পাওনা টাকা চেয়ে গালি শুনেছেন রুমানা

রুমানা আহমেদ
Vinkmag ad

গতবছর নারী প্রিমিয়ার লিগে নতুন দল শেখ রাসেল স্পোর্টস ডেভেলপমেন্ট একাডেমিতে নাম লেখান জাতীয় দলের ক্রিকেটার রুমানা আহমেদ, শায়লা শারমিন, নাহিদা আক্তার ও খাদিজা তুল কুবরা। সবচেয়ে বেশি ৭ লাখ টাকার চুক্তিতে ক্লাবটিতে যোগ দেন রুমানা আহমেদ। কিন্তু এক বছরের বেশি সময় পার হলেও অর্ধেক টাকাও জোটেনি রুমানার ভাগ্যে। গতবছর তিন লাখ টাকা পাওয়ার পর বিভিন্ন সময় যোগাযোগের চেষ্টা করেও রুমানাসহ ক্লাবের বেশিরভাগ নারী ক্রিকেটার বুঝে পাননি পাওনা টাকা।

এদিকে চলতি করোনা পরিস্থিতি ও রোজায় ক্রিকেটাররা পড়েছেন আর্থিক সংকটে। পাওনা টাকা চাইতে ক্লাবের সাথে যোগাযোগ করলে গালি শুনতে হচ্ছে, প্রভাবশালী ক্লাব বলে হুমকির সম্মুখীনও হতে হচ্ছে বলে অভিযোগ নারী দলের অলরাউন্ডার রুমানা আহমেদের। যদিও শেখ রাসেল স্পোর্টস ডেভেলপমেন্ট একাডেমির ম্যানেজার জাকির হোসেন বিষয়টি অস্বীকার করে রুমানার বিরুদ্ধে এনেছেন পাল্টা অভিযোগ।

‘ক্রিকেট৯৭’ এর পক্ষ থেকে নারী দলের অলরাউন্ডার রুমানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘একবছরের বেশি হচ্ছে এই টাকার জন্য ঘুরাচ্ছে। একবারের জন্যও বলছেনা দিবনা কিন্তু দেখেন গতবছর থেকে এই টাকার জন্য ঘুরছি তাদের পিছনে। আজ দিচ্ছি কাল দিচ্ছি করে করে তারিখ পেছায়। দেখে এখন দেশের যে পরিস্থিতি করোনা সংকট চলছে, রোজা এসে গেছে এখন সবারই টাকা প্রয়োজন। এমন সময় তারা কিছু টাকা দিলেও কাজে আসতো।’

ফোন করে যোগাযোগ করা কঠিন হচ্ছে উল্লেখ করে রুমানা যোগ করেন তার জাতীয় দলের সতীর্থ শায়লা শারমিনও অর্ধেকের বেশি টাকা পাননি,

‘আমি ফোন দেই ফোন ধরেনা। পরে অপরিচিত নাম্বার থেকে ফোন দিলে কেটে দেয়, কথা বলতে চায়না। আমি একটু টাকার কথা বলতে গেলেই তারা রাগারাগি শুরু করে, গালাগালি দিয়ে বসে। শুধু আমার না, আমার সাথে শায়লা ছিল, নাহিদা ছিল তাদেরও একই অবস্থা। শায়লা অর্ধেক পেয়েছে বাকিটার জন্য তারাও ঘুরে ঘুরে ক্লান্ত।’

করোনার কারণে বর্তমানে খুলনায় নিজের বাড়িতে অবস্থান করছেন রুমানা। তবে বাড়ি যাওয়ার আগেই বিসিবিতে করেছেন অভিযোগ, ‘আমি বাড়ি আসার আগে বিসিবিতে অভিযোগ করেছি। তারা ক্লাবকে চিঠি দিয়েছে যতটুকু জানি। কিন্তু হয়েছে কি তারা আসলে প্রভাবশালী ক্লাব। কথায় কথায় হুমকি ধামকি দিয়ে বসে। এখনতো ফোনেই পাওয়া যায়না, বহু চেষ্টার পর ম্যানেজার ফোন ধরলেও সেই পুরোনো কথা।’

তবে পরিস্থিত স্বাভাবিক হলে বকেয়া টাকার পাশাপাশি তার সাথে বাজে ব্যবহারের অভিযোগও তুলবেন বিসিবিতে, ‘আমার সাথে যে খারাপ ব্যবহার করেছে এটা নিয়ে বিসিবিতে এখনই অভিযোগ করতাম কিন্তু করোনা পরিস্থিত কারণে সেটা সম্ভব হচ্ছেনা। ঢাকায় ফিরেই আমি বিসিবিতে এ ব্যাপারে ভালোভাবে অভিযোগ করবো। কারণ টাকাও পাচ্ছিনা আবার গালিগালাজও শুনতে হচ্ছে এটা কেমন কথা।’

দলের ম্যানেজারের পাল্টা অভিযোগ

এদিকে দলটির ম্যানেজার জাকির হোসেন অভিযোগ করেছেন রুমানাই প্রথমে বাজে ব্যবহার করে তার সাথে, ‘ধরেন আপনি আমার টিম ম্যানেজার আপনি কী আমাকে গালি দিয়ে বলতে পারেন এই টাকা দেস না কেনো? কথা নাই বার্তা নাই হুট করেই আমাকে তুই করে বলে টাকা দেস না কেন? এই টাকা দেওয়ার দায়িত্ব আমার না। আমাকে কেন ফোন দিবে? আমার কর্মকর্তাদের ফোন দিবে। আমাকে মাঠে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, দল পরিচালনা করার জন্য। দল কীভাবে নামবে কীভাবে অনুশীলন করবে। টাকা দেওয়ার দায়িত্বতো আমার না।’

মেয়েদের টাকা প্রয়োজন সেটা অনুধাবন করে জাকির জানিয়েছেন করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে প্রিমিয়ার লিগের আগেই টাকা বুঝিয়ে দেওয়া হবে, ‘এগুলোতো আমরাও বুঝি। ছেলেরা অনেক টাকা আয় করতে পারে, মেয়েরাতো পারে না। আমরাও নতুন দল হিসেবে একটু খারাপ অবস্থায় পড়ে গিয়েছিলাম। করোনার এই অবস্থা না শুরু হলে আমরা অনেক আগেই টাকা দিয়ে দিতাম। আমার ক্লাবের অফিসিয়ালরাতো বলেনি, যে টাকা দেব না। তাদের সঙ্গে কথাও হয়েছিলো, করোনা পরিস্থিতি ঠিক হলে প্রিমিয়ার লিগ শুরু আগেই আমরা টাকা দিয়ে দেব।’

রুমানার সাথে গতবছর শেখ রাসেলের হয়ে খেলা জাতীয় দলের সতীর্থ নাহিদা আক্তারের সাথে যোগাযোগ করা হলে বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে চান না বলে জানিয়েছেন এই প্রতিবেদককে। অন্যদিকে যোগাযোগের চেষ্টা করে আরেক সতীর্থ শায়লা শারমিনের ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায় লম্বা সময় ধরে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

কোহলিকে দ্বিতীয় সুযোগ দিয়ে তোপের মুখে ক্রিকইনফো

Read Next

একই প্রতিষ্ঠান কিনে নিল তাসকিনের ‘বল’, সৌম্যের ‘ব্যাট’

Total
14
Share