সাকিবের চোখে নিজের সেরা ইনিংসগুলো

সাকিব আল হাসান ইংল্যান্ড মরগান আর্চার
Vinkmag ad

অভিষেকের পর থেকে সাকিব আল হাসান বাংলাদেশের জার্সি গায়ে চেপে ব্যাট হাতে নিয়েছেন ৩৭৪ বার। অসংখ্য ম্যাচ জয়ী ইনিংসের ভীড়ে আছে ব্যক্তিগত দুর্দান্ত কিছু ইনিংস। আছে একরাশ হতাশা জাগানো ম্যাচ। আর সেসব থেকে নিজেই বেছে নিলেন সেরা ইনিংসগুলো।

২০১৯ ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস বিশ্বকাপে ব্যাট হাতে দারুণ কেটেছে সাকিবের। ৮ ইনিংসে ৮৬.৫৭ গড়ে রান করেছেন ২ সেঞ্চুরি ও ৫ ফিফটিতে ৬০৬। দুই সেঞ্চুরির একটি ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হারা ম্যাচে অন্যটি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৩২২ রানের লক্ষ্য তাড়ায়। বল, প্রয়োজনীয় রানের ব্যবধান বাড়া ম্যাচে লিটন দাসকে নিয়ে ১৮৯ রানের জুটিতে দলকে জিতিয়েছেন ৭ উইকেটে।

৯৯ বলে ১৬ চারে সাকিব খেলেছেন ১২৪ রানের নান্দনিক এক ইনিংস, তাকে যোগ্য সমর্থন দেওয়া লিটনের ব্যাট থেকে আসে হার না মানা ৮ চার ৪ ছক্কার ৯৪ রানের ইনিংস। নিজের সেরা ইনিংসগুলোর তালিকা করতে গিয়ে সাকিব সবার আগে উচ্চারণ করেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ইনিংসটিকে।

গতকাল (২২ এপ্রিল) ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঐ ম্যাচসহ পুরো বিশ্বকাপেই খেলা একমাত্র ব্যাটটি নিলামে বিক্রি করে দেন সাকিব। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার প্রিয় এই ব্যাটটি ২০ লাখ টাকায় রাজ নামের আমেরিকা প্রবাসী এক বাংলাদেশির কাছে বিক্রি করেন। যার পুরো অর্থ ব্যয় হবে সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে করোনায় অসহায় হয়ে পড়া মানূষদের সাহায্যার্থে।

নিলাম কার্যক্রমের অংশ হিসেবে লাইভ সেশনে সাকিবের কাছে প্রিয় ইনিংস জানতে চেয়ে প্রশ্ন করেন এক ভক্ত। জবাবে সাকিব বলেন, ‘গত বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ইনিংসটি (৯৯ বলে অপরাজিত ১২৪ রান) আমার খুব প্রিয়। সেই বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরিটিও অনেক প্রিয় (১১৯ বলে ১২১ রান)। যদিও ইংল্যান্ডের কাছে আমরা হেরেছি। তারপরও ব্যক্তিগত দিক থেকে ইনিংসটি ভালো লাগার অবশ্যই।’

নিজের প্রিয় ইনিংসের তালিকায় আছে ২০০৯ সালে বৃষ্টির কারণে ৩১ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৬৯ বলে ৯২ রানের দাপুটে ইনিংসটিও, ‘এছাড়া ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৯২ রানের ইনিংসটিও (ত্রিদেশীয় সিরিজে ৬৯ বলে অপরাজিত ৯২) খুব ভালো ছিল।’

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে নিজের একমাত্র ডাবল শতকটিও ভালো লাগে, সাকিবের পছন্দের ইনিংসে তালিকায় আছে ২০১২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার ক্যান্ডিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলা ৮৪ রানের ইনিংসটিও। যা এখনো আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তার সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। সাকিব বলেন, ‘ডাবল সেঞ্চুরির (নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২১৭) কথা তো বলতেই হবে। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ওদের বিপক্ষে এমন ইনিংস খেলতে পারা আমার কাছে খুবই স্পেশাল। টি-টোয়েন্টির কথা বললে অবশ্যই ২০১২ বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৮৪ রানের ইনিংসটি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

করোনাকালে জন্মদিন পালনে শচীনের ‘না’

Read Next

চার মাসেও ম্যাচ ফি বুঝে পায়নি ক্যারিবীয় ক্রিকেটাররা, নেপথ্যে বাংলাদেশ!

Total
22
Share