‘প্রাপ্য সম্মানটুকু পাইনা, গেইল সবচেয়ে বাজে খেলোয়াড়’

গেইল

নিঃসন্দেহে বলা যায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পড়ন্ত বেলাতেই আছেন ক্রিস্টোফার হেনরি গেইল। আগের মত নিয়মিতই বোলারদের কচুকাটা করা হয়তো সম্ভব হয়না তবে নিজের দিনে এখনোও গুড়িয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন প্রতিপক্ষকে। সাম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকার এমজানসি সুপার লিগ টি-টোয়েন্টি তে জজি স্টার্সের হয়ে খেলেন, ব্যাট হাতে নিয়মিতই হয়েছেন ব্যর্থ। শেষ ম্যাচে ফিফটি পেলেও দলের বাকীদের যাচ্ছেতাই পারফরম্যান্সে হেরেছে দল।

টুর্নামেন্টে কোন ম্যাচ না জেতায় ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জজি স্টার্সকে বিদায় নিতে হয় গ্রুপ পর্ব থেকেই। বিদায়ি ম্যাচ শেষে ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং দানব খ্যাত গেইল সংবাদ সম্মেলনে ঝাড়েন ক্ষোভ। প্রাপ্য সম্মানটুকু পান না বলে অকপটেই তুলেছেন অভিযোগ। এমজানসি সুপার লিগের এবারের আসরে গেইল যেন নিজের ছায়া হয়েই ছিলেন, ৬ ম্যাচে ১৬.৮৩ গড়ে রান সাকুল্যে ১০১, শেষ ম্যাচে ৫৪ রানের ইনিংসটি নাহলে পরিসংখ্যান আরও হতশ্রী হতো।

শেষ ম্যাচে নিজের ২৭ বলে ৫৪ রানের পরও ১৫৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে পারেনি জজি স্টার্স। বিদায়ী ম্যাচে অন্তত স্বান্তনার জয়টুকুও পাওয়া যায়নি বাকি ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায়। দলের সমালোচনা করে গেইল বলেন, ‘এটা দেখতে খুবই খারাপ। সবাই এটা দেখে আহত হয়েছে । ব্যক্তিগতভাবে আমিও খুব কষ্ট পেয়েছি, মনেপ্রাণে চাচ্ছিলাম জয়টা যেন আসে। আমি ভেবেছি এটা হবে শেষ পর্যন্ত তাও হয়নি।’

‘এটা চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মত দল নয়। এটা ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের যেভাবে খেলতে হয় সেভাবে খেলার মত দল নয়। বেশিরভাগ সময় ক্রিকেটারদের মধ্যে অনিশ্চিয়তা কাজ করেছে আমি আসলে ঠিক জানিনা এটা মাঠের বাইরের কোন সমস্যা কিনা। আমি বুঝতে পারছিলাম না কি ঘটছিল।’

২০ বছর ধরে খেলছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, শেষ একযুগ ধরে ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্টের বিজ্ঞাপনই হয়ে আছেন ক্যারিবিয়ান এই ওপেনার। খেলেছেন বিশ্বের প্রায় সব ফ্র্যাঞ্চাইজি, টি-টোয়েন্টিতে ২২ সেঞ্চুরি নিয়ে আছেন সবার উপরে। যেখানে যৌথভাবে দুইয়ে থাকা মাইকেল ক্লিঙ্গার ও ডেভিড ওয়ার্নারের সেঞ্চুরি সংখ্যা মাত্র ৮ টি। অথচ দুই-তিন ম্যাচ খারাপ করলেই গেইলের সমালোচনায় মাতম থাকে টিম ম্যানেজমেন্ট, সতীর্থরা ভাবে বোঝা।

এ প্রসঙ্গে গেইল বলেন, ‘আমি দুই-তিনটা ম্যাচে পারফর্ম করতে না পারলেই হল, গেইল দলের বোঝা হয়ে যায়। আমি শুধু এই দলটির (জজি স্টার্স) কথাই বলছিনা। কয়েকবছর ধরে ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ খেলে আসছি বলে এটা অনুধাবন করতে পারছি। ক্রিস গেইল সবসময়ই বোঝা যদি সে দুই, তিন বা চার ম্যাচ রান করতে না পারে। এটা দেখাচ্ছে যে একজনই দলের বোঝা এবং সমালোচনাতো শুনতেই হয়। আমি সম্মানটুকু পাইনা, মানুষ মনে রাখেনা তাদের জন্য আপনি কি করেছেন। আমি সম্মান পাইনা।’

সবশেষ ম্যাচ দিয়েই টি-টোয়েন্টিতে ৪০০ ম্যাচ খেলার মাইলফলক স্পর্শ করেন। খারাপ খেললে গেইল বাজে খেলোয়াড় হয়ে যায় উল্লেখ করে তিনি আরও যোগ করেন, ‘আমি স্বাভাবিকভাবেই নিচ্ছি। খেলোয়াড়, ম্যানেজমেন্ট, প্রধান ম্যানেজমেন্ট, বোর্ড সদস্য, কারও কাছ থেকেই গেইল সম্মান পায়না। একবার ক্রিস গেইল ব্যর্থতো তার ক্যারিয়ারই শেষ, সে ভালোনা। সে খুব বাজে খেলোয়াড় এবং আরও যা কিছু আছে। এসব পাশ কাটিয়েই আমি চলছি, এসবই আমি আশা করি এবং এসব নিয়েই আমি বেঁচে আছি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ড্রাফটের বাইরে থেকে সিমন্সকে দলে ভেড়ালো চট্টগ্রাম

Read Next

ইয়াসিরের ‘সেভেন ফিঙ্গারড স্যালুট’ এর জবাবে যা বললেন স্মিথ

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
4
Share