গৃহবন্দী ক্রিকেটারদের পাশে দুই ট্রেনার, পরামর্শ দিবেন ভিডিও কনফারেন্সে

218747 vdo
Vinkmag ad

করোনা ভাইরাস আশঙ্কায় সারা বিশ্বের অন্যান্য খেলাধুলার মত বাংলাদেশেও থমকে আছে ক্রিকেট। অনির্দিষ্ট কালের জন্য সবধরণের ক্রিকেট স্থগিত হওয়াতে বেশিরভাগ ক্রিকেটারকেই ফিরতে হয়েছে ঘরে। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ শুরু হলেও মাঠে গড়ায়নি এক রাউন্ডের বেশি। ব্যাটে-বলে অনুশীলনের চাইতে এই অনির্দিষ্ট সময়ের বিরতিতে ফিটনেস ধরে রাখাটাই মূল চ্যালেঞ্জ ক্রিকেটারদের জন্য। বিসিবির দুই ট্রেনার তুষার কান্তি হাওলাদার ও ইফতেখারুল ইসলাম বলছেন পাশে আছেন ক্রিকেটারদের, প্রয়োজনে ভিডিও কনফারেন্সে দিবেন পরামর্শ।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ সহ লম্বা সময়ের জন্য ছুটি মেলায় ও করোনা সংক্রমণ থেকে নিজেদের দূরে রাখতে বেশিরভাগ ক্রিকেটারই নিজেদের বাড়িকেই নিরাপদ মনে করেছেন। ঢাকা ছেড়ে গেছেন প্রায় ক্রিকেটারই, ফলে এই সময়ে বিসিবির জিমনেসিয়াম ও ট্রেনারের সুবিধা পাওয় দুষ্কর হবে তাদের জন্য। উন্নত মানের জিম সরঞ্জাম না থাকলেও বাসায় নিজস্ব উদ্যোগে যতটুক সম্ভব ফিটনেস নিয়ে কাজ করার কৌশল বাতলে দিতে প্রস্তুত তুষার ও ইফতেখার, প্রয়োজনে যোগাযোগ হবে ভিডিও কনফারেন্সে।

বিসিবি ট্রেইনার তুষার কান্তি হাওলাদার জানান ঘরে বসেও ট্রেনিং করা সম্ভব, সেক্ষেত্রে বাড়ির সিঁড়ি হতে পারে অন্যতম হাতিয়ার, ‘আমি মনে করি ঘরে বসেই ট্রেনিং সম্ভব। যেমন ধরেন যে সব ক্রিকেটার বড় বড় এপার্টমেন্টে থাকে তাদের সেখানে ১০ তলা পর্যন্ত সিঁড়ি আছে। রাস্তায় না বের হয়ে তারা সেই সিড়ি গুলোতে ওঠা নামা করলে কার্ডিও ট্রেনিং গুলো হয়ে যাবে। এছাড়াও ঘরে বসেই ট্রেন্ধ নিয়ে কাজগুলো করা যায়। আমরা প্রায় প্রতিটি ক্রিকেটারকে নিয়মিত কাজের জন্য শিট দিয়ে থাকি।’

‘সে গুলোতে সব ধরণের ট্রেনিংয়ের বিষয় থাকে। যদি কেউ চায় ফোনে বা ভিডিও কলে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে কিভাবে ঘরে কাজগুলো করা যায় জেনে নিতে পারে। আমরা তাদের সঙ্গে ফোনে  সর্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখবো। আমি মনে করিনা এতে ভয়ের কিছু আছে। যেভাবে মাঠে কাজ করেছি ক্রিকেটারদের নিয়ে সেই ভাবে এখন না হলেও তাদের ফিটনেস যেন ঠিক থাকে তা করার জন্য আমরা সব কিছু করতে রাজি আছি।’

আরেক ট্রেনার ইফতেখারুল ইসলাম অবশ্য দিয়েছে ভিন্ন এক বার্তাও। বিসিবির ক্রিকেটীয় কার্যক্রম বন্ধ হলেও মিরপুরের জিমনেসিয়াম ও একাডেমি মাঠ ব্যবহার করতে পারবে যেকোন ক্রিকেটারই, ‘বিসিবি তাদের কার্যক্রম সিমীত করলেও ক্রিকেটারা যে মাঠে আসতে পারবেনা এমন নয়। কেউ প্রয়োজন হলে বা চাইলে আমরা পাশে থাকবো। সেই ক্ষেত্রে নিরাপত্তা ঠিক রাখতে বিসিবি যে পরামর্শ দিয়েছে সে গুলো মেনে কাজ করবো। আমার অনেকেই বাসায় ট্রেড মেলে রানিং করছে। এটি ভালো।’

ভিডিও কনফারেন্সে ক্রিকেটারদের সাহায্য করতে প্রস্তুত ইফতেখারুলও, ‘কৌশলগত দিক গুলো আমাদের সঙ্গে আলোচনা করতে পারে। আমি ঠিক করেছি ভিডিও কনফারেন্সেই বেশির ভাগ ক্রিকেটারের ট্রেনিংয়ে সাহায্য করবো। যেন তাদের বাসার বাইরে না যেতে হয়। ট্রেডমিল বা জিম করার ভারি কিছু না থাকলেও কোন সমস্যা নেই। তারা চাইলে বাসার সিঁড়িগুলো ব্যবহার করতে পারে। এক তলা থেকে পাঁচ তলা পর্যন্ত উঠা নামা করলে অনেক কাজে দিবে।’

‘এছাড়াও ফিটনেস ধরে রাখার প্রায় প্রতিটি ট্রেনিংয়ে সংক্ষিপ্ত আকারে বাসাতে করা যায়। সে গুরো জানতে যে কেউ আমাদের যোগাযোগ করে করতে পারে। আমরা সব ধরণের পরামর্শ দিতে প্রস্তুত। আরেক কথা নিরাপত্তার কথা ভেবে আমি ভিডিও কনফারেন্স আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের পরামর্শই দিচ্ছি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

অপ্রত্যাশিত ছুটিতে যেমন কাটছে আকবর, সাকিব, শরিফুলদের

Read Next

স্বেচ্ছা কোয়ারেন্টাইনে কুমার সাঙ্গাকারা

Total
8
Share