টেস্টেও কখনো এমন হয়নি মুশফিকের!

মুশফিকুর রহিম
Vinkmag ad

লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার পর ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ৬ আসরের তিনটিই জিতেছে আবাহনী লিমিটেড। সবশেষ দুই আসর আবার টানা শিরোপা ঘরে তুলেছে ঢাকার ক্রিকেটের ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি। প্রথমবারের মত মুশফিক খেলছেন আবাহনীর হয়ে। এবারের আসরের প্রথম ম্যাচেই আজ (১৫ মার্চ) লড়াকু এক সেঞ্চুরিতে খাদের কিনারা থেকে দলকে টেনে তুলেন মুশফিক। টপ অর্ডার এতটাই বিপর্যস্ত হয়েছে আবাহনীর যে নিজের প্রথম রান নিতে মুশফিক খেলেন ২৪ বল। টেস্টেও নিজের প্রথম রান নিতে এত বল খেলতে হয়না বলে জানান মিঃ ডিপেন্ডেবল নিজেই।

মুশফিক যখন ক্রিজে আসেন তখন দলীয় ৬ রানে ওপেনার লিটন দাস ও নাইম শেখকে হারিয়ে বিপদের শুরু আবাহনীর। মুশফিক ক্রিজে আসার পর দ্রুত ফিরে যান নাজমুল হোসেন শান্ত, আমিনুল ইসলাম ও আফিফ হোসেনও। ৬৭ রানে ৫ উইকেট হারানো আবাহনীর ত্রানকর্তা হয়ে আবির্ভাব হয় মুশফিকের, সঙ্গী হিসেবে পান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে। দুজনের ১৬০ রানের জুটিতে দল পায় জয়ের ভীত, বোলাররা দেন ৮১ রানের জয় উপহার।

আউট হওয়ার আগে ১০২.৪১ স্ট্রাইক রেটে মুশফিক খেলেন ১২৭ রানের ইনিংস কিন্তু প্রথম রান নিতেই খেলে ফেলেন ২৪ বল। সে হিসেবে শেষদিকে মোটামুটি ঝড়ই তুলেছেন বলা যায় মিঃ ডিপেন্ডেবল খ্যাত এই ব্যাটসম্যান। দলের বিপর্যয় সামাল দিতে গিয়ে যে ধীরেলয়ে শুরু করেন অধিনায়ক মুশফিক তা নিজেই ভুলে গিয়েছেন। তবে চাপ নয় বরং ক্রিজে টিকে থাকার লক্ষ্যেই এমন শুরু জানালেন মুশফিক, ‘আমি নিজেও আসলে ভুলে গিয়েছি, হয়তো টেস্টেও এমন হয়নি কখনো, খুব কম সময় হয় যে প্রথম রান করতে এত বল খেলেছি। তবে আমার কখনোই চাপ মনে হয়নি, কারণ আমার নিজের প্রতি একটা বিশ্বাস ছিল যে আমি যদি উইকেটে থাকতে পারি এবং সেট হয়ে যেতে পারি তাহলে অবশ্যই আমি রান করতে পারবো।’

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের গত আসরে খেলননি মুশফিক। এর আগের দুই আসরে খেলেছেন লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জের হয়ে। ঢাকা লিগে সবশেষ সেঞ্চুরি রুপগঞ্জের হয়ে ২০১৭ সালে। সময়ের হিসেবে তিনবছর পর মুশফিকের ব্যাটে সেঞ্চুরি, তাও লিগের উদ্বোধনী ম্যাচেই। সেঞ্চুরি দিয়ে লিগ শুরু করতে পেরে আনন্দিত আবাহনী কাপ্তান, ‘তিন বছর পর নাকি? গত বছর তো খেলিনি। অবশ্যই ভালো লাগছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে অনুভব করি যে বাংলাদেশের সবচাইতে বড় ঘরোয়া ক্রিকেট লিগের আসর ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। এখানে শুরুটা ভালো হয়েছে আলহামদুলিল্লাহ।’

৬৭ রানে দল হারিয়েছে ৫ উইকেট, চোট কাটিয়ে মাঠে ফেরা মোসাদ্দেকের ৬১ রানের সাথে তার ১২৭ রানের ইনিংস ও শেষদিকে সাইফউদ্দিনের ১৫ বলে ৩৯ রানের ঝড়ো ইনিংসে ২৮৯ রানের পুঁজি আবাহনীর। মেহেদী হাসান রানার ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে আবাহনী পায় ৮১ রানের বড় জয়। চাপের মুখে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি তুলে নেওয়া মুশফিক বলছেন চাপই করেন উপভোগ, ‘দেখুন আমি সবসময় এই চাপ এবং চ্যালেঞ্জগুলো উপভোগ করি। এখান থেকে যখন আপনি ওভারকাম করতে পারবেন তখন এই জিনিসগুলো ব্যক্তিগত দিক থেকে যদি বলি তখন আপনাকে এক ধাপ এগিয়ে দেবে। আমি সবসময় এই জিনিসগুলো উপভোগ করি’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

শেষ ওভারের রোমাঞ্চে দোলেশ্বর হারালো ব্রাদার্সকে

Read Next

অধিনায়ক তামিম প্রসঙ্গে মাহমুদউল্লাহর কণ্ঠে মুশফিকের সুর

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
12
Share