আফিফদের রেকর্ডে ভাগ বসালেন ইয়াং

আফিফ হোসেন ধ্রুব নেইম ইয়াং
Vinkmag ad

চলতি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ৮ম ম্যাচে গতকাল (২০ জানুয়ারি) ইংল্যান্ডকে বৃষ্টি আইনে ৭১ রানে হারায় ক্যারিবিয়ান যুবারা। ফলে টানা দুই জয়ে টেবিলের শীর্ষস্থানে অবস্থান তাদের। দুই ম্যাচেই জয়ের অন্যতম নায়ক নেইম ইয়াং। আগের ম্যাচে দলের বিপর্যয়ে ব্যাট হাতে ৬১ রান করে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দলকে জেতান ৩ উইকেটে, বল হাতেও নেন একটি উইকেট।

তবে গতকাল (২০ জানুয়ারি) ইংল্যান্ডকে হারানো ম্যাচে ব্যাটে-বলে এমন পারফরম্যান্সই করেছেন ইয়াং যা তাঁকে জায়গা করে দিয়েছে রেকর্ড বইয়ে। যে রেকর্ডে নাম আছে বাংলাদেশের তরুণ অলরাউন্ডার আফিফ হোসেন ধ্রুবরও।

টস হেরে ব্যাট করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭ উইকেটে তোলে ২৬৭ রান। শেষদিকে ৪১ বলে ৬৬ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন ইয়াং। বৃষ্টি বাঁধার পর ইংল্যান্ডের জন্য লক্ষ্য দাঁড়ায় ৪৩.৪ ওভারে ২৫৬!

এবার বল হাতে ইয়াংয়ের তোপের শিকার ইংলিশ যুবারা। ৩ উইকেটে ১২০ রান তোলা ইংলিশ যুবাদের টানা ৫ জনকে ফিরিয়ে পরিণত করেন ৮ উইকেটে ১৫১ রানে। নির্ধারিত ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ইংলিশরা তুলতে পারে ১৮৯ রান। ব্যাট হাতে ফিফটির পর বল হাতেও ৯ ওভারে ৪৫ রান খরচায় ৫ উইকেট।

ম্যাচে ফিফটি ও ৫ উইকেট নেওয়া যুব বিশ্বকাপের ইতিহাসে মাত্র চতুর্থতম ঘটনা এটি। নেইম ইয়াংয়ের আগে এই তালিকায় নাম লিখিয়েছেন শ্রীলঙ্কার জীবন মেন্ডিস, দক্ষিণ আফ্রিকার ওয়াইন পারনেল ও বাংলাদেশের আফিফ হোসেন ধ্রুব।

১৯৯৮ সাল থেকে শুরু হওয়া যুব বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথম এমন নজিরের দেখা মেলে লঙ্কান লেগ স্পিনার জীবন মেন্ডিসের হাত ধরে। ২০০২ সালের ২৪ জানুয়ারি নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৬৩ রানে জয়ী ম্যাচে লঙ্কানদের হয়ে ৯৮ বলে ৫৭ রানের ইনিংসের পাশাপাশি বল হাতে ৯.২ ওভারে ২ মেডেনসহ ১৯ রান খরচায় তুলে নেন ৭ উইকেট, জিম্বাবুয়ে অল আউট মাত্র ১৪৩ রানে। এরপরের নজিরে অবশ্য জড়িয়ে আছে বাংলাদেশের নাম।

২০০৮ সালে কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশি যুবাদের লজ্জায় ডুবিয়ে রেকর্ডে নাম লেখান দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার ওয়াইন পারনেল। ব্যাট হাতে তার ৫৭ রানে ভর করে দক্ষিণ আফ্রিকা পায় ২৪২ রানের পুঁজি। জবাবে তার পেস আগুনে পুড়ে মাত্র ৪১ রানেই গুটিয়ে যায় মোহাম্মদ মিঠুন, নাসির হোসেন, সোহরাওয়ার্দী শুভদের বাংলাদেশ দল। ৫ ওভারে মাত্র ৮ রান খরচায় ৬ উইকেট তুলে নেন পারনেল। বাংলাদেশ ম্যাচ হারে ২০১ রানের বিশাল ব্যবধানে।

যুব বিশ্বকাপে ম্যাচে ৫ উইকেট ও ফিফটি তুলে নেওয়া তৃতীয় ক্রিকেটার অবশ্য বাংলাদেশের আফিফ হোসেন ধ্রুব। জাতীয় দলের এই তরুণ তুর্কি ২০১৮ সালের ১৫ জানুয়ারি নিউজিল্যান্ডের লিংকনে কানাডাকে ৬৬ রানে হারানো ম্যাচে গড়েন এই কীর্তি। আগে ব্যাট করা বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ দল তৌহিদ হৃদয়ের সেঞ্চুরির সাথে আফিফের ফিফটিতে পায় ৮ উইকেটে ২৬৪ রানের পুঁজি। জবাবে আফিফের স্পিন ঘূর্ণিতে নাকাল কানাডা ব্যাটসম্যানরা অল আউট হয় ১৯৮ রানে। ১০ ওভারে ৪৩ রান খরচায় ৫ উইকেট নেন আফিফ।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মারনাস লাবুশেইন : লেজুড় থেকে আস্থা

Read Next

পন্টিংদের কোচ শচীন, ওয়ার্নদের কোচ ওয়ালশ

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
11
Share