং শট আমার ব্যাট থেকে আসা আসলে আমার জন্য অনেক বিশেষ কিছুই। এরপর ২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে হারানো আমি বলবো আমার কাছে আরেকটি অবিস্মরণীয় জয়। আরও একটি কথা বলতে হলে কার্ডিফে যে আমরা চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জিতলাম সেটা।’

সেরা কোচদের তালিকায় মুশফিকের বিকেএসপি কোচ নাজমুল আবেদিন ফাহিম ও মতিউর রহমান আছেন যথারীতি সবার উপরেই। বিদেশিদের মধ্যে অস্ট্রেলিয়ান জেমি সিডন্স ও শ্রীলঙ্কান হাথুরুসিংহে মুশফিকের চোখে সেরা, কি কারণে সেরা দিয়েছেন সে ব্যাখ্যাও।

মুশফিক বলেন, ‘চলতি মাসে আমার ক্যারিয়ারের ১৫ বছর পূর্ণ হবে, এই সময়ে অনেক বিদেশী কোচের সাথে কাজ করার সুযোগ হয়েছে। এর মধ্যে অনেক অসাধারণ কোচ ছিল। আমাদের স্থানীয় কোচও আছে অনেকে যাদের মধ্যে ফাহিম (নাজমুল আবেদিন ফাহিম) স্যার আমার দেখা সর্বশ্রেষ্ঠ কোচ এখনো পর্যন্ত। মতি (মতিউর রহমান) স্যার আছেন যিনি আমার মেন্টরও বলা যায়। এই দুজনকে আমি সবসময় ফলো করি এবং সবসময় উনাদের সংস্পর্শে থাকি।’

‘আর সবমিলিয়ে বিদেশিদের মধ্যে নিঃসন্দেহে জেমি সিডন্সের কথা বলবো। একজন ব্যাটসম্যানের জন্য সে বিশেষ কিছু ছিল। হাথুরুসিংহের কথাও বলতে হয়। ব্যাটসম্যান হিসেবে এখন বলি একটা জিনিস, সেটা হল ২০১৫ বিশ্বকাপের আগে অনুশীলনে সে এমন কিছু কৌশল দেখিয়েছে যা আর কোন কোচ এর আগে দেখায়নি আমাদের। তার এই কৌশল আমাদের সব ব্যাটসম্যানেরই কাজে এসেছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইস্যুতে আইসিসি ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সভা

Read Next

মুশফিক-আকবরদের স্মারক নিলাম যখন, যেভাবে

Total
21
Share