৩১ জানুয়ারি থেকে বিসিএল, ফাইনাল গোলাপি বলে

বিসিএল
Vinkmag ad

আজ হঠাৎ ঘোষণা এসেছে ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক বড় দৈর্ঘ্যের টুর্নামেন্ট বিসিএলের। যেটা শুরু হতে চলেছে চলতি মাসের ৩১ তারিখ থেকে।

আজ গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, ‘বিসিএল (বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ) আমরা ৩১ জানুয়ারি থেকে শুরু করবো ইন শা আল্লাহ।’

এবারে ফ্র্যাঞ্চাইজি থাকছে কেবল দুইটি। ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন ও ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোন। এর আগে সাউথ জোনের প্রাইম ব্যাংক পৃষ্ঠপোষক থাকলেও এবার থাকছে না প্রাইম ব্যাংক। নতুন কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি না পেলে নর্থ জোনের মত সাউথ জোনের দায়িত্বও নেবে বিসিবি।

নতুন পৃষ্ঠপোষোক নেওয়া প্রসঙ্গে খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি কিন্তু সময় তো খুবই অল্প। নাহলে বিসিবিকে দায়িত্ব দিতে হবে।’

প্রিমিয়ার লিগের আগে কেনো বিসিএল এমন প্রশ্নের উত্তরে সুজন বলেন, ‘এটা সব বিষয়ের উপরে চিন্তা করে করা। যেহেতু পাকিস্তান সফরটা আমাদের একটু ঝামেলা হলো যে ৩ ভাগে আমরা পাকিস্তান যাচ্ছি। তো টেস্ট ম্যাচের আগে তো আমাদের কোনো প্রস্তুতি নেই, আমরা মাত্রই টি-টোয়েন্টি খেললাম (বিপিএল) আবার যদি ৫০ ওভারের ম্যাচ খেলি তাহলে টেস্টের জন্য আমাদের তো প্রস্তুতিটা হচ্ছে না।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের দুই টেস্ট ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এক টেস্টের আগে প্রস্তুতির অংশ হবে এই বিসিএল।

‘এখন আমাদের টেস্ট ম্যাচ খেলতে হবে, তো আমরা মনে করি বাংলাদেশের জন্য টেস্ট ম্যাচে ভালো করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তো পাকিস্তানের সাথে ২টি টেস্ট ম্যাচের মাঝে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি টেস্ট ম্যাচ আছে। তো আমরা বিশ্বাস করি যে ছেলেরা যদি এই ফরম্যাটটা খেলতে পারে। আর সময়েরও একটা ব্যাপার আছে তো সবকিছু চিন্তা করেই আমিরা বিসিএলটা জুতসই হবে এই সময়টায় খেলার জন্য। তো পাকিস্তানে শুরুর টেস্ট ম্যাচটা খেলতে যাওয়ার আগে আমরা চাই যে ছেলেরা অন্তত একটা ম্যাচ খেলার সুযোগ পাক। তাহলে টেস্ট ম্যাচের আগে ভালো একটা প্রস্তুতি হবে।’

এদিকে স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের পক্ষে উদয় হাকিম জানান বিসিএলের ফাইনালটা গোলাপি বলে খেলানোর জন্য আলোচনা হয়েছে। এছাড়া অন্তত ফাইনালটা টিভিতে দেখানোর জন্য বলেছেন তারা। যেহেতু এখান থেকে খুব বেশি লাভের মুখ দেখেনা প্রতিষ্ঠানটি।

উদয় হাকিম বলেন, ‘বিসিএল থেকে আমাদের (ওয়ালটন) প্রাপ্তির জায়গা বেশ কম। বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নতির জন্য আমরা এই টুর্নামেন্টটি খেলে থাকি। খেলাটা যদি টিভিতে লাইভ দেখাতো তাহলে এর একটা ফিডব্যাক আমরা পেতাম। তো সেই দাবি আমরা আজকেও তুলেছি। আরেকটা প্রস্তাব এসেছে যে, গোলাপি বলে খেলাটা হতে পারে কিনা, মানে দিবা রাত্রির ম্যাচ। এটার ব্যাপারে ক্রিকেটারদের জিজ্ঞেস করবে বিসিবি। যদি ওদের কোনো আপত্তি না থাকে তাহলে হয়তো দিবা রাত্রির ম্যাচ হতে পারে, গোলাপি বলে হতে পারে ফাইনালটা।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বাংলাদেশ ফেভারিট কিনা বলতে পারবেন না মাহমুদউল্লাহ

Read Next

একই দিনে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের দুই খেলা

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Total
13
Share