করোনা সংক্রমণ এড়াতে বিসিবির প্রশংসনীয় উদ্যোগ

বিসিবি লোগো
Vinkmag ad

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রভাবে ইতোমধ্যে অনির্দিষ্টকালের জন্য সবধরণের ক্রিকেট স্থগিত করেছে বিসিবি। খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বিসিবির দাপ্তরিক কাজের সাথে সংশ্লিষ্টদেরও বাসা থেকে বের না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি। বেশ লম্বা সময়ের জন্য মিরপুর বিমুখ হতে যাচ্ছে ক্রিকেটার, বোর্ড কর্তারা। তবে নিরাপত্তা ও মাঠ পরিচর্যার কাজে নিয়োজিত কর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিতে বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হচ্ছে বিসিবি। শনিবার বিসিবি একাডেমিতে বিশেষ এক কনফারেন্সে উপস্থিত থাকবেন ক্রিকেটাররাও।

আন্তর্জাতিক খেলাধুলাতো বন্ধই, শুরু হয়েও থেমে গেল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। যথাসময়ে শুরু হওয়া এবারের প্রিমিয়ার লিগ প্রথম রাউন্ড ঠিকঠাক শেষ হলেও করোনা আশঙ্কায় সরকারি নির্দেশের পর প্রাথমিকভাবে দ্বিতীয় রাউন্ড স্থগিত হলেও গতকাল (১৯ মার্চ) বিসিবি সভাপতি অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ধরণের ক্রিকেট স্থগিতের চূড়ান্ত ঘোষণা দেন।

এই ঘোষণার পর নিশ্চিতভাবেই মিরপুরে আনাগোনা কমতে যাচ্ছে ক্রিকেটারদের। ম্যাচ, অনুশীলন নেই বলে বেশিরভাগ ক্রিকেটার ইতোমধ্যে ব্যাগ পত্র গুছিয়ে বাড়ি যাওয়ার সিদ্ধান্তও করে ফেলেছেন পাকা। ক্রিকেটার নেই, বিসিবি কর্তারাও খুব বেশি দরকার না পড়লে আসছেন না বিসিবি কার্যালয়ে। তবে নিরাপত্তাকর্মী ও মাঠ দেখভালের দায়িত্বে থাকা কর্মীদের মিলছেনা ছুটি। কঠিন বাস্তবতার বলি হয়ে ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হলেও বিসিবি অবশ্য তাদের জন্য নিয়েছে প্রশংসনীয় এক উদ্যোগ।

আগামীকাল (২১ মার্চ) বিসিবিতে নিয়ে আসা হচ্ছে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক চন্দন কুমার রায়কে। এই ভাইরাস বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক একাডেমি কনফারেন্স রুমে ক্রিকেটার, বিসিবি কর্মকর্তা, কর্মচারীদের সাথে করোনা প্রতিরোধে করণীয় নিয়ে আলোচনা করবেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিসিবি প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘আমরা মেডিকেল বিভাগের পক্ষ থেকে একজন ভাইরাস বিশেষজ্ঞের সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক চন্দন কুমার। তিনি শনিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের বিসিবি অফিসে আসবেন। এরপর একাডেমির কনফারেন্স রুমে এখানে যারা কর্মরত আছেন তাদের করোনা প্রতিরোধে নিদের্শনা দেবেন। এছাড়াও এই ভাইরাস কীভাবে ছড়ায়, বাঁচার উপায় নিয়ে কথা বলবেন।’

অধিকাংশ ক্রিকেটার বাড়ি ফিরলেও ঢাকায় থাকাদের জানানো হবে আমন্ত্রণ। তবে বিশেষ গুরুত্ব পাচ্ছেন মাঠকর্মীরা, তাদের জন্য রাখা হবে আলাদা একটি সেশনও, ‘আমরা ক্রিকেটারদের আমন্ত্রণ জানাবো। কিন্তু মাঠে যারা কাজ করে তাদের জন্য আলাদা করে ব্যবস্থা রাখবো একটি সেশনের। কারণ তাদের অনেকেই শিক্ষিত নয়। বুঝেও কম, তাই ওরাই বেশি ঝুঁকির মধ্যে যে কারণে ওদের জন্য একটি আলাদা সেশন থাকবে।’

‘উপস্থিত থাকতে পারে যারা ক্রিকেট সাংবাদিকরাও। এই বিষয়টি সবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তবে খেয়াল রাখা হবে যেন বেশি লোক সমাগম না হয়। বেশি লোক মানেই সমস্যা।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মাশরাফি বলছেন, ‘না, এভাবে কাছে আসা যাবে না!’

Read Next

দুদকের মামলায় জামিন পেলেন বিসিবি পরিচালক

Total
8
Share