মিরপুরে ১ম দিনে প্রাপ্তি নাইমের বোলিং

লিটন দাস নাইম হাসান মুশফিকুর রহিম

মিরপুরে সফরকারী জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মাঠে নেমেছে মুমিনুল হকের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ দল। বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে টেস্টের ১ম দিনের খুঁটিনাটি আপডেট এই লাইভ রিপোর্টে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর, ১ম দিন শেষেঃ

জিম্বাবুয়ে ২২৮/৬ (৯০), ম্যাসভাউর ৬৪, কাসুজা ২, আরভিন ১০৭, টেইলর ১০, রাজা ১৮, মারুমা ৭, চাকাভা ৯*, টিরিপানো ০*; রাহি ১৬-৪-৫১-২, নাইম ৩৬-৮-৬৮-৪।

 

View this post on Instagram

 

How good was Nayeem Hasan today? #BANvZIM #Cricket #Bangladesh

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

আরভিনকে ফেরালেন নাইমঃ

আজকের দিনে বাংলাদেশ দলের সেরা বোলার নিঃসন্দেহে নাইম হাসান। লম্বা স্পেলে বল করেছেন, ভুগিয়েছেন ব্যাটসম্যানদের। অন্যদিকে জিম্বাবুয়ের হয়ে ব্যাট হাতে সবাইকে পেছনে ফেলেছেন অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন। দিনের শেষভাগে ৮৯ তম ওভারের ২য় বলে দিনের সেরা বোলারের বিপক্ষে পরাস্ত হলেন দিনের সেরা ব্যাটসম্যান। ২২৭ বলে ১৩ চারে ১০৭ রান করা ক্রেইগ আরভিনকে বোল্ড করেন নাইম। ৬ উইকেটে স্কোরবোর্ডে ২২৮ রান তুলে ১ম দিনের খেলা শেষ করে জিম্বাবুয়ে।

আরভিনের সেঞ্চুরিঃ

এবাদত হোসেনের বলে ২ রান নিয়ে সেঞ্চুরি পূর্ন করেন ক্রেইগ আরভিন। ২১৩ বলে ১৩ চারে তিন অঙ্কে পৌঁছান আরভিন। টেস্ট ক্রিকেটে এটি আরভিনের ৩য় শতক। গতকাল ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে টাইগার দলপতি মুমিনুল হক কথা দিয়েছিলেন ম্যাচে কেউ ১০০/২০০/৩০০ করবেন। জিম্বাবুয়ে দলপতি কথা না দিলেও করলেন সেঞ্চুরি।

রাহির দ্বিতীয় শিকার মারুমাঃ

এযাত্রায় আর পার পেলেন না মারুমা। আবু জায়েদ রাহির দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। ভেতরে ঢোকা বল প্যাডে লাগে মারুমার, অনফিল্ড আম্পায়ার আঙুল তুলে দিলে রিভিউ নেন তিনি। তবে পার পাননি। ৩৫ বল খেলা মারুমা ৭ রান করে ফেরেন।

রিভিউ নিয়ে বাঁচলেন মারুমাঃ

তাইজুল ইসলামের আর্ম বলে শট অফার না করে ছেড়ে দিয়েছিলেন টিমিসেন মারুমা। বল প্যাডে যেয়ে লাগলে আবেদনে সাড়া দেন অনফিল্ড আম্পায়ার। অধিনায়কের পরামর্শ নিয়ে রিভিউ নেন মারুমা। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় বল স্টাম্পে আঘাত করতো না। বেঁচে যান ১ রানে ব্যাট করতে থাকা মারুমা।

নাইমের আরো এক উইকেটঃ

৪০ রানের জুটিতে বাংলাদেশের বোলারদের আবারও পরীক্ষা নেওয়া শুরু করেছিলেন অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন ও সিকান্দার রাজা। দুজনে মিলে ক্রিজে কাটিয়ে দেন ২০.১ ওভার। আবারও বাংলাদেশের ত্রাণকর্তা নাইম হাসান। এবার সিকান্দার রাজাকে ক্যাচে পরিণত করেন লিটন দাসের। চা বিরতির পর বাংলাদেশের প্রথম সাফল্য। ৬২ বলে ৩ চারে ১৮ রান করেন রাজা।

নাইমের সেশনঃ

১ উইকেটে ৮০ রান তুলে লাঞ্চে যাওয়া জিম্বাবুয়ে চা বিরতির আগে হারায় আরও ২ উইকেট। দুটি উইকেটই তুলে নেন অফ স্পিনার নাইম হাসান। লাঞ্চের আগে ৪৫ রান করা ওপেনার প্রিন্স ম্যাসভাউর ফিফটি করে ফেরেন নাইম হাসানের প্রথম শিকার হয়ে। ১৫২ বলে খেলেন ৬৪ রানের ইনিংস। বেশিক্ষণ টিকেননি অভিজ্ঞ ব্রেন্ডন টেইলরও, নাইমের বলে রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে বোল্ড হওয়ার আগে করেন ১০ রান। ম্যাসভাউর-টেইলর ফিরে গেলেও অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন ও সিকান্দার রাজা চা বিরতির আগে ঘটতে দেননি আর কোন বিপদ। দুজনের অবিচ্ছেদ্য ১৬ রানের জুটিতে ৩ উইকেটে ১৫০ রান নিয়ে দ্বিতীয় সেশন শেষ করে জিম্বাবুয়ে। ৬০ রানে আরভিন ও ৭ রানে অপরাজিত আছেন রাজা।

১ম দিন চা বিরতি পর্যন্ত সংক্ষিপ্ত স্কোর-

জিম্বাবুয়ে ১৫০/৩, ম্যাসভাউর ৬৪, কাসুজা ২, আরভিন ৬০*, টেইলর ১০, রাজা ৭*; রাহি ১১-৪-৩২-১, নাইম ২৫-৫-৪৫-২।

নাইমের ২য় শিকার টেইলরঃ

চারে নেমে সাবলীল ভঙ্গিতেই ব্যাট করছিলেন ব্রেন্ডন টেইলর। তবে বেশিক্ষণ স্থায়ী হলেন না ক্রিজে। ১১ বলে ১ চারে ১০ রান করে নাইম হাসানের বলে বোল্ড হন টেইলর। একটু দুর্ভাগাই বলতে হয় টেইলরকে, রিভার্স সুইপ করার চেষ্টায় বলকে স্টাম্পের দিকে টেনে আনেন তিনি।

টাইগার শিবিরে স্বস্তি ফেরালেন নাইমঃ

প্রিন্স ম্যাসভাউর ও ক্রেইগ আরভিনের ২য় উইকেট জুটি ভোগাচ্ছিল বেশ। ১১১ রানের এই জুটি থামিয়েছেন নাইম হাসান। নিজের বলে নিজেই দারুণ এক ক্যাচ নিয়ে নাইম সাজঘরে ফেরান ম্যাসভাউরকে। ১৫২ বলে ৯ চারে ৬৪ রান করেন ম্যাসভাউর। চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমেছেন ব্রেন্ডন টেইলর।

জীবন পেলেন ম্যাসভাউরঃ

শুরু থেকেই দারুণ বল করছেন অফ স্পিনার নাইম হাসান। টার্ন আর বাউন্সে কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে ফেলছিলেন জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যানদের। নিজের করা ১৭ তম ওভারে পেতে পারতেন উইকেটও। প্রিন্স ম্যাসভাউর ক্যাচ দিয়েছিলেন। লিটনের গ্লাভস ছুয়ে যা শান্তর হাতে চেয়ে পড়ে। তবে তা তালুবন্দি করতে ব্যর্থ হন তিনি। নতুন করে জীবন পান ম্যাসভাউর।

ম্যাসভাউরের ফিফটিঃ

৪৫ রানে অপরাজিত থেকে লাঞ্চে যাওয়া জিম্বাবুইয়ান ওপেনার প্রিন্স ম্যাসভাউর লাঞ্চের পর তুলে নেন ফিফটি। ক্যারিয়ারের ৫ম টেস্ট খেলতে নামা ম্যাসভাউরের এটি দ্বিতীয় টেস্ট ফিফটি। ৩৪ তম ওভারের প্রথম বলে আবু জায়েদ রাহিকে সোজা ব্যাটে খেলে হাঁকান বাউন্ডারি, পৌঁছে যান ফিফটিতে। ১০৪ বলে ৮ চারে ফিফটি তুলে নেওয়া বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান ইতোমধ্যে পেছনে ফেলেছেন টেস্টে তার সর্বোচ্চ রানের ইনিংসকেও।

শুরুর অস্বস্তি কাটিয়ে সাবলীল জিম্বাবুয়েঃ

এবাদত হোসেন-আবু জায়েদ রাহির পেস আক্রমণে শুরুটা অস্বস্তিতেই কাটে জিম্বাবুইয়ানদের। দলীয় ৭ রানে আবু জায়েদ রাহির শিকার হয়ে কেভিন কাসুজা ফিরে গেলে বিপদের শঙ্কা জাগে। কিন্তু এরপর অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিনকে নিয়ে ওপেনার প্রিন্স ম্যাসভাউর বেশ ভালোভাবেই সামলে নেন এবাদত-রাহির সাথে স্পিনার নাইম-তাইজুলকেও। প্রথমদিকে নাইমের টার্ন, বাউন্সে অবশ্য ভুগতে হয়েছে ম্যাসভাউর-আরভিনকে।

লাঞ্চ বিরতির আগে আর কোন উইকেট না হারিয়ে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৮০ রান। অবিচ্ছেদ্য তৃতীয় উইকেট জুটিতে ম্যাসভাউর-আরভিন যোগ করেন ৭৩ রান। ৯৪ বলে ৭ চারে ৪৫ রানে ম্যাসভাউর ও ৬২ বলে ৪ চারে ২৬ রানে অপরাজিত আছেন কাপ্তান আরভিন।

৬ ওভারে ৩ মেডেনসহ ৮ রান খরচায় একমাত্র উইকেট শিকারি বোলার আবু জায়েদ রাহি। ৮ ওভারে ১৩ রান খরচায় উইকেট শূন্য আছেন এবাদত হোসেন। নাইম হাসান ১০ ওভারে ২১ রান খরচ করলেও তাইজুল ইসলামকে বেশ সাবলীলভাবেই খেলছেন আরভিন-ম্যাসভাউর। ৬ ওভারেই তাইজুল খরচ করেছেন ৩৩ রান।

জিম্বাবুয়ে শিবিরে রাহির আঘাতঃ

তিন স্লিপ, এক গালি নিয়ে আক্রমণাত্মক ফিল্ডিং সাজিয়ে সকালের উইকেট থেকে সুবিধা নেওয়ার যে পরিকল্পনা এঁটেছিলেন মুমিনুল তা সফল হয়েছে ৮ম ওভারে এসে। আবু জায়েদ রাহি-এবাদত হোসেন অস্বস্তিতে ফেলে দুই ওপেনার প্রিন্স ম্যাসভাউর ও কেভিন কাসুজাকে। ৮ম ওভারের শেষ বলে কাসুজাকে গালিতে দাঁড়ানো নাইম হাসানের ক্যাচে পরিণত করে প্রথম সাফল্য এনে দেন আবু জায়েদ রাহি। দলীয় ৭ রানের মাথায় ব্যক্তিগত ২ রানে ফেরেন কাসুজা। তিন নম্বরে ব্যাট করতে নেমেছেন অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন।

জিম্বাবুয়ের ১ম রান ওয়াইড সূত্রেঃ

এবাদত হোসেন ও আবু জায়েদ রাহি জিম্বাবুয়ের দুই ওপেনারকে আটকে রেখেছিলেন ১ম ৪ ওভার। কোন রান নিতে দেননি তারা। ৫ম ওভারের ২য় বলে ১ম রানের দেখা পায় জিম্বাবুয়ে, সেটিও ওয়াইড সূত্রে। যদিও আর কোন রান এবাদত সেই ওভারে দেননি। ৭ম ওভারের ১ম বলে ব্যাট থেকে প্রথম রান আসে। এবাদত হোসেনের বলে কাভার ড্রাইভে গ্যাপ খুজে পান প্রিন্স ম্যাসভাউর। চার মেরেই রানের খাতা খোলেন ম্যাসভাউর।

বাংলাদেশ একাদশঃ

তামিম ইকবাল, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), মোহাম্মদ মিঠুন, মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ রাহি, এবাদত হোসেন ও নাইম হাসান।

জিম্বাবুয়ে একাদশঃ

প্রিন্স ম্যাসভাউর, কেভিন কাসুজা, ক্রেইগ আরভিন (অধিনায়ক), ব্রেন্ডন টেইলর, টিমিসেন মারুমা, সিকান্দার রাজা, রেজিস চাকাভা (উইকেটরক্ষক), ডোনাল্ড টিরিপানো, ভিক্টর নিয়াউচি, অ্যাইন্সলে লোভু ও চার্লটন শুমা।

টস আপডেটঃ

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জিম্বাবুয়ে দলপতি ক্রেইগ আরভিন। বাংলাদেশের পাকিস্তানের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টের একাদশ থেকে এসেছে দুইটি পরিবর্তন। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বদলে মুশফিকুর রহিম ও রুবেল হোসেনের বদলে নাইম হাসান।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন একুশে পদক পেলেন সাবেক বিসিবি পরিচালক

Read Next

অ্যাগারের হ্যাটট্রিক, ঘরের মাঠে নাস্তানাবুদ দক্ষিণ আফ্রিকা

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
10
Share