বিপিএলের ব্যাটিংবান্ধব উইকেট যেকারণে শফিউলের কাছে আশীর্বাদ

শফিউল ইসলাম ক্যামেরুন দেলপোর্ত
Vinkmag ad

চলতি বিপিএলে উইকেট নিয়ে সমালোচনা যেন হাওয়ায় মিলিয়েছে উল্টো প্রশংসা ঝরছে ক্রিকেটার, বিশ্লেষক, ভক্ত-সমর্থকদের কন্ঠেও। বিপিএলে ঢাকার উইকেট বরাবরই হতাশ করেছে কিন্তু এবার শুরু থেকেই পাওয়া যাচ্ছে স্পোর্টিং উইকেট। আর চট্টগ্রাম পর্বতো ছিল ব্যাটিং স্বর্গই। বোলারদের করার কিছু থাকেনা এমন উইকেট পেয়ে। অভিযোগ নেই, বরং নিজেদের জন্য ভালো বলছেন খুলনা টাইগার্স পেসার শফিউল ইসলাম।

টুর্নামেন্টে ৭ ম্যাচে ৫ জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের তিন নম্বরে আছে খুলনা। ব্যাটে বলে পারফরম্যান্স করছে দলটির দেশি ক্রিকেটাররা, বিদেশিরাও আছেন ছন্দে, দিচ্ছেন ভালো সমর্থন। সিলেট পর্বের আগে আর কোন ম্যাচ না থাকা খুলনা টাইগার্স আজ (৩০ ডিসেম্বর) মিরপুরে নিজেদের অনুশীলনে নেয় ঝালিয়ে।

অনুশীলন শেষে দলটির পেসার শফিউল ইসলাম বলেন দল হিসেবে ভালো করতে হলে অবশ্যই দেশি ক্রিকেটারদেরই পালন করতে হবে মূল ভূমিকা। আর সেটাই তার দল করে যাচ্ছে, ‘আমরা পাচটি ম্যাচ জিতেছি। এর মধ্যে চারটিতেই ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছে লোকাল প্লেয়াররা। আমাদের বেস্ট পারফর্মাররা লোকাল। লোকাল প্লেয়াররা যে দলের হয়ে ভালো করবে ফলাফল তাদের দিকে আসার সম্ভাবনা বেশি থাকবে।’

‘টিমে লোকাল প্লেয়ারই বেশি। আমি মনে করি বিদেশি প্লেয়াররা আমাদের সাপোর্ট দেবে। আমরা যদি মনে করি বিদেশিদের আমরা সাপোর্ট দিব, তাহলে টিমের রেজাল্ট হওয়ার চান্স কম। প্লেয়াররা একদিন না একদিন পারফর্ম করছে ব্যাটিংয়ে হোক, বোলিংয়ে হোক। এরকম আমরা লোকাল প্লেয়াররা যদি ভালো করতে পারি দলের জন্য ভালো হবে।’

দলের হয়ে ৭ ম্যাচেই মাঠে নেমেছেন ডানহাতি এই পেসার, ৮.৫০ ইকোনোমিতে নিয়েছেন ৬ উইকেট। রান বন্যার চলতি বিপিএলে পেসারদের আসলে করারও কিছু নেই। কিন্তু এমন কঠিন উইকেটে ভালো করতে পারাটাকেই ইতিবাচক হিসেবে নিচ্ছেন খুলনা টাইগার্সের এই পেসার। আন্তর্জাতিক ম্যাচের জন্য নিজেদের প্রস্তুতের জন্য এমন উইকেটকে আশীর্বাদ হিসেবেই নিচ্ছেন শফিউল।

এ প্রসঙ্গে ৩০ বছর বয়সী এই পেসার বলেন, ‘সব জায়গাতেই চ্যালেঞ্জিং থাকে। চট্টগ্রামের উইকেটটা ভালো ছিল। এই রকম উইকেটে খেলতে পারলে আমাদের পেস বোলারদের জন্য ভালো। সবার জন্যই ভালো। ব্যাটসম্যানদের জন্যও ভালো পেস বোলারদের জন্যও ভালো। আমরা যখন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যাবো উইকেট এই ধরনেরই হয়। এই ধরণের উইকেটে খেলা হলে আমাদের জন্য ভালো হয়। কিভাবে নিজেকে ব্যাক করবো কিভাবে বল করতে হবে এটা ঠিক করা যায়।’

‘অনেক চ্যালেঞ্জিং। আমার কাছে মনে হয়েছে চ্যালেঞ্জিং। উইকেট অনেক ভালো ছিল। বোলিং একটু এদিক ওদিক হলে রান বেশি হয়ে যায়। এই ধরণের উইকেটে খেলা হলে আমাদের পেসারদের জন্য ভালো, ব্যাটসম্যানদের জন্যও ভালো।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

বঙ্গবন্ধু বিপিএল খেলতে আসছেন আরো ‘৩’ পাকিস্তানি

Read Next

চারদিনের টেস্ট ম্যাচে বাধ্যবাধকতা আনতে চায় আইসিসি

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
7
Share