সাফল্য পেতে ঢাকা প্লাটুনের স্থানীয় ক্রিকেটারেই ভরসা

ঢাকা প্লাটুন

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে তামিম ইকবাল, মাশরাফি বিন মর্তুজা, এনামুল হক বিজয়, মেহেদী হাসানের মত দেশি ক্রিকেটারদের পাশাপাশি বিদেশী কোটায় ঢাকা প্লাটুন দলে নিয়েছে শহীদ আফ্রিদি, থিসারা পেরেরা, ওয়াহাব রিয়াজদের। দল হিসেবে বেশ ভালোই বলতে হয়, বিশেষ করে দেশিদের মধ্যে ওপেনার তামিম ও সফল অধিনায়ক মাশরাফি যোগ করেছে বাড়তি মাত্রা। তবে দলটির কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বলছেন নির্দিষ্ট দুই একজন ক্রিকেটার নয় সাফল্য পেতে চান দলীয় প্রচেষ্টায়।

আনুষ্ঠানিকভাবে বিপিএলের অনুশীলন শুরু হচ্ছে আরও কয়েকদিন পর। তবে নিজ উদ্যোগে একাডেমি মাঠে অনুশীলনে দেখা মিলল তামিম ইকবাল, মুমিনুল হকদের। নিজে উপস্থিত থেকে সেটি আবার দেখভাল করেছেন ঢাকা প্লাটুন কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। অনুশীলন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে দেশের অন্যতম এই কোচ জানিয়েছেন বিপিএলে স্থানীয় ক্রিকেটারদের ভূমিকাকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন।

এ প্রসঙ্গে সালাউদ্দিন বলেন, ‘আপনি যদি পুরো টুর্নামেন্ট খেয়াল করেন দেখবেন একা কোন খেলোয়াড় ডমিনেট করেনি। এটা একটা দলীয় খেলা, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল, লোকাল প্লেয়াররা কেমন খেলছে তার উপর আপনার টিমের সাফল্য নির্ভর করছে। আপনি যতই ফরেইন প্লেয়ার নিয়ে আসেন বাইরে থেকে ওরা মাত্র চারজন খেলবে। তার বাইরে সাতটা প্লেয়ারের রোলটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাদেরকে যদি আপনারা ঠিকমত ব্যবহার না করেন আপনি ব্যর্থ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।’

‘আমার মনে হয় লোকাল প্লেয়াররা যদি ভালো করে , যে সাতজন খেলবে তাদের কিন্তু ভালো করতেই হবে। টি-টোয়েন্টিতে আপনি যদি দুইটা ওভার মার খেয়ে যান তাহলে সেই ম্যাচে কিন্তু আপনি আর ফিরতে পারবেন না। সে কারণে প্রত্যেকটা প্লেয়ারের গুরুত্বটা বেশি, প্রতিতি পজিশনে প্রতিটি প্লেয়ারের একেকটা রোল থাকে, আমার কাছে মনে হয় তারা সেটা ঠিকভাবে পালন করতে পারলেই ভালো কিছু হবে।’

এদিকে বিপিএলের সেরা কোচদের একজন সালাউদ্দিন নিজে, ৬ আসরের দুটি শিরোপা এসেছে তার হাত ধরে। প্রথম শিরোপা জয়ে অধিনায়ক ছিল মাশরাফি, দ্বিতীয়টিতে অধিনায়ক না হলেও দলে ছিলেন তামিম। শিরোপা জয়ী এই দুই ক্রিকেটার এবার একই দলে, যাদের কোচ আবার মোহাম্মদ সালাউদ্দিনই। এদিকে সিলেট থান্ডার ও ঢাকা প্লাটুন ছাড়া অন্যান্য দলগুলো নিয়োগ দিয়েছে বিদেশি কোচ।

এমন পরিস্থিতিতে প্রত্যাশা আর চ্যালেঞ্জ কেমন অনুভব করছেন সালাউদ্দিন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দেখুন টুর্নামেন্টে হল সাতটি দল খেলবে। এদের কেউ যদি চিন্তা করে আমি চ্যাম্পিয়ন হব না সেটা বোকামি হবে। সাতটা দলই একটা লক্ষ্যে যাবে। কেউ শুধু অংশ নিয়ে আসেনি সবাই চ্যাম্পিয়ন হতে আসছে। আর যদি লোকাল কোচ হিসেবে বলেন তাহলে আমি বলবো আমার দায়িত্ব কিছুটা বেড়েছে।’

‘কারণ অন্য সব দলেই হয়তো বিদেশি কোচ আসছে, যেহেতু আমি একাই (যদিও সারোয়ার ইমরান আছেন সিলেটে) লোকাল কোচ আমি যদি ভালো করি তাহলে অন্য লোকাল কোচ যারা আছে তাদের জন্যও সুযোগ আসবে। আর এ কারণে আমার ভালো করাটা খুব বেশি জরুরি। চ্যালেঞ্জ তো আপনার প্রতিটি টিমেই থাকে, চ্যালেঞ্জ ছাড়া আপনি বাঁচতে পারবেন না।’

ঢাকা প্লাটুনঃ

দেশি- তামিম ইকবাল, এনামুল হক বিজয়, হাসান মাহমুদ, মেহেদী হাসান, আরিফুল হক, মুমিনুল হক, শুভাগত হোম, মাশরাফি বিন মর্তুজা, রাকিবুল হাসান, জাকের আলি অনিক।

বিদেশি- থিসারা পেরেরা, লরি ইভান্স,ওয়াহাব রিয়াজ, আসিফ আলি,লুইস রিস, শহীদ আফ্রিদি।

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

কর্নওয়ালের রেকর্ড গড়া ‘১০’ উইকেট, হারের পথে আফগানরা

Read Next

‘অ্যান্ডি রবার্টস নাসিম শাহের বাবা নয়!’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
13
Share