রিমোট ওয়ার্কিং পলিসির আগে বিসিবির সচেতনতা কার্যক্রম

নিজাম উদ্দিন চৌধুরী
Vinkmag ad

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ আশঙ্কায় সবধরণের ক্রিকেট স্থগিত করেছে বিসিবি। ক্রিকেটারদের নেই ব্যস্ততা, তবে দাপ্তরিক কাজে বিসিবি সংশ্লিষ্টদের বিসিবি কার্যালয়ে আসতে হচ্ছিল। এবার ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের মত বিসিবি কর্মকর্তাদেরও বাসায় বসে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছে বোর্ড। তবে খুব জরুরি কিছু হলে আলাদাভাবে অফিসে এসে সারতে হবে কাজ।

আগামীকাল থেকে কার্যকর হতে যাচ্ছে এমন সিদ্ধান্ত, তার আগে  কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সচেতনতা বৃদ্ধি ও করণীয় সম্পর্কে জানাতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের উপস্থিতিতে আয়োজন হয় সচেতনতামূলক কর্মকান্ডের।

কার্যক্রম শুরুর আগে বিসিবি প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন আজ উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘এই সচেতনতায় সবাইকে সম্পৃক্ত হতে হবে বলে বোর্ড মনে করে। সেক্ষেত্রে আমাদের স্টাফ মেম্বার যারা আছেন, বিভিন্ন পর্যায়ে যারা আমাদের সাথে সম্পৃক্ত, তাদের সাথে কয়েকটা সেশন আমরা আজকে করব। যেখানে আমাদের ডাক্তাররা করোনা ভাইরাস নিয়ে কথা বলবেন। কীভাবে করোনা ভাইরাস থেকে সচেতন থাকা যায় এটা নিয়ে তাঁরা কথা বলবেন।’

মাঠে নেই ক্রিকেট, ক্রিকেটাররাও আছেন নিজেদের মত নিরাপদ অবস্থানে। তবে বিসিবি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অফিস করা নিয়ে ছিল সংশয়ে। আনুষ্ঠানিক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ (২১ মার্চ) সেটিও সীমিত করে দিয়েছে বিসিবি। পরবর্তী ঘোষণার আগ পর্যন্ত বাসা থেকেই কাজ করবেন অফিশিয়ালরা। তবে খুব গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজ থাকলে নিজের মত করে বিসিবিতে এসে সেরে নেওয়ার কথা উল্লেখ ছিল সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

বিসিবি প্রধান নির্বাহী এ প্রসঙ্গে জানান, ‘এটা আগামীকাল থেকে কার্যকর হবে। ইতোমধ্যে আমরা আমাদের বিভাগের ম্যানেজারদের সাথে কথা বলেছি। বোর্ডের একটা নির্দেশনা সবাইকে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। যতটুকু সম্ভব, আমাদের পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনার যে কাজগুলো থাকবে সেগুলো আমরা সীমিত করার চেষ্টা করব। এর মধ্যে কোনো জরুরি কাজ যদি চলে আসে তাহলে অফিসে আসতে হবে।’

আইসিসির সাথে সম্পৃক্ত বলে ঢালাওভাবে লকডাউনে যাওয়া যাচ্ছেনা বিসিবির। সেক্ষত্রে নির্দিষত কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি এসে কাজ করবেন বলে ধারণা দেন নিজাম উদ্দিন চৌধুরী, ‘আপনারা জানেন যে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের সাথে সম্পৃক্ত। এসব বিষয়ে আমরা চেষ্টা করব অফিসে উপস্থিত হওয়ার। কাউকে প্রয়োজন হলে অফিসে এসে কাজ করতে হবে। সেক্ষেত্রে নির্ধারিত কিছু নীতিমালা থাকবে।’

স্টাফদের করোনা সচেতনতায় যেসব কার্যক্রমের উদ্যোগ নিয়েছে বিসিবি সেসব মিস না করার অনুরোধ প্রধান নির্বাহীর, ‘বোর্ডের কাছ থেকে অনুরোধ থাকবে যে সেশনগুলো মিস না করার জন্য। বোর্ডের চেষ্টা থাকবে যে সবাইকে যে কোনো প্রয়োজনে কাছে পাওয়ার।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বিসিবিও হাঁটল ‘রিমোট ওয়ার্কিং পলিসি’র’ পথে

Read Next

বোলিং কোচ থেকে প্রধান কোচ হচ্ছেন চম্পকা

Total
11
Share