মিরপুর স্টেডিয়াম হবে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, যদি…

mirpur
Vinkmag ad

করোনা সংক্রমণ প্রতিহতে বিশ্বের সব জায়গাতেই ক্রীড়াবিদ ও নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো রাখছে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা। নিজ অবস্থান থেকে পাশে দাঁড়াচ্ছে ক্রিকেট বোর্ড ও ক্রিকেটাররাও। এবার বিসিবিও জানিয়েছে সরকার চাইলে সবধরনের সাহায্যে প্রস্তুত তারা। প্রয়োজনে শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামকে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করতেও নেই আপত্তি।

দিন দুয়েক আগেই করোনা সংক্রমণ প্রতিহত তহবিলে প্রায় ৩১ লাখ টাকার অনুদান দিয়েছে জাতীয় দলের ২৭ ক্রিকেটার। চলতি মাসে নিজেদের বেতনের অর্ধেক দান করেছেন তামিম, মাশরাফি, মুশফিক, রিয়াদ, লিটনরা। তবে বোর্ড সরকারের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিবে তারা নিজেরা আর্থিক সাহায্য করবে নাকি অন্যভাবে পাশে দাঁড়াবে এই কার্যক্রমের। কিন্তু অন্যান্য ক্রিকেট বোর্ডগুলোর মত বিসিবিও যে বেশ সক্রিয়ভাবে পাশে থাকবে এটা নিশ্চিতই।

এর আগেও বিভিন্ন দুর্যোগকালীন মুহূর্তে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বলছেন প্রয়োজনে সরকার চাইলে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম ও বিসিবি একাডেমি ভবনকে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করতেও নেই তাদের আপত্তি।

বেসরকারি টিভি চ্যানেল ‘চ্যানেল২৪’ কে জালাল ইউনুস বলেন, ‘যেকোন সময় সরকার যদি মনে করে যে আমাদের কোন লজিস্টিক সমর্থন নিবে আমাদের কাছ থেকে আমরা আগেই বলেছি আমরা প্রস্তুত আছি। আর্থিকভাবে হলেও আমরা এগিয়ে আসবো, এজন্য আমরা সবদিক দিয়েই প্রস্তুত আছি। শুধু মাঠ নয়, মাঠ ছাড়াও আমাদের আরও কিছু জায়গা জানেন আপনারা যেমন একাডেমি আছে, সরকার চাইলে আমরা সেটা দিতেও প্রস্তুত আছি।’

এর আগে ভারতের ঐতিহ্যবাহী কোলকাতা ইডেন গার্ডেন্স ক্রিকেট স্টেডিয়ামকেও কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হিসেবে ব্যবহারে আপত্ততি নেই জানিয়েছেন প্রিন্স অব কোলকাতা খ্যাত ভারতী ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলিও। ভারতীয় গণমাধ্যমকে তিনি জানান, ‘সরকার চাইলে ইডেনে অস্থায়ী চিকিৎসাকেন্দ্র করতে কোনও অসুবিধে নেই। এই মুহূর্তে যেটা আমাদের পক্ষে সম্ভব, সেটা তো করতেই হবে। কোনও সমস্যা নেই।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

যে রেকর্ডে কোহলি-ইনজামামদের পাশে নাম আছে সৈকত-তাইজুলেরও

Read Next

অস্ট্রেলিয়ার স্টেট ক্রিকেট অ্যাওয়ার্ড পেলেন যারা

Total
15
Share