ভাবতেই ভয় পাচ্ছেন ক্রিকেটাররা, সিসিডিএম বলছে বিপদ হতে দিবেনা

বঙ্গবন্ধু ডিপিএল ২০১৯-২০
Vinkmag ad

করোনা ভাইরাস সংক্রমণে থমকে গেছে পুরো পৃথিবীটাই, স্থগিত সবধরণের খেলাধুলা। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ থেমেছে মাত্র এক রাউন্ড পরই। পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে দিন দিন, খুব দ্রুত মাঠে ফিরবে ক্রিকেট নেই কোন আভাস। এদিকে সময় সংকুলানে শেষ মুহূর্তে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের এবারের আসর আর মাঠে না গড়ালে বেশ ক্ষতির মুখে পড়বে শতাধিক ক্রিকেটার। তাদের আয়ের মূল উৎস যে প্রিমিয়ার লিগ, সারা বছর এই টুর্নামেন্টের জন্যই অপেক্ষায় থাকে বেশিরভাগ ক্রিকেটার।

ঢাকা লিগের এবারের আসরে ১২ টি ক্লাবে নাম লিখিয়েছে দুই শতাধিক ক্রিকেটার। জাতীয় দল ও প্রথম শ্রেণির চুক্তিতে থাকা ক্রিকেটারদের সংখ্যা ১০০ এর কম। ফলে বাকি ক্রিকেটাররা সরাসরি ঢাকা লিগের উপরই নির্ভরশীল। সেক্ষেত্রে লিগ আয়োজন না হওয়া মানেই রুতি,রুজির জায়গায় বড় একটা ধাক্কা। আর এ কারণে বৈশ্বিক মহামারীতে রূপ নেওয়া করোনা ভাইরাসের সাথে তাদের ভাবতে হচ্ছে আর্থিক ক্ষতির দিক নিয়েও। যদিও সিসিডিএম বলছে তারা ক্রিকেটারদের বিপদ হতে দিবেন না, প্রয়োজনে ছোট করে হলেও শেষ করবেন ঢাকা লিগ।

মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সাথে চুক্তিবদ্ধ ওপেনার শামসুর রহাম শুভ জানান লিগ মাঠে গড়াবেনা এটা ভাবতেই ভয় লাগে। লিগের বাকি অংশ আয়োজন না হলে সবচেয়ে বর ক্ষতিটা তাদেরই উল্লেখ করে বলেন, ‘আমি কোনভাবেই চিন্তা করি না যে লীগ বন্ধ হয়ে যাবে। আমার এটি ভাবতেই ভয় লাগে। কারণ এই ঢাকা লীগেই আমাদের রুটি-রুজি, ফিটনেস ও পারফরম্যান্স ধরে রাখার একমাত্র পথ। কিন্তু এই মহামারি থেকেও আমাদের বাঁচতে হবে।’

করোনা প্রতিহতে সচেতন থাকার পরামর্শ এই ক্রিকেটারের, ‘সবার কাছে আমার অনুরোধ করোনা ভাইরাস রুখতে আমাদের যা যা করণীয় সেই নির্দেশনা মেনে চলি। যেন দ্রুত এই বিপদ থেকে রক্ষা পাই। আবার মাঠে ফিরতে পারি আমরা। নয়তো ক্ষতিটা খুব বড় হবে আমাদের মত ক্রিকেটারদের জন্য যারা শুধু লীগে খেলেই জীবন চালাই।’

এদিকে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের বাঁহাতি স্পিনার ইলিয়াস সানি জানান সংসার চালাতে প্রিমিয়ার লিগই তার বড় আয়ের উৎস। তাই ছোট পরিসরে হলেও যেন আয়োজন হয় এমনটাই চাওয়া এই স্পিনারে, ‘এটাতো সত্যি, যে পরিস্থিতি তাতে কারো কিছু করার নেই। কিন্ত সত্যি বলতে গেলে লিগ না হলে আমাদের ক্ষতি আরো বড় হবে। কারণ জাতীয় দলের খেলোয়াড় ছাড়া বেশির ভাগ ক্রিকেটার ঢাকা লিগের আয়ে নিজেদের জীবন ও সংসার চালায়।’

‘আমি মনে করি পরিস্থিতি ভালো হলে ছোট পরিসরে হলেও যেন ফের লীগটা শুরু হয়। নয়তো অনেক বড় ক্ষতি হয়ে যাবে আমাদের যারা শুধু লীগের উপরই নির্ভর করে চলি। সেই সঙ্গে বলবো যেন সরকারের নির্দেশ মেনে আমরা চলি। দ্রুত এই বিপদ থেকে মুক্ত হই।’

এদিকে লিগের আয়োজক ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিশ (সিসিডিএম) সদস্য সচীব আলি হোসেন বলছেন তারা ক্রিকেটারদের ব্যাপারটি দেখবেন। বোর্ড এর সাথে কোনভাবেই জড়িত নয় উল্লেখ করলেও তিনি ক্রিকেটারদের আশ্বস্ত করেছেন, ‘ক্রিকেটারদের পাওনা পরিশোধের দায়িত্ব ক্লাবগুলোর। বিসিবি ও সিসিডিএম দায়িত্ব নিবে না এমনটাই বলা আছে। তারপরও আমরা ক্লাবগুলোকে অনুরোধ করেছি যেন প্রথম ধাপে ৫০ ভাগ টাকা পরিশোধ করে। বাকিটা ২৫ শতাংশ করে দিয়ে দেয়। লীগ হবে না সেটি এখনই চিন্তা করছি না। ছোট করে হলেও আমরা শেষ করবো এবারের ঢাকা লীগ। আর না হলেও আমরা ক্রিকেটারদের বিপদ হতে দিবো না। কারণ আমরা জানি এই লীগ খেলেই বেশির ভাগ ক্রিকেটারের সংসার চলে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মুশফিক-তামিমদের পথে হাঁটছেন সাবেকরাও

Read Next

চুক্তির বাইরে থাকা ক্রিকেটারদের জন্য বিসিবির আর্থিক সহায়তার ঘোষণা

Total
5
Share