পরিবর্তনে মত নেই মুশফিকের

featured photo1 29
Vinkmag ad

ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণ বলা হয় টেস্ট ক্রিকেটকে। প্রায় ১৫০ বছর ধরে ক্রিকেট ঐতিহ্যের বাহক হয়ে আছে টেস্ট ক্রিকেট। তরুণ ক্রিকেটারদের টেস্ট খেলার স্বপ্ন শুরু ক্রিকেটের হাতেখড়ির পরই। তবে ক্রিকেটের বানিজ্যিকীকরণ শুরু হতেই টেস্ট সংখ্যা কমার পাশাপাশি এসেছে কিছু মূল ঘরানায় পরিবর্তনও। অবশ্য টেস্ট ক্রিকেটে অনীহা আসা দর্শকদের জন্যও চেষ্টার কমতি রাখেনি আইসিসি। কিন্তু সম্প্রতি পাঁচদিনের টেস্টকে চারদিনে নিয়ে আসার পরিকল্পনা বেশ নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে ক্রিকেটারদের মধ্যে।

চারদিনের টেস্টের পক্ষে ভোট দেননি রিকি পন্টিং, শচীন টেন্ডুলকার, মাহেলা জয়াবর্ধনে, হাশিম আমলা, ইয়ান বোথামের মত সাবেকরা। বর্তমান ক্রিকেটারদের প্রায় সবারই মত চার নয় পাঁচদিনের ক্রিকেটের পক্ষেই। টিম পেইন, ভিরাট কোহলি, ক্রিস গেইলের পর বাংলাদেশের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমও জানালেন চারদিনের টেস্টতো প্রশ্নই ওঠেনা!

রাজশাহী রয়্যালসের বিপক্ষে ফাইনাল হেরে শিরোপা বঞ্চিত হওয়া খুলনা টাইগার্স অধিনায়ক মুশফিক চারদিনের টেস্ট প্রসঙ্গে বলেন, ‘চারদিনে হওয়ার তো প্রশ্নই ওঠে না। অন্যান্য যারা পাঁচদিনের খেলার কথা বলেছে আমিও সেটার সাথে একমত। এটা আমার কাছে মনে হয় যে অনেক বড় ধর্ম ক্রিকেট। টেস্ট ক্রিকেট হচ্ছে সবচেয়ে লম্বা একটি ফরম্যাট যেটা পাঁচ দিন খেলা হয়। আমি চাইলে তো ছয়দিন সাতদিন ইচ্ছে মতো খেলতে পারি টেস্ট, টু বি অনেস্ট। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় যে এটা শুরুই হয়েছে ওখান থেকে আর পরিবর্তন করা উচিত না।’

টেস্টের পঞ্চম দিন শেষ বিকেলে রোমাঞ্চ ছড়িয়ে ম্যাচের ফল নির্ধারণ হওয়ার নজির কম নেই। পাঁচ দিনের টেস্ট চারদিনে নেমে এলে এমন দৃশ্য হরহামেশা দেখা যাবেনা বলে মনে করেন উইকেট রক্ষক এই ব্যাটসম্যান, ‘আপনি যদি খেয়াল করেন শেষ বেশ কয়েকটি ম্যাচে কিন্তু পাঁচ দিনে গিয়ে ফলাফল হয়েছে। পরে কয়েকটির ফলাফল হয়েছে। তো এটা চারদিনে হলে তো ফলাফল আসবে না। সুতরাং আমাদের খেলার ধরণগুলো একটু ভিন্ন হতে পারে তবে আমার কাছে মনে হয় টেস্ট ক্রিকেট সবসময় পাঁচদিনেই হওয়া উচিত।’

এদিকে উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে বাংলাদেশের টেস্ট ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফি। গত অক্টোবরে ক্রিকেটারদের ১১ দফা (পরে যা ১৩ দফা) আন্দোলনের মূল দাবির মধ্যে পারিশ্রমিকও ছিল বেশ ভালোভাবে। তবে কি আন্দোলনের ফলই বলা যায় ম্যাচ ফি বৃদ্ধিকে? এমন প্রশ্নে মজার ছলে উত্তর দিলেও বিষয়টিকে দেশের ক্রিকেটের জন্যই ভালো বললেন মুশফিকুর রহিম। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান বলেন, ‘আন্দোলন কি এই মুহূর্তে হয়েছিল নাকি। আন্দোলন কবেই শেষ হয়ে গেছে (হাসি)। এটা অবশ্যই ভালো সাইন। শুধু দেশীয় ক্রিকেটার হিসেবে না, সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে আমার মনে হয়, বাংলাদেশের ক্রিকেটের অনেক বড় একটা স্টেজ, যেখানে আমাদের বাংলাদেশকে কেউ ঊর্ধ্বমুখী করবে।’

বিপিএল খেলে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার পাশাপাশি টেস্টেও পারিশ্রমিক বৃদ্ধি ক্রিকেটারদের আগ্রহ বাড়াবে উল্লেখ করে মুশফিক যোগ করেন, ‘আমার মনে হয় তারা তখন নিজেদের সেভাবে তৈরি করবে, ভাববে টেস্ট ক্রিকেট খেলেও আমরা সেরকম পারিশ্রমিক পাবো। মর্যাদা তো এরমতো আর কোনোটায় নেই। তাদের যদি ছোটোখাটো ইচ্ছেটা জাগে, টাকা পয়সার জন্যে না। ইচ্ছে যদি জাগে, বাংলাদেশের পক্ষে ১০০ টা টেস্ট খেলব। বাংলাদেশের পক্ষে ৫-১০ হাজার রান করব, বাংলাদেশের পক্ষে ৩০০ উইকেট নেব- তো এই ইচ্ছেগুলো অনেকাংশে কমে যাচ্ছিল। এদিক থেকে হলেও তাদের মানসিকতার পরিবর্তন হবে। এটা অবশ্যই একটা ভালো সাইন।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

বাংলাদেশ দলে বিকল্প হতে এক ঘন্টাও লাগে না!

Read Next

যেকারণে বঙ্গবন্ধু বিপিএলে টুর্নামেন্ট সেরা আন্দ্রে রাসেল

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
4
Share