আইসিসির চোখে বাংলাদেশের স্মরণীয় ৫ ম্যাচ (ভিডিও)

featured photo updated v 2
Vinkmag ad

বিস্তৃত আর্কাইভ করোনা ভাইরাসের কারণে স্থবির হয়ে পড়ার সময়ে সবার জন্য খুলে দিয়েছে আইসিসি (ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল)। নিজেদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন আর্কাইভাল কন্টেন্ট প্রকাশ করছে আইসিসি। এর আগে ২০১৫ বিশ্বকাপের বাংলাদেশ ও ইংল্যান্ডের ম্যাচ প্রচার করা আইসিসি এবার সমর্থকদের সামনে আনলো বিশ্বকাপে তাদের চোখে বাংলাদেশের সেরা ৫ ম্যাচের হাইলাইটস।

৫:

২০১১ সালে ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অ্যান্ড্রু স্ট্রসের দলকে ২ উইকেটে হারিয়েছিল সাকিব আল হাসানের দল। ব্যাট হাতে ৬০ রান করে সে ম্যাচে ম্যাচসেরা হয়েছিলেন ইমরুল কায়েস। যদিও ৯ম উইকেটে শফিউল ইসলাম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের অবিচ্ছেদ্য ৫৮ রানের জুটিতে হয়েছিল শেষরক্ষা, ১ ওভার হাতে রেখে জিতেছিল বাংলাদেশ।

৪:

২০১৯ সালের বিশ্বকাপে লন্ডনের কেনিংটন ওভালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২১ রানের ব্যবধানে হারিয়েছিল মাশরাফি বিন মর্তুজার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ দল। আগে ব্যাট করে ৩৩০ রান স্কোরবোর্ডে জমা করেছিল বাংলাদেশ, প্রোটিয়ারা ৩০৯ এর বেশি করতে পারেনি। ব্যাট হাতে ৭৫ রান ও বল হাতে ১ উইকেট নেওয়া সাকিব আল হাসান হন ম্যাচসেরা।

৩:

২০১৫ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেড ওভালে ইংল্যান্ডকে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় করে দিয়েছিল বাংলাদেশ। ১৫ রানে জেতা ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ করেছিলেন সেঞ্চুরি (১০৩), মুশফিকুর রহিম গিয়েছিলেন খুব কাছাকাছি (৮৯)। তবে পাদপ্রদীপের সব আলো নিজের দিকে টেনে নিয়েছিলেন রুবেল হোসেন। ডেথে দারুণ পেস বোলিংয়ের প্রদর্শনীতে ইংল্যান্ডকে হতাশায় ডোবান রুবেল।

২:

২০০৭ বিশ্বকাপে পোর্ট অব স্পেইনে ভারতের তারকাখচিত দলকে হারিয়ে দিয়েছিল হাবিবুল বাশারের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ দল। আগে ব্যাট করা ভারতকে ১৯১ তেই গুটিয়ে দিয়েছিল টাইগার বোলাররা। ৩৮ রান খরচে ৪ উইকেট শিকার করেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। জবাব দিতে নেমে তিন তরুণ তামিম ইকবাল (৫১), সাকিব আল হাসান (৫৩) ও মুশফিকুর রহিমের (৫৬*) ফিফটিতে ৯ বল ও ৫ উইকেট হাতে রেখেই জয় নিশ্চিত করে বাংলাদেশ।

১:

বিশ্বকাপে প্রথম কোন বড় দলকে হারানোর স্বাদ বাংলাদেশ পেয়েছিল ১৯৯৯ সালে। ঐ বিশ্বকাপের রানার আপ পাকিস্তানকে হারিয়ে দিয়েছিল আমিনুল ইসলাম বুলবুলের দল। আগে ব্যাট করে ২২৩ রান স্কোরবোর্ডে জমা করেছিল বাংলাদেশ। জবাব দিতে নেমে সুবিধা করে উঠতে পারেনি পাকিস্তান। ৪৫ তম ওভারে ১৬১ রান করেই অলআউট হয় ওয়াসিম আকরামের নেতৃত্বাধীন দল। ২৭ রান ও ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হন খালেদ মাহমুদ সুজন।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

যেকারণে ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ভারতে চান গাভাস্কার

Read Next

অ্যাশেজের মতো ভারত-অস্ট্রেলিয়ার পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ

Total
12
Share