ফজলে রাব্বির সেঞ্চুরির পর শফিউলের তোপে বিপাকে নর্থ জোন

ফজলে রাব্বি মাহমুদ শফিউল ইসলাম
Vinkmag ad

সাগরপাড়ের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বিসিএলের উদ্বোধনী দিন পেসারদের রাজত্ব দেখেছে। তাসকিন আহমেদ, সুমন খান, এবাদত হোসেন, আরিফুল হকদের তোপে ফজলে রাব্বির সেঞ্চুরির পরও ২৬২ রানে অল আউট সাউথ জোন। জবাবে শফিউল ইসলামের পেস আগুনে পুড়ে ছারখার নর্থ জোনের টপ অর্ডার। ৪৫ রান তুলতেই নেই ৫ উইকেট, যার সবকটি শিকার শফিউলের।

নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে সাউথ জোনের মত প্রথম বলেই উইকেট হারায় নর্থ জোন। তবে সাউথ জোন শুরু ধাক্কা সামলে নিলেও নর্থ জোন শফিউলের করা প্রথম ওভারে হারায় আরোও তিন উইকেট। ৪ রান খরচায় ৪ উইকেট তুলে নিয়ে ধসিয়ে দেন নর্থ জোনের টপ অর্ডারকে। প্রথম বলে লিটন দাসকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন। দ্বিতীয় বল থেকে জুনায়েদ সিদ্দিকী নেন ২ রান, তৃতীয় বলেই বোল্ড হন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান।

চতুর্থ বলে মিজানুর রহমানকে (০) বোল্ড করলে জাগে হ্যাটট্রিক সম্ভাবনা। পঞ্চম বলে নাইম ইসলাম নেন দুই রান। কিন্তু ওভারের শেষ বলে তার পরিণতিও হয় একই। বোল্ড হয়ে ফিরলে ৪ রান তুলতেই প্রথম ওভারের ৪ উইকেট হারায় দল। এরপর বিপর্যয় কাটানোর চেষ্টা করেন রনি তালুকদার ও সানজামুল ইসলাম। দুজনে মিলে যোগ করেন ৪২ রান। কিন্তু শফিউলের পঞ্চম শিকার হয়ে সানজামুলও (১৬) বোল্ড হলে ভাঙে জুটি। তানবীর হায়দারকে নিয়ে অবশ্য দিনের শেষ দুই ওভারে কোন বিপদ ছাড়াই কাটায় রনি তালুকদার। ২৬ রানে রনি ও শূন্য রানে অপরাজিত আছেন তানবীর।

এর আগে টস জিতে ফিল্ডিং নেন বিসিবি নর্থ জোন অধিনায়ক নাইম ইসলাম। দিনের প্রথম বলেই দলকে সাফল্য এনে দেন তাসকিন আহমেদ। কোন রান না করেই উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন শাহরীয়ার নাফীস। দলীয় ৩০ রানে এবাদত হোসেনের বলে বোল্ড এনামুল হক বিজয়ও (১০)। ফজলে রাব্বিকে নিয়ে দলের বিপর্যয় কাটানোর চেষ্টা করা শামসুর রহমানকে (২৭) ফিরিয়ে প্রথম সেশনতা নিজেদের করে নেন তাসকিন।

লাঞ্চের আগে তিন উইকেট হারিয়ে ৮৪ রান তোলা সাউথ জোন লাঞ্চের পরে সেশন নিজেদের করার দিকেই ছুটছিল। কিন্তু আরিফুলের বলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৩১ রান করে আউট হলে ভাঙে ফজলে রাব্বির সাথে ৭১ রানের জুটি। আল আমিন জুনিয়রকেও ২ রানে বেশি করতে দেননি আরিফুল। ১৪৯ রান তুলতে ৫ উইকেট হারানো সাউথ জোনকে একাই টেনে নেন ফজলে রাব্বি। ৮২ বলে ফিফটিতে পৌঁছানো ফজলে ১৩৯ বলে তুলে নেন প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে ৯ম সেঞ্চুরি।

তানবীর হায়দারের শিকার হয়ে ফেরার আগে ১৬৪ বলে ১৭ চার ৩ ছক্কায় করেন ১২৫ রান। তার বিদায়ের পর অবশ্য বেশি দূর যেতে পারেনি সাউথ জোন। অলআউট হয় ২৬২ রানে, শেষদিকে নুরুল হাসানের ব্যাট থেকে আসে ২৬ রান। আব্দুর রাজ্জাক ১৭ ও শফিউল ইসলাম করেন ১৬ রান। নর্থ জোনের হয়ে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন সুমন খান, দুটি করে শিকার তাসকিন, এবাদত ও আরিফুল হকের। একটি উইকেট নেন তানবীর হায়দার।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ প্রথম দিন শেষে

সাউথ জোন প্রথম ইনিংসঃ ২৬২/১০ (৬৭.৪ ওভার), শাহরীয়ার নাফীস ০, এনামুল হক ১০, ফজলে রাব্বি ১২৫, শামসুর রহমান ২৭, মাহমুদউল্লাহ ৩১, আল আমিন জুনিয়র ২, নুরুল হাসান ২৬, আব্দুর রাজ্জাক ১৭, কামরুল ইসলাম ১, শফিউল ইসলাম ১৬; আল আমিন ০* , তাসকিন, ৩৩/২ , এবাদত ৫১/২, সুমন ৬৭/৩, সানজামুল ৪২/০, আরিফুল ৩০/২, নাইম ৫/০, তানবীর ৩১/১

নর্থ জোন প্রথম ইনিংসঃ ৪৬/৫ (১২), লিটন ০, রনি ২৬*, জুনায়েদ ২, মিজানুর ০, নাইম ২, সানজামুল ১৬, তানবীর ০*, শফিউল ৩০/৫, আল আমিন ১৬/০, কামরুল ১/০ ।

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

বাংলাদেশকে ফাইনালে দেখছেন অ্যালান উইলকিন্স

Read Next

আরো এক সুপার ওভার, নিউজিল্যান্ডের আরো এক পরাজয়

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
11
Share