সমালোচনা কষ্ট দেয় মুস্তাফিজকে, পরামর্শ নেন অনূর্ধ্ব-১৯ দলের খেলোয়াড় থেকেও

মুস্তাফিজুর রহমান
Vinkmag ad

বিপিএল দিয়ে নিজেকে ফেরানোর মিশন শুরু মুস্তাফিজুর রহমানের, জিম্বাবুয়ে সিরিজে পেয়েছেন আত্ববিশ্বাসের আরও কিছুটা রসদ। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ হতে পারতো নিজেকে পুরোপুরি ছন্দে আনার মঞ্চ। কিন্তু করোনা আশঙ্কায় বিশ্বজুড়ে সব খেলাধুলার মত আপাতত স্থগিত প্রিমিয়ার লিগের দ্বিতীয় রাউন্ড। পরিস্থিতি বলছে এই স্থগিতাদেশ আরোপ হতে পারে পরবর্তী রাউন্ডগুলোতেও। সেক্ষেত্রে ক্রিকেটারদের ফাঁকা সময়টা হচ্ছে দীর্ঘ। মুস্তাফিজ বলছেন ফাঁকা সময় কাজে লাগান পুরোনো ভিডিও পর্যালোচনা করে।

খারাপ সময়ে মুস্তাফিজ চারদিক থেকে বিদ্ধ হয়েছেন সমালোচনার তীরে। ভক্ত-সমর্থকদের পাশাপাশি গণমাধ্যমের আচরণেও কিছুটা মনক্ষুন্ন বাঁহাতি এই পেসার। মনের মধ্যে কষ্টগুলো দানা বেঁধেছে বেশ ভালোভাবে জানালেন মিরপুরে আজ (১৮ মার্চ) সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে। তবে মেনে নিয়েছেন বাস্তবতা, শিখছেন নিজকে করতে হবে আরও উন্নত।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নেই, স্থগিত হয়েছে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগও। এমন ফাঁকা সময় পেলে মিচেল স্টার্ক, ডেল স্টেইনের মত তারকা পেসাররা সময় কাজে লাগান নিজেদের পুরোনো ভিডিও পর্যবেক্ষণ করে। মুস্তাফিজ এমন কিছু করেন কিনা জানতে চাইলে জবাবে বলেন, ‘দেখি, আমার পুরাতন ভিডিওগুলো আমি দেখি। কি করলে কি হয়।’

কেবল ভিডিও দেখা নয়, বাঁহাতি এই পেসার আমলে নেন সবার পরামর্শও। এ প্রসঙ্গে মুস্তাফিজ যোগ করেন, ‘অনেকের কথা শুনি। মাঝে অনূর্ধ্ব-১৯ এর একজনের কথা শুনলাম নেটে বল করার সময়। ও বলল যে সাইড থেকে স্লোয়ার করার সময় ভাই আপনার উপর থেকে হলে ভালো হয়। আমারও ভালো লাগছে যে ও একটা ভালো কথা বলেছে।’

অভিষেকের পর থেকে দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে পড়া মুস্তাফিজ বিবর্ণ পারফরম্যান্সে হারিয়েছেন সাদা পোশাকে নির্বাচকদের আস্থা। বাদ পড়েছেন সাদা পোশাকের কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকেও। রঙিন পোশাকেও ঠিক আগের ছন্দে নেই কাটার মাস্তার খ্যাত এই পেসার। তবে এমন পরিস্থিতি মুস্তাফিজকে বুঝতে শিখিয়েছে তার উন্নতি প্রয়োজন, ‘আমার জন্য ভালো (সাদা পোশাকে বাদ পড়া, পারফরম্যান্স নিয়ে সমালোচনা), আমার আরও উন্নতির জায়গা আছে এটা বুঝতেছি। এটা আমার শিক্ষা যে আমি এখন যোগ্য না। সুতরাং আমাকে আরও কাজ করতে হবে, প্রমান করতে হবে।’

কাটার অস্ত্র দিয়ে ২০১৫ সালে বেশ দারুণভাবে মেলে ধরেছেন নিজেকে। ক্যারিয়ারের ঐ সময়টায় গড়েছেন একের পর এক রেকর্ড। পরের বছর সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের হয়ে আইপিএল খেলতে নেমে জিতেছেন সেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরষ্কার। পারফরম্যান্স বিবেচনায় জনপ্রিয়তার তুঙ্গে ছিলেন বাঁহাতি এই পেসার। সময়ের বিবর্তনে পারফরম্যান্সে পড়ে ভাটা। সমালোচকরা ছাড় দিয়ে কথা বলতে নারাজ, গণমাধ্যমকে তুলে ধরতে হয়েছে কঠিন বাস্তবতা।

আগের মত সেই জশ, খ্যাতি নেই, আইপিএলেও আগ্রহ দেখায় না দলগুলো। মুস্তাফিজ জানান মন খারাপ করায় সমালোচনা, তবে চেষ্টা করছেন ফিরে আসার, ‘কষ্ট দেয় আরকি। চলতেছে চলুক। ওরকম আহামরি না। কিছু না কিছুতো দেশের জন্য করছি। এখন অনেকে অনেকভাবে নেয়। মাঝে মাঝে অনেক সাংবাদিকরাও বাজে বাজে কথা বলে। সমস্যা নাই। আমি চেষ্টা করছি যে কি করলে আরও ভালো জায়গায় যেতে পারব। শুধু আমার জন্য না। আমি একটু ভালো করলে দেশের জন্যই ভালো, উপকার হবে।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

বল ভেতরে ঢোকানোর কৌশল প্রায় রপ্ত করে ফেলেছেন মুস্তাফিজ

Read Next

বিসিবির প্রস্তাবে সঞ্জয় বাঙ্গারের ‘না’

Total
45
Share