দুঃসময়ে বিসিবির কাছে প্রণোদনার আবেদন করেছেন কোচরা

বিসিবি লোগো
Vinkmag ad

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রভাবে থমকে যাওয়া ক্রিকেটাঙ্গনে চলছে শুনশান নিরবতা। ব্যাট-বলের মত কোচ-শিষ্যদেরও দেখা নেই লম্বা সময় ধরে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে খেলাধুলা কবে মাঠে ফিরবে তার নিশ্চয়তা নেই। মাত্র এক রাউন্ড মাঠে গড়ানোর পরই ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ স্থগিত হওয়ায় আর্থিক দিক থেকে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফের সদস্যরা। ক্রিকেটারদের বিসিবি এককালীন সাহায্য করে কিছুটা হলেও পাশে থাকার চেষ্টা করেছে। তবে কোচিং স্টাফরা পড়েছেন বিপাকে, ক্লাব থেকে আর্থিক দিক নিয়ে যোগাযোগ করা হচ্ছেনা কোচদের সাথে। বিশেষ করে বোর্ডের চুক্তিবদ্ধ নন এমন কোচরা বিসিবির প্রণোদনার জন্য আবেদনও করেছেন।

লম্বা বিরতির পর প্রিমিয়ার লিগে উঠে আসা ওল্ড ডিওএইচএস কোচ নাসিরউদ্দিন ফারুক ‘ক্রিকেট৯৭’ কে জানিয়েছেন ক্লাবের সাথে পারিশ্রমিক নিয়ে এখনো পর্যন্ত কোন আলোচনা হয়নি।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমাদের সাথে ক্লাবের সেভাবে কোন কথা হয়নি। যোগাযোগতো সবসময়ই থাকে সবার সাথে কিন্তু আর্থিক ব্যাপারে কোন কথা হয়নি। ক্লাব কি ভাবছে সেটা আসলে আমাদের জানা নেই। আসলে পুরো ব্যাপারটিতো প্রাকৃতিক, এখানে কারও হাত নেই। এমন পরিস্থিতি আসলে কাউকে কিছু বলাও যাচ্ছেনা।’

করোনা প্রভাবে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ স্থগিত হওয়ায় আর্থিক অনিশ্চয়তায় পড়েছে দুই শতাধিক ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফ। যাদের বেশিরভাগেরই রুটি রুজির মূল উৎস দেশের সীমিত ওভারের জমজমাট এই টুর্নামেন্টটি। বিসিবির প্রথম শ্রেণির চুক্তিতে নেই তবে এবারের ঢাকা লিগে নাম লিখিয়েছে এমন প্রায় একশ ক্রিকেটারের পাশে দাঁড়িয়েছে বিসিবি। করোনার এই দুঃসময়ে এককালীন ৩০ হাজার টাকা করে প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে বোর্ডের তরফ থেকে।

কিন্তু বেশিরভাগ কোচিং স্টাফই বিসিবির চুক্তিবদ্ধ নন, অন্যদিকে ক্লাব থেকেও পারিশ্রমিকের ব্যাপারে কোন ইতিবাচক সাড়া না পাওয়ায় কিছুটা বিপাকে তারা। এমন পরিস্থিতিতে বোর্ডের কাছে প্রণোদনা চেয়ে আবেদন করেছেন চুক্তির বাইরের কোচরা। যদিও এখনো সাড়া মেলেনি সেভাবে।

ওল্ড ডিওএইচএস কোচ ফারুক জানান, ‘আমরা যারা বোর্ডের চুক্তিতে নেই এখনো তারা কয়েকজন মিলে একটা আবেদন করেছি বোর্ডে। ক্রিকেটারদের যেমন প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে সেরকম কিছু যদি আমাদের জন্যও ব্যবস্থা করা হয় তাহলে সবার ভালো হত। অনেকদিন হল আবেদন করেছি, কতটুকু কি এগিয়েছে সে তথ্য এখনো পর্যন্ত জানিনা।’

সাবেক প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটার ও বর্তমান কোচের বাইরে নাসির উদ্দিন ফারুকের আরেক পরিচয় সদ্য প্রয়াত খ্যাতিমান চলচ্চিত্র পরিচালক ও শিল্পনির্দেশক মহিউদ্দিন ফারুকের ছেলে। গত শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) ৭৮ বছর বয়সে পরলোকগমন করেন ৭ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার জেতা এই গুণী শিল্প নির্দেশক। করোনার এই সময়ে বাবার মৃত্যুতে মানসিকভাবে আরও কিছুটা ভেঙে পড়েন নাসিরউদ্দিন ফারুক।

লকডাউনের কারণে আত্মীয়স্বজনের সাথেও ঠিকভাবে যোগাযোগ করতে না পারা ওল্ড ডিওএইচএস কোচ যোগ করেন, ‘ব্যক্তিগতভাবেও মন খারাপ অবস্থায় সময় কাটছে। বাবা মারা গিয়েছে ১৭ এপ্রিল। লকডাউনের এই সময়টায় পরিবারের লোকজন, আত্মীয়স্বজন কেউই কাছে থাকতে পারছেনা। কথা বলার লোকজন না থাকলে মন হালকা করা যায়না। এভাবে আসলে একটা কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে সবাইকে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ক্যারিয়ার জুড়ে যে স্লেজিং এর শিকার হচ্ছেন জো রুট!

Read Next

আইসিসির সমালোচনায় পাকিস্তান অধিনায়ক

Total
15
Share