কোনমতে ম্যাচ বাঁচিয়ে ফাইনালে সাউথ জোন

শামসুর রহমান শুভ

প্রথম ইনিংসে ১২১ রানে পিছিয়ে থেকেও হুট করে হাতে ৬ উইকেট নিয়ে ইনিংস ঘোষণা করে দেয় বিসবি সাউথ জোন। মূলত প্রতিপক্ষকে বোনাস পয়েন্ট না দিতেই এমন পরিকল্পনা ছিল দলটির, কিন্তু উল্টো নিজেরাই হেরে যাওয়ার উপক্রম। নাজমুল হোসেন শান্তের ক্যারিয়ারে প্রথম ডাবল শতকে ৫০৭ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। জবাবে চতুর্থ দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগে ৯ উইকেটে ৩৮৬ রান তুলে কোনরকম ড্র করে বিসিবি সাউথ জোন।

চার উইকেটে ১৫৯ রান নিয়ে দিন শুরু করা বিসিবি সাউথ জোন লাঞ্চের আগে হারায়নি কোন উইকেট। ৪৪ রানে অপরাজিত থাকা শামসুর লাঞ্চে যান ৮৮ রানে অপরাজিত থেকে, অন্যদিকে ১ রানে অপরাজিত থেকে দিন শুরু করা নাসুম অপরাজিত ছিলেন ২৮ রানে। চা বিরতির আগেই আবার সেঞ্চুরি তুলে নেন শামসুর। শেষ পর্যন্ত মেহেদী হাসান মিরাজের বলে আউট হওয়ার আগে করেন ২৩০ বলে ১৮ চার ১ ছক্কায় ১৩৩ রান।

শামসুর ফিরলে ভাঙে নাসুম আহমেদের সাথে তার ১৩৯ রানের জুটি। শামসুর ফিরে গেলে লড়াইটা অবশ্য একাই চালিয়ে নেন নাসুম আহমেদ। প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে আউট হন ৮ম ব্যাটসম্যান হিসেবে। ২৪৬ বলে ৯ চার ১ ছক্কা খেলেন ৮৫ রানের ইনিংস। শেষদিকে ফরহাদ রেজার অপরাজিত ২৭ রান ছাড়া বলার মত স্কোর করতে পারেনি অন্য কেউ।

হারের শঙ্কা জাগা সাউথ জোন শেষ রক্ষা পায় ফরহাদ রেজার ব্যাটেই। দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগে ৯১ বলে হার এড়ানো ইনিংসটি খেলেন ফরহাদ। তাকে যোগ্য সঙ্গ দিইয়েছেন শেষ ব্যাটসম্যান শফিউল ইসলাম। ২৬ বল ক্রিজে টিকে ম্যাচ বাঁচানোতে শফিউলেরও ছিল ভূমিকা।

ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের হয়ে ৪ উইকেট নেন চোট কাটিয়ে ফেরা মেহেদী হাসান মিরাজ। শুভাগত হোমের শিকার ৩ টি, মুস্তাফিজুর রহমান ও আরাফাত সানি ভাগাভাগি করেন একটি করে উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে ৮৫ রানের ইনিংসের সাথে বল হাতে ম্যাচে ৬ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা নাসুম আহমেদ। এই ম্যাচে ড্র করলেও ৩ ম্যাচে ১৯.৮৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয় অবস্থানে থেকে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে বিসিবি সাউথ জোন।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন প্রথম ইনিংস ২৩৫ ও দ্বিতীয় ইনিংস ৩৮৫/৮ (ডিক্লেয়ার)

বিসিবি সাউথ জোন প্রথম ইনিংস ১১৪/৪ (ডিক্লেয়ার) ও দ্বিতীয় ইনিংস ৩৮৬/৯ (ডিক্লেয়ার), নাফীস ৫, এনামুল ৮৩, ফজলে ২৫, শামসুর ১৩৩, ইরফান ০, নাসুম ৮৫, নুরুল ৮, মেহেদী ৪, ফরহাদ ২৭*, রাজ্জাক ৪, শফিউল ১*; ইরফান ১১-৪-১৬-০, মুস্তাফিজ ২১-৪-৪৮-১, মিরাজ ৫২-১৫-১৩৬-৪, আরাফাত ৩৩-৩-১১৮-১, শুভাগত ২৪-৬-৫৯-৩, সাইফ ৩-১-২-০।

ফলাফলঃ ম্যাচ ড্র

ম্যাচ সেরাঃ নাসুম আহমেদ (বিসিবি সাউথ জোন)।

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

টি-টোয়েন্টি দলে ফিরলেন ফাফ-রাবাদা-নরকিয়া

Read Next

‘এই ম্যাচ খেলেই জাতীয় দলের স্বপ্ন দেখছি না’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
8
Share