একাদশে না থেকেও দলের হয়ে লড়তে হল আরাফাত সানিকে!

আরাফাত সানি
Vinkmag ad

টানা ৪ হারের পর অধিনায়ক বদলে প্রথম জয়, পরের ম্যাচে একাদশেই নেই একমাত্র জয় এনে দেওয়া অধিনায়ক। ম্যাচের আগেরদিন উড়ে এসেই অধিনায়কত্বের গুরু দায়িত্ব শেন ওয়াটসনের কাঁধে। তবে ভাগ্য বদলায়নি রংপুর রেঞ্জার্সের, খুলনার কাছে হেরেছে ৫২ রানে। সবশেষ তিন ম্যাচে তিন অধিনায়ক, টানা ব্যর্থতা। এরপর সংবাদ সম্মেলনেও এলেন একাদশে না থাকা স্পিনার আরাফাত সানি।

সবমিলিয়ে কেমন যেন খাপছাড়া একটি দল রংপুর রেঞ্জার্স। টুর্নামেন্টের শুরু থেকেও অবশ্য বিতর্কের কালি গায়ে মেখে আছে দলটি। তবে মাঠের ক্রিকেটে বাজে সময় নানাভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করছে দলটিকে। না খেলেও তাই সংবাদ সম্মেলনে ব্যর্থতার জবাবদিহিতা করতে হয়েছে বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানিকে।

ওয়াটসন এলেন, ব্যাট হাতে হলেন ব্যর্থ। তার অধীনে প্রথম ম্যাচে দলও হারলো। আসলে তার আসাতে দলের প্রত্যাশাটা কেমন ছিল জানালেন সানি, ‘প্রত্যাশা অনেক ভালো ছিল। সবচেয়ে বড় কথা টি-টোয়েন্টি টিম গেম। টিম হয়ে আমরা ভালো খেলতে পারছিনা।’

দল হিসেবে খেলতে না পারা ব্যর্থতার মূল কারণ উল্লেখ করে আরও যোগ করেন, ‘টি-টোয়েন্টি হচ্ছে শর্টার ভার্সন গেম, মোমেন্টামটা আমরা আসলে ধরতে পারছিনা। হয়তো কোনদিন ব্যাটিং কোনদিন বোলিংয়ে ঘাটতি থেকেই যাচ্ছে। ক্রিকেটাররা আসলে সর্বোচ্চ দিয়ে চেষ্টা করছে। দল হিসেবে খেলতে পারছিনা বলে সমস্যা হচ্ছে।’

টুর্নামেন্টের ৬ ম্যাচে তিন অধিনায়ক, দলের পারফরম্যান্সে এটি প্রভাব ফেলছে কিনা জানতে চাইলে বাঁহাতি এই স্পিনার বলেন, ‘আসলে এটা টিম ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার। একজন খেলোয়াড় হিসেবে আমরা যে অধিনায়কের অধীনেই খেলি আমাদের কিন্তু সেরা চেষ্টাটাই করতে হয়। সুতরাং এটা ম্যাটার করেনা। ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার। আমাদের কাজ খেলা, আমরাতো খেলবোই ক্যাপ্টেন যেই হোক না কেন।’

‘ম্যানেজমেন্ট কাকে অধিনায়ক করবে সেটা তারা বলতে পারবে। আমার মনে হয়না খেলোয়াড় হিসেবে এটা প্রভাবিত করে। কারণ আমরা দিনশেষে ক্রিকেটারই, যার যার জায়গা থেকে সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করি আমরা দলকে জেতানোর জন্য।’

পাঁচ ম্যাচে মাত্র এক জয় পাওয়া দলের নেতৃত্ব নিয়েছেন তাও ভিন্ন পরিবেশের অচেনা ক্রিকেটারদের সামলানোর কাজ। ব্যাপারটি কঠিন হলেও আরাফাত সানি বলছেন টিম মিটিংয়ে ওয়াটসনের দর্শনে মুগ্ধ তিনি, ‘টিম মিটিং যখন হচ্ছিল, পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে সত্যি বলতে তার কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। দল জেতার জন্য যা যা দরকার, যেসব কথা বললে মোটিভেট হওয়া যায় তেমন কিছুই বলেছে।’

‘ব্যক্তিগতভাবে আমি অনেক বেটার ফিল করছি, ওর কথা গুলো। ক্রিকেট যে কীভাবে সহজে খেলা যায়। একটা সময় ওরা যে ডোমিনেট করছে বিশ্ব ক্রিকেট। এমনি এমনি করেনি, ওদের কথা বার্তা বডি ল্যাঙ্গুয়েজ অন্যরকম। একটা কথাই বুঝিয়েছে উইকেট যেমনই থাকুক সেসব মাথায় না রেখে সেরাটা চেষ্টা করতে হবে। তারপর বাকিটা দেখা যাবে, ইতিবাচক থাকতে হবে।’

এদিকে সানিকে দিতে হয়েছে আরও কঠিন প্রশ্নের উত্তরও। সংবাদ সম্মেলনে একাদশের কাউকে না পাঠিয়ে সানিকে পাঠানোর মাধ্যমে আরেকটু অপেশাদারিত্ব দেখালো কিনা রংপুর রেঞ্জার্স। উপস্থিত সাংবাদিকের করা প্রশ্নের জবাবে সানি বলেন, ‘হারলে মোরালি একটু ডাউন থাকে। আমি ম্যাচ খেলিনি বলে সিচুয়েশনটা ওদের থেকে বেশি জাজ করতে পারছি, কি ঠিক হয়েছে আর কি হচ্ছেনা।’

‘অনফিল্ড থেকে দেখা একরকম অফফিল্ড দেখা আরেক রমম। হয়তো ওরা যে ভুলটা করছে আমি বলতে পারবো কোন কোন জায়গায় ঘাটতি ছিল আমাদের, কোন জায়গাটায় আমাদের ম্যাচ বের হয়ে গেছে এজন্যই আমার আসা। আমার কাছে মনে হয়না দায়িত্ব নিতে চাওয়াতে কারও সমস্যা আছে। আসেনি, আমিওতো টিম মেম্বার, এমন কোন নিয়ম নাই যে প্লেয়িং মেম্বারই আসতে হবে এখানে।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

শহিদুলের দাপুটে বোলিং, খুলনার বড় জয়

Read Next

পেস বোলিং অলরাউন্ডার হওয়ার চেষ্টায় শহিদুল

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
18
Share