আরেকটু ব্যাটিং করতে চেয়েছিলেন তামিম

তামিম ইকবাল
Vinkmag ad

২২২ রান নিয়ে দিন শুরু করা তামিম আজ তুলে নেন ট্রিপল সেঞ্চুরি। রেকর্ড গড়া ৩৩৪ রানের ইনিংসে শেষ দিকে ছিলেন বেশ আক্রমণাত্মক। ৪০৭ বলে ট্রিপল ছোঁয়া তামিম শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ৪২৬ বলে ৩৩৪ রানে। শেষ ১৯ বলে সমান ৩ চার-ছক্কায় করেন ৩৪ রান।

সোহরাওয়ার্দী শুভ’র করা ১৪০ তম ওভারে হাঁকান দুই ছক্কা, কিন্তু পঞ্চম বল শেষেই ইনিংস ঘোষণা করে দল। শেষ বল খেলতে না পারার আক্ষেপ ছিল তামিমের তবে দলের প্রয়োজনে ইনিংস ঘোষণার সিদ্ধান্তকে সঠিক বলছেন জাতীয় দলের ওপেনার।

তামিমের ট্রিপলের সাথে অধিনায়ক মুমিনুলের সেঞ্চুরি, ইয়াসির আলি রাব্বির অপরাজিত ফিফটি ইসলামী ব্যাংকের সংগ্রহ ২ উইকেট হারিয়ে ৫৫৫! তামিমের ব্যক্তিগত রান ৩৩৪ হওয়ার পর সোহরাওয়ার্দী শুভ’র করা ওভার শেষ হওয়া পর্যন্তও অপেক্ষা করেনি ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোন। ইনিংস ঘোষণা প্রসঙ্গে তামিম বলেন, ‘হ্যা, আমি চিন্তা করছিলাম কি যে আর এক বল ছিল। তো আমি মারারই চেষ্টা করছিলাম ঐ মুহূর্তে। যদি আমি মেরে দিতে পারতাম (ছক্কা) তাহলে আমি ১০ রান দূরে থাকতাম ৩৫০ থেকে।’

‘আপনি ৩০০ করেন, ৪০০ করেন যদি দিন শেষে দল না জেতে তাহলে সেটা ম্যাটার করে না। আমার কাছে মনে হয় আমরা সঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছি (ডিক্লেয়ার)। ৩ উইকেটও ওদের পড়ে গিয়েছে, এখনো এটা ভালো উইকেট। ওদের শেষ ৭ উইকেট তুলে নিতে কাল আমাদের খুব কষ্ট করতে হবে।’

ঘরোয়া ক্রিকেটে হলেও নিজের ইনিংসটিকে বিশেষ তকমা দিচ্ছেন বাঁহাতি এই ওপেনার, ‘এটা স্পেশাল ইনিংস। ৩০০ রান করা সেটা যে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধেই হোক, যে লেভেলেই হোক খুব কঠিন। এটা যদি সহজ হতো তাহলে প্রতি মাসে আপনারা দেখতেন যে কেউ একজন ৩০০ করতেছে। এটা খুবই স্পেশাল, এটা নিশ্চিতভাবেই আমার হৃদয়ের বিশেষ জায়গাতে থাকবে। অবশ্যই এটা স্পেশাল ফিলিং। সত্যি কথা বলতে আমি কখনো চিন্তা করিনি যে আমি ট্রিপল হান্ড্রেড করবো। স্বপ্ন সবারই থাকে, তবে এই ম্যাচেই হয়ে যাবে ভাবিনি।’

কিংবদন্তী ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রে একটা কথা প্রচলন আছে তারা রান বা উইকেট সংখ্যা দিয়ে নিজের সন্তুষ্টির ঢেঁকুর তোলেননা। বরং নিজে মাঠে যেভাবে যা করতে চেয়েছেন তা ঠিকঠাক করতে পেরেছেন কিনা সেতা বিবেচনায় মূল্যায়ন করেন নিজেকে। আজ তামিম ইকবালও জানালেন নিজের তৃপ্তি জায়গা সম্পর্কে, ‘আমার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হলো যেভাবে আমি ব্যাট করেছি। আমি কত রান করেছি এটা না সবচেয়ে বেশি আনন্দের ছিল যে আমি কিভাবে ব্যাট করেছি। খুশি, কিন্তু আমি আশা করবো এই ফর্ম আমি ধরে রাখতে পারবো।’

‘আমার কাছে মনে হয় আমি খুব ডিটারমাইন্ড ছিলাম। উইকেট খুব ভালো ছিল, উইকেট স্পিনিং ছিল না বা ভিন্ন কিছু আচরণ করছিল না। আমার কাছে মনে হয়েছে আমি বিষয়টা খুব সাধারণ রাখতে পেরেছি। ৩০০ রান করার পরেই আমি কিছু সুযোগ নিয়েছি। পুরা ইনিংসেই আমার কাছে মনে হয়নি আমাকে স্পেশাল কিছু করতে হবে। আমি ব্যাটিং করে গিয়েছি, ক্রিকেটিং শট খেলে গিয়েছি। আর সবসময় চেষ্টা করছিলাম- ছক্কা হাঁকানোর চেষ্টা না করে বাউন্ডারি অপশনের দিকে চেয়েছিলাম আমি।’

ব্যক্তিগত রান ২৬০-৭০ হওয়ার পরও ট্রিপল নিয়ে ভাবেননি উল্লেখ করে তামিম বলেন, ‘যখন আমার ২৬০-৭০ হয়ে গেছে সত্যি কথা বলতে তখনো এটা নিয়ে ভাবছিলাম না। ২৮০ যখন হলো তখন এটা নিয়ে চিন্তা করা শুরু করেছি। আমার কাছে মনে হচ্ছিল আমি এটা নিয়ে যদি বেশি চিন্তা করি তাহলে যে প্ল্যান নিয়ে আমি ব্যাটিং করছি তাতে বিঘ্ন ঘটবে বা অন্যভাবে খেলার চেষ্টা করবো। তো আমি খেলাটাকে খুব সাধারণ রাখার চেষ্টা করেছি আর সেটাই আমার পক্ষে এসেছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

রকিবুলকেই বরং স্লেজিং করেছেন বন্ধু তামিম!

Read Next

জার্সি খুলে ভুড়ি দেখিয়ে বিপাকে উমর আকমল

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Total
14
Share