নিজেই সরে দাঁড়াবেন তামিম, যদি…

তামিম ইকবাল
Vinkmag ad

প্রায় সাড়ে ৫ বছর পর বদল হয়েছে বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়কের চেয়ার। দেশের অন্যতম সফল অধিনায়ক মাশরাফির স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন ওপেনার তামিম ইকবাল খান। মাশরাফির মত একজন দুর্দান্ত কাপ্তানের জায়গা নেওয়া তামিম শুরুতেই দলকে সাফল্য এনে দিবেন এমন আশ্বাস দিচ্ছেন না। তবে সময় দিলে দলকে ভালো কিছু দিতে পারবেন বিশ্বাস তামিমের। তবে সেক্ষেত্রে নির্দিষ্ট সময় পরও সাফল্যের মুখ সেভাবে না দেখলে নিজেই সরে যাবেন বলে জানালেন।

অধিনায়ক মাশরাফির বিকল্প খুব সহজে পাবেনা বাংলাদেশ নিশ্চিতই। তবে সম্ভাব্য সেরা বিকল্প হিসেবে তামিমকেই বেছে নিয়েছে বিসিবি। সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞার ফলে তামিমকে লম্বা সময়ের ভাবনাতেই অধিনায়কত্বের ভার দিয়েছে বোর্ড। লম্বা সময়ের পরিকল্পনায় অধিনায়ক হয়ে খুশি তামিমও তবে বাস্তবতা মেনে সময় চেয়েছেন গণমাধ্যম, দর্শকদের কাছে।

এর আগে মাশরাফির চোটের কারণে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে অধিনায়কত্ব করেন তামিম। ব্যাট হাতে নিজের সাথে দলও হয়েছে পুরোপুরো ব্যর্থ। পরিসংখ্যান ঘাঁটলে বলা যায় অধিনায়কত্বে বেশ অনভিজ্ঞই বাঁহাতি এই ওপেনার। নিজের অনভিজ্ঞতার কথা অবশ্য স্বীকার করেই চেয়েছেন সময়, ‘সত্যি কথা বলতে আমি খুব অভিজ্ঞ একজন অধিনায়ক না। যদি বলেন, আমি অনেক জায়গায় অধিনায়কত্ব করেছি কি না- উত্তর না। আমার ব্যাপারে যেটা সবাইকে বলবো একটু সময় দিতে হবে।’

‘একটা নরমাল কথা যে কেউ অধিনায়কত্ব নিলে আসে যে অধিনায়ক হলে ব্যাটিং পারফরম্যান্স খারাপ হয়ে যায়। আমি নিজেও জানিনা ৬ মাস বা ১ বছর পর আমার ব্যাটিং পারফরম্যান্স কেমন হবে। আপনাদের (সাংবাদিক) একটু ধৈর্য রাখতে হবে, আমাদের দর্শক যারা আছেন তাদেরকেও ধৈর্য রাখতে হবে।’

দলের সেরা সাফল্য অর্জনে নিজের সবটুকুই দিবেন বলে জানান দেশসেরা এই ওপেনার, ‘আমার এটাই কাজ থাকবে, দলের বৃহত্তর স্বার্থে আমার যা যা করার দরকার আমি তাই করার চেষ্টা করবো। আমি সফল হবো কি হবো না সেটা আমি জানি না। আমি চেষ্টা করবো যে সবকিছু সঠিক করার।’

তবে মাশরাফির কাছ থেকে অধিনায়কত্ব পেলেন বলেই চাপটা একটু বেশি তামিমের জন্য। শুরুতেই মাশরাফির মত সাফল্য এনে দেওয়া কঠিন উল্লেখ করে টাইগারদের নয়া ওয়ানোদে কাপ্তান বলেন, ‘যেকোন জিনিস ১ ম্যাচ, ১ সিরিজ, ৫ ম্যাচ দেখে বিচার করাটা কঠিন। আর বিশেষ করে আমি এমন একজনের কাছ থেকে নিচ্ছি (মাশরাফি বিন মর্তুজা) যে সরাসরি ওনার লেভেলে চলে যাওয়া খুবই কঠিন। আমি এটা খুব ভালো করে জানি, উনি এতো বছর ধরে অধিনায়কত্ব করেছেন, ওনার অধীনে আমরা অনেক কিছু অর্জন করেছি। যদি সরাসরি ওনার লেভেলে যেতে পারি তাহলে তো ভালো, আর না যেতে পারলে আমাকে আপনাদের সময় দিতে হবে।’

মাঠের ক্রিকেটের নেতৃত্বে আগ্রাসী তামিমকে দেখা যাবে বলেও দিয়েছেন আভাস, ‘অনফিল্ড অধিনায়কত্বে আমার দর্শন হলো আমি আক্রমণাত্মক থাকবো। সব সময় আমি আক্রমণাত্মক থাকতেই পছন্দ করি। একটা জিনিস কি, পরিস্থিতি বুঝতে হবে, আমাদের সামর্থ্যও বুঝতে হবে। সবকিছু দেখেই আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে আমাকে কোন পথে যেতে হবে। আমি আপাতত এটাই আপনাদের সবাইকে বলতে পারি, আমার এই ক্ষেত্রে একটু ধৈর্য রাখেন।’

অধিনায়কত্বের চাপ নেওয়ার পর নিজের ব্যাটিং ব্যর্থতা ধরা দিলেও অধৈর্য না হওয়ার অনুরোধ তামিমের। তবে দল হিসেবে সাফল্যের দেখা খুব একতা না মিললে নির্দিষ্ট সময় পর নিজেই সরে যাবেন বলে জানা বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান, ‘আমার নিজের ব্যাটিংয়ে এক সিরিজ, দুই সিরিজ, বা ৫ টা ব্যর্থ- এটা হতেই পারে। আশা করি হবে না। অধৈর্য হবো না, আপনারাও হইয়েন না। দর্শকদেরো অনুরোধ করবো আপনারাও হইয়েন না।’

‘আমি এটাই চেষ্টা করবো যেনো তাড়াতাড়ি ঠিক হয়ে যায়। আর যদি কোন কারণে কোন সময়- সেটা ৬ মাস হোক বা ১ বছর, আমার যদি মনে হয় আমি দলের সঙ্গে জাস্টিস করছি না তাহলে আমিই প্রথম জন হবো যে বলবে সরে দাঁড়ানোর কথা।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

কাল থেকে ডিপিএল, করোনা ইস্যুতে বিসিবির যতসব উদ্যোগ

Read Next

অধিনায়ক তামিমের উদাহরণে লিটনের ‘পরিবর্তন’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
12
Share