শ্বাসরুদ্ধকর জয়ে সিরিজে ফিরলো প্রোটিয়ারা

match report 27
Vinkmag ad
264815
দলের হয়ে সর্বোচ্চ (৪৬) রানের ইনিংস খেলা ডি ভিলিয়ার্সের একটি শট।

স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে পরাজিত হওয়ায় সিরিজে ফিরতে জয়ের বিকল্প ছিলোনা সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার। ৩ রানের শ্বাসরুদ্ধকর এক জয়ে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ জয় নিয়ে সিরিজে নিজেদের আশাটা টিকিয়েই রাখলো ডি ভিলিয়ার্সের দল। 

টাউনটনে সিরিজে এগিয়ে থেকে ইংলিশ কাপ্তান ইয়ান মরগান প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে সফরকারীদের আমন্ত্রণ জানান ব্যাটিংয়ে। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হেন্ড্রিকস দ্রুত ফিরে গেলেও আরেক উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান জন স্মাটসের উইলোটা ঠিকই ঘুরতে থাকে মাঠের এপার থেকে ওপারে। ৪ চার আর ৩ ছক্কায় ৩৫ বলে স্মাটস করেন ঝড়ো ৪৫ রান।

ডেভিড মিলার আর ক্রিস মরিসের ব্যাট কথা না বললেও এদিন হেসেছিল প্রোটিয়া দলনায়ক এবিডি ভিলিয়ার্সের ব্যাট। ইংলিশ পেসার ডেভিড উইলির শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে মাত্র ২০ বলে ৪টি চার আর ৩টি ছক্কায় ভিলিয়ার্সের ব্যাট থেকে আসে ইনিংস সর্বোচ্চ ৪৬ রান। শেষদিকে ফারহান বেহারদিনের ২১ বলে গড়া ৩২ রানে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে সফরকারীদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৮ উইকেটে ১৭৪ রান।

ইংলিশ বোলারদের পক্ষে তিন উইকেট ঝুলিতে পোরেন টম কারান। লিয়াম প্ল্যাংকেটের শিকার দুই উইকেট। ডেভিড উইলি, লিয়াম ডওসন আর ক্রিস জর্দান তুলে নেন একটি করে উইকেট।

264811
ইংলিশ বোলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ তিন উইকেট শিকারী ছিলেন টম কারান।

জবাব দিতে নেমে স্যাম বিলিংসকে দ্রুত হারালেও জেসন রয়ের ব্যাটে দাপটের সাথেই ঘুরে দাঁড়িয়েছিল স্বাগতিকরা। ওয়ান ডাউনে ব্যাট করতে নামা জনি বেয়ারস্টোকে সঙ্গে নিয়ে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ইংলিশ স্কোরকার্ডে জেসন রয় জমা করেন ১১০ রানের বড় জুটি। মাত্র ৪৫ বলে ৯ চার আর এক ছক্কায় রয় ফিরে যান ৬৭ রান করে। বেয়ারস্টোর সংগ্রহ ছিল ৪৭ রান।

কিন্তু এ দুজনের বিদায়ের পর ইনিংসকে এগিয়ে নিতে ব্যর্থ হয় ইংলিশ মিডল অর্ডার। উইকেটরক্ষক জশ বাটলার ১০ আর অধিনায়ক মরগান ফিরে যান মাত্র ৬ রানে। ফেহলুখায়োর করা ইংলিশ ইনিংসের শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল মাত্র ১২ রানের। কিন্তু দুর্দান্ত বোলিংয়ে ফেহলুখায়ো সে ওভারে দেন মাত্র ৮ রান। যার ফলে স্বাগতিকদের হারতে হয় ৩ রানে।

264820
ম্যাচে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেলা (৬৭) জেসন রয়ের চেষ্টা ইংল্যান্ডকে এনে দিতে পারেনি জয়।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ দুই উইকেট শিকার করেন ক্রিস মরিস। এছাড়া প্যাটারসন আর ফেহলুখায়ো নেন সমান এক উইকেট করে। ম্যাচের অমন পরিস্থিতিতে মাত্র ১৮ রান দিয়ে ২ উইকেট শিকার করা ক্রিস মরিসকেই ম্যাচ সেরার পুরষ্কারে পুরষ্কৃত করা হয়।

সিরিজের তিন ম্যাচের প্রথমটিতে স্বাগতিক ইংল্যান্ড এবং দ্বিতীয়টিতে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার জয় পাওয়ায় কার্ডিফের তৃতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি হয়ে দাঁড়িয়েছে অঘোষিত ফাইনাল। এর আগে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের স্বাগতিকদের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ খুইয়েছিল সফরকারীরা। রোববার মাঠে গড়াবে দুই দলের মধ্যকার শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি।

264821
দুর্দান্ত বোলিং নৈপুণ্যে দলকে জয় এনে দেয়া ক্রিস মরিসই পেয়েছেন ম্যাচ সেরার পুরষ্কার।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ডঃ

দক্ষিণ আফ্রিকাঃ ১৭৪/৮ (২০ ওভার) ডি ভিলিয়ার্স ৪৬, জন স্মাটস ৪৫, বেহারদিন ৩২, মসেলে ১৫, ক্রিস মরিস ১২, ডেভিড মিলার ৮। টম কারান ৩/৩৩, লিয়াম প্ল্যাংকেট ২/৩৬, ডেভিড উইলি ১/২৯

ইংল্যান্ডঃ ১৭১/৬ (২০ ওভার) জেসন রয় ৬৭, বেয়ারস্টো ৪৭, লিভিংস্টোন ১৬, বাটলার ১০, মরগান ৬। ক্রিস মরিস ২/১৮, প্যাটারসন ১/৩২, ফেহলুখায়ো ১/৩৪

ফলাফলঃ দক্ষিণ আফ্রিকা ৩ রানে জয়ী।

ম্যান অফ দ্যা ম্যাচঃ ক্রিস মরিস (দক্ষিণ আফ্রিকা)

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

কিউইদের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে রাভাল, গ্র্যান্ডহোম আর ব্রুম

Read Next

বৃষ্টির বাঁধায় পরিত্যক্ত ভারত-উইন্ডিজ প্রথম ওয়ানডে

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share