‘লকডাউন করে দিতে পারলে ভালো হত’

বিসিবি সাংবাদিক নাজমুল হাসান পাপন করোনা
Vinkmag ad

করোনা আশঙ্কায় অনির্দিষ্ট কালের জন্য দেশের সবধরণের ক্রিকেট স্থগিত ঘোষণা করলো বিসিবি। ক্রিকেটারদের পাশাপাশি বিসিবির দাপ্তরিক কাজে যুক্ত থাকাদের জন্যও অনেকটা কমতে যাচ্ছে বিসিবিতে যাতায়ত। তবে ভারতীয় বোর্ডের মত ঢালাওভাবে বোর্ডের কর্মকর্তা, কর্মচারীদের বাসায় বসে কাজ করার ঘোষণা অবশ্য দেয়নি বিসিবি। যদিও একদম লকডাউন করে দেওয়া গেলে ভালো হত মানছেন বিসিবি সভাপতি নিজেও।

আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রিকেট স্থগিতের ঘোষণা দিতে দিয়ে মিরপুরে আজ (১৯ মার্চ) নাজমুল হাসান পাপন ক্রিকেটারদের সাথে নিজেদের সচেতনতার প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে আগে আমরা নিজেরাই সচেতন হবো। এটা করতে গিয়ে আমরা যা যা করণীয় সেটা করছি। আপাতত যে লিফট চলছিল সেটা বন্ধ হয়েছে। সকলের জন্য একটাই কথা, এটা শুধু ক্রিকেটারদের জন্য না। সবার জন্য একটাই কথা যে জিনিসটাকে হালকা করে নেয়ার সুযোগ নেই।’

‘কাজেই আমাদের সচেতন হতে হবে। প্রত্যেককে এবং যতটা সম্ভব বাসা থেকে না বের হওয়া উচিত। এই বার্তাটা সবার জন্য। শুধু ক্রিকেটারদের নয়, যারা বোর্ডে আছে তাদের জন্যও প্রযোজ্য। জরুরী কাজ ছাড়া তারা যেন বের না হয়।’

দেশে সবধরণের ক্রিকেট স্থগিত হওয়ায় শুরু হয়েও থেমে গেল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। প্রথম রাউন্ড যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হলেও টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় রাউন্ড স্থগিত হয়েছিল গত ১৬ মার্চ, আর আজ বিসিবি সভাপতি নিশ্চিত করলেন অন্তত ১৫ এপ্রিলের আগে লিগ মাঠে গড়ানোর সম্ভাবনা একদমই নেই। খেলা বন্ধের পাশাপাশি ক্রিকেটারদের সচেতনতার জন্য দিক নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে নাজমুল হাসান পাপন বলেন,

‘আমার জানা মতে প্রতিটি খেলোয়াড়কে এবং ক্লাবকে সতর্কতামূলক নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। এই জিনিসগুলো তাদেরকে ব্রিফ করা হয়েছে। এখনও আমরা সেইরকম ব্রিফিং দেব তাদেরকে যেন সবাই সতর্ক থাকে। না পারতে যেন বাইরে না যায় এবং অন্য কারো সংস্পর্শে যতটা কম সম্ভব আসে।’

বিসিবি কার্যালয় কিংবা ক্রিকেটারদের আসা যাওয়া হয়তো একদম বন্ধ বলার উপায় নেই। তবে বিসিবি সভাপতি বলছেন একদম লকডাউন করতে পারলে ভালো হত, ‘আমি বলছি না একেবারে লক ডাউন করে দিতে। করতে পারলে ভালো হতো। ওদেরকে সাবধানে থাকতে হবে। আগে একটা চিন্তা ছিল এবং ভয় ছিল, ভয়ের কারণ নেই। আমি ভয় পাওয়ার কথা বলছি না। এটা হতেই পারে, তবে যেন না হয় এর জন্য যতটুকু সর্তক হওয়া দরকার প্রত্যেকে সেটা হতে হবে।’

সবধরণের ক্রিকেট বন্ধ তবে পেশাগত দায়িত্বে গণমাধ্যমের বিসিবি কার্যালয়ে যাতায়ত করতেও হতে পারে। গণমাধ্যম কর্মীদের জন্য বিশেষ কোন পরামর্শ থাকছে কিনা জানতে চাইলে নাজমুল হাসান পাপন অবশ্য রসিকতার সুরে দিয়েছেন কৌশলী উত্তর, ‘আমি যদি বলি তো আসবেন, আর কারো যদি হয় (করোনা) তো বলবেন আমার জন্য হয়েছে। আর আমি যদি বলি আসবেন না তাহলে বলবেন আমাদের ঢোকা নিষিদ্ধ করেছে।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

ক্যারিয়ার শেষ হবার শঙ্কা আইসোলেশনে থাকা বেটির মনে

Read Next

‘গত ১৫ দিন শুধু করোনা ভাইরাস নিয়েই কাজ করেছি’

Total
9
Share