চার নয়, পাঁচ দিনের পক্ষে গেইল

ক্রিস গেইল
Vinkmag ad

ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণ বলা হয় টেস্ট ক্রিকেটকে।  প্রায় ১৫০ বছর ধরে ক্রিকেট ঐতিহ্যের বাহক হয়ে আছে টেস্ট ক্রিকেট। তরুণ ক্রিকেটারদের টেস্ট খেলার স্বপ্ন শুরু ক্রিকেটের হাতেখড়ির পরই। তবে ক্রিকেটের বানিজ্যিকীকরণ শুরু হতেই টেস্ট সংখ্যা কমার পাশাপাশি এসেছে কিছু মূল ঘরানায় পরিবর্তনও। অবশ্য টেস্ট ক্রিকেটে অনীহা আসা দর্শকদের জন্যও চেষ্টার কমতি রাখেনি আইসিসি। কিন্তু সম্প্রতি পাঁচদিনের টেস্টকে চারদিনে নিয়ে আসার পরিকল্পনা বেশ নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে ক্রিকেটারদের মধ্যে।

ভিরাট কোহলিসহ প্রায় সব ক্রিকেটারই বলছেন চারদিনের টেস্টকে তারা ভালোভাবে নিচ্ছেন না। অস্ট্রেলিয়া টেস্ট দলের বর্তমান কাপ্তান টিম পেইনতো শুরু থেকেই চারদিনের টেস্টের বিপক্ষে। শচীন টেন্ডুলকার, মাহেলা জয়াবর্ধনে, হাশিম আমলারাও জানিয়েছেন তারা আছেন পাঁচদিনের টেস্টের পক্ষেই।

মূলত চারদিনের টেস্টের পরিকল্পনা আসে দিন সংখ্যা কমানোয় বের হওয়া অতিরিক্ত ফাঁকা সময়ে আরও বেশি একদিনের ম্যাচ ও টি-টোয়েন্টি আয়োজনের সুযোগ বাড়াতে।

বিরক্ত ভারতীয় কাপ্তান ভিরাট কোহলিতো বলেই ফেলেছেন, ‘আপনি ৪ দিনের টেস্টের কথা বলছেন, এরপর বলবেন ৩ দিনের টেস্টের কথা। ধীরে ধীরে টেস্ট ক্রিকেটই নেই হয়ে যাবে। আমি ৪ দিনের টেস্টকে একদমই সমর্থন করিনা।’

এবার বিপিএল খেলতে আসা ক্রিস গেইলও জানালেন চারদিনের টেস্টের পক্ষে নন তিনি। ধুমধাড়াক্কা ক্রিকেটের বড় বিজ্ঞাপন ক্যারিবিয়ান এই ব্যাটিং দানব তবে টেস্ট ক্রিকেটেও তার দৌড় কম ছিলনা। খেলেছেন ১০৩ টি টেস্ট, রান করেছেন ৭ হাজারের বেশি। আছে ১৫ টেস্ট সেঞ্চুরি যার একটিকে ডাবল ও দুটোকে ট্রিপল সেঞ্চুরিতে রূপ দেন।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে বিপিএল খেলতে আসা গেইল আজ (৯ জানুয়ারি) মিরপুর একাডেমি মাঠে চারদিনের টেস্ট নিয়ে জানান নিজের মতামত।

চারদিনের টেস্টকে পছন্দ করছেন না উল্লেখ করে ক্যারিবিয়ান বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান বলেন,  ‘সত্যি বলতে আমি আসলে এটির (চার দিনের টেস্ট) ফ্যান না। আমি একশ’র বেশি টেস্ট খেলেছি। কিছু ম্যাচ ছিল যা তিন দিনেই শেষ হয়েছে, কিছু চার দিনে। কিন্তু পাঁচ দিনের টেস্টই হলো সত্যিকারের টেস্ট। চার দিনের টেস্টের কথা যদি বলেন, আমি এর ভক্ত না। পাঁচ দিনের টেস্ট একটি ধারার তৈরি করেছে, যা কিনা বহুবছর ধরে খেলা হয়ে আসছে। সুতরাং আমি বুঝতে পারছি না এটাকে কেন নষ্ট করতে চাইছে! অন্যদেরও পাঁচ দিনের টেস্ট খেলার সুযোগ দিন। পাঁচ দিনের টেস্ট খেলা অনেকটা জীবন বদলে যাওয়ার মত অভিজ্ঞতা।’

এদিকে বাংলাদেশের পাকিস্তানে টেস্ট খেলতে যাওয়ার ক্ষেত্রেও গেইল দিচ্ছেন সবুজ সংকেত। অবশ্য সেক্ষত্রে উত্তর দিয়েছেন ভিন্নভাবে, নিজের মতামত নয় পাকিস্তানের দেওয়া আশ্বাসেই বিশ্বাস বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানের। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘তারা (পাকিস্তান) বলছে পাকিস্তান এই মুহূর্তে অন্যতম নিরাপদ জায়গা। তারা প্রেসিডেন্ট পর্যায়ের নিরাপত্তা প্রদান করবে বলেও বলছে। সুতরাং বাকিটা বাংলাদেশের হাতে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

যে কারণে পিএসএল নিলামে নাম দিয়েছিলেন তামিম-মাহমুদউল্লাহরা

Read Next

‘আমলাকে সাইড বেঞ্চে ভালো দেখায় না’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
4
Share