দক্ষিণ আফ্রিকার দুর্বলতা আগেই জানতো রাকিবুলরা

রাকিবুল হাসান হ্যাটট্রিক

যুব ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম ২৫ ম্যাচে উইকেট মাত্র ২৬ টি, অথচ চলতি যুব বিশ্বকাপে বল হাতে ৩ ইনিংসেই পকেটে পুরেছেন ১০ উইকেট। বাংলাদেশ যুব দলের বাঁহাতি অর্থোডক্স রাকিবুল হাসানের কথাই বলা হচ্ছে। গতকাল তার স্পিন ঘূর্ণিতে নাকাল হয়েই ঘরের মাঠে কোয়ার্টার ফাইনালে ১০৪ রানের বড় ব্যবধানে হারে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। বাংলাদেশ উঠে যায় দ্বিতীয় বারের মত যুব বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে।

চলতি বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের ম্যাচেই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক তুলে নেন রাকিবুল। সেমিফাইনালের টিকিট কাটতে কোয়ার্টার ফাইনালে বিদায় করতে হবে স্বাগতিকদেরই এমন ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের এনে দেওয়া ২৬১ রানের পুঁজি বেশ বড় করে তোলেন বোলাররা। বিশেষ করে রাকিবুলের ১৯ রান খরচায় ৫ উইকেটে দিশেহারা প্রোটিয়া শিবির, গুটিয়ে যায় মাত্র ১৫৭ রানে।

ম্যাচ সেরা রাকিবুল হাসান সংবাদ সম্মেলনে জানান আগে থেকেই জানতেন দক্ষিণ আফ্রিকা স্পিনে দুর্বল ফলে পরিকল্পনা সাজিয়েছেন সেভাবেই। বোলারদের পাশাপাশি ব্যাটসম্যানদেরও দিয়েছেন কৃতিত্ব। বোলিংয়ে অনুসরণ করেন সাকিব আল হাসানকে।

দক্ষিণ আফ্রিকাকে উড়িয়ে দেওয়ার পেছনে রহস্য জানতে চাইলে বাঁহাতি এই স্পিনার বলেন, ‘ম্যাচটিকে আমরা স্বাভাবিক হিসেবেই নিয়েছি। বিশ্বকাপে আসার আগে আমরা বেশ কয়েকটি ভালো সিরিজ শেষ করেছি। ড্রেসিংরুমে আমাদের পরিকল্পনা সাজানো হয়েছে, নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেছি কৌশল নিয়ে। আর মাঠে সেটা ঠিকঠাক প্রয়োগ করতে পেরেছি বলেই ভালো করেছি।’

রাকিবুল হাসান জেপি ডুমিনির কাছ থেকে ম্যাচসেরার পুরষ্কার নিচ্ছেন।
Photo: ICC

আফগানিস্তানের স্পিনারদের কাছে নাকানি চুবানি খেয়ে উদ্বোধনী ম্যাচে বড় ব্যবধানে হারে দক্ষিণ আফ্রিকান যুবারা। অন্য ম্যাচ গুলোতেও স্বাগতিকদের স্পিন দুর্বলতা ছিল স্পষ্ট। কোয়ার্টার ফাইনালের আগে তাই স্পিন আক্রমণকেই প্রাধান্য দেয় বাংলাদেশ। ম্যাচে দুই পেসারের বিপরীতে বল করিয়েছে ৪ স্পিনার দিয়ে। সাফল্যতো ফলাফলেই স্পষ্ট।

স্পিন দিয়ে ব্রাইস পারসনের দলকে ঘায়েল করার পরিকল্পনা সম্পর্কে রাকিবুল বলেন, ‘গ্রুপ পর্বে আফগানিস্তান ও অন্যান্য দলের বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিন দুর্বলতা আমাদের চোখে পড়ে। তারা স্পিনে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেনা দেখেই আমরা আজ অতিরিক্ত স্পিনার খেলিয়েছি। আমাদের পরিকল্পনা কাজে লেগেছে, স্পিনাররা দুর্দান্ত করেছে।’

তানজিদ হাসান তামিম, তৌহিদ হৃদয় ও শাহদাত হোসেনের তিন ফিফটিতে ভর করে ২৬১ রানের সংগ্রহ পায় টাইগার যুবারা। ব্যাটসম্যানদের কৃতিত্ব দিতে ভুলেননি বাঁহাতি এই স্পিনার, ‘আমাদের ব্যাটসম্যানরা তাদের কাজটা দারুণভাবে করেছে। তারা বেশ ভালো রান স্কোরবোর্ডে যোগ করে। যা আমাদের ম্যাচ জয়ের কাজটা সহজ করে দিয়েছে।’

ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত বাংলাদেশ ফিল্ডিংয়েও ছিল অসাধারণ, লুফে নিয়েছে দুর্দান্ত কিছু ক্যাচ। ম্যাচ জিততে ভালো ফিল্ডিংয়ের বিকল্প নেই উল্লেখ করে রাকিবুল জানান, ‘ম্যাচ জিততে হলে আপনাকে অবশ্যই ভালো ফিল্ডিং করতে হবে। কারণ ব্যাটিং-বোলিং খেলার অংশ। কিছু হাফ চান্সের ক্যাচ, দুটো রান আউট আপনার প্রতিপক্ষের সাথে পার্থক্য গড়ে দিতে পারে। আমরা সেটা পেরেছি, ফিল্ডিং ভালো হয়েছে, বোলিংও। ব্যাটিং ছিল দুর্দান্ত ফলে ম্যাচটা জিতেছি।’

নিজের আদর্শ কে জানতে চাইলে বাঁহাতি এই স্পিনার বলেন, ‘আমার সেভাবে কোন আদর্শ নেই তবে সাকিব আল হাসানকে বেশ অনুসরণ করি। তিনি বাংলাদেশের কিংবদন্তী বোলার। তার মত ব্যাটসম্যান ও উইকেট পড়ার চেষ্টা করি। এছাড়া কঠোর পরিশ্রমতো আছেই। গত এক বছর অনেক খেটেছি।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

বিশ্বকাপে অলরাউন্ড পারফরম্যান্স শো করতে চান রুমানা

Read Next

পিএসএলে নতুন ভূমিকায় হাশিম আমলা

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
22
Share