শেষমেশ ইংল্যান্ডকে ইনিংস ব্যবধানেই হারাল নিউজিল্যান্ড

নিউজিল্যান্ড টেস্ট

ররি বার্নস, জো ডেনলি, বেন স্টোকসের ফিফটিতে প্রথম ইনিংসে অলআউট হবার আগে স্কোরবোর্ডে ৩৫৩ রান জমা করেছিল ইংল্যান্ড। ১ম ইনিংসে শুরুটা ভাল হয়নি স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের। ১২৭ রান তুলতেই নেই ৪ উইকেট, সাজঘরে ফিরেছেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনও। এরপরেও ব্র্যাডলি জন ওয়াটলিংয়ের রেকর্ড গড়া ইনিংসে ২৬২ রানের লিড নিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। যা দ্বিতীয় ইনিংসে করতে পারেনি ইংল্যান্ড, হেরেছে ইনিংস ও ৬৫ রানে।

মূলত ওয়াটলিংয়ের ইনিংসের (২০৫) পরেই নিউজিল্যান্ড যে এই টেস্ট জিততে চলেছে তা স্পষ্ট হয়েছিল। ইংল্যান্ডের সামনে সুযোগ ছিল কোনমতে ক্রিজে টিকে থেকে ম্যাচটা ড্র করার। তবে নেইল ওয়াগনার ও মিচেল স্যান্টনারের বোলিংয়ে তেমনটা হয়নি।

শেষদিনে ১৯৭ রানেই শেষ হয়েছে ইংল্যান্ডের ২য় ইনিংস। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৫ রান এসেছে জো ডেনলির ব্যাট থেকে। স্বাগতিকদের পক্ষে ওয়াগনার ৫ ও স্যান্টনার ৩ উইকেট নেন। ১ টি করে উইকেট পান টিম সাউদি ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস ৩৫৩/১০ (১২৪), বার্নস ৫২, সিবলি ২২, ডেনলি ৭৪, রুট ২, স্টোকস ৯১, পোপ ২৯, বাটলার ৪৩, কারেন ০, আর্চার ৪, লিচ ১৮*, ব্রড ১; বোল্ট ৯৭/১, সাউদি ৮৮/৪, গ্র্যান্ডহোম ৪১/২, ওয়াগনার ৯০/৩।

নিউজিল্যান্ড ১ম ইনিংস ২০১ ওভারে ৬১৫/৯ (ইনিংস ঘোষণা), রাভাল ১৯, লাথাম ৮, উইলিয়ামসন ৫১, টেইলর ২৫, নিকোলস ৪১, ওয়াটলিং ২০৫, গ্র্যান্ডহোম ৬৫, স্যান্টনার ১২৬, সাউদি ৯, ওয়াগনার ১১*, বোল্ট ১*; আর্চার ১০৭/১, কারেন ১১৯/৩, লিচ ১৫৩/২, স্টোকস ৭৪/২, রুট ৬৭/১।

ইংল্যান্ড ২য় ইনিংস ১৯৭/১০ (৯৬.২), বার্ন্স ৩১, সিবলি ১২, ডেনলি ৩৫, লিচ ০, রুট ১১, স্টোকস ২৮, পোপ ৬, বাটলার ০, কারেন ২৯*, আর্চার ৩০, ব্রড ০; সাউদি ৬০/১, গ্র্যান্ডহোম ১৫/১, স্যান্টনার ৫৩/৩, ওয়াগনার ৪৪/৫।

ফলাফলঃ নিউজিল্যান্ড ইনিংস ও ৬৫ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরাঃ ব্র্যাডলি জন ওয়াটলিং (নিউজিল্যান্ড)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

খুলনা টাইগার্সের কোচ হলেন সাবেক ইংলিশ ব্যাটসম্যান

Read Next

কোন জ্ঞান না থাকা কার্লসেন বোকার মতো দাঁড়িয়ে ছিলেন!

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
5
Share