ওয়ার্নারের পর লাবুশানের কাছে ইনিংস হারের শঙ্কায় পাকিস্তান

MURNAS

ব্রিসবেন টেস্টের তৃতীয় দিনশেষে ইনিংস হারের শঙ্কায় পাকিস্তান। ডেভিড ওয়ার্নারের ১৫৪ রানের পর মারনাস লাবুশানের ১৮৫ রানে ৫৮০ রানের পাহাড়সম সংগ্রহ দাঁড় করায় অজিরা। ৩৪০ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা অজিরা ৩ উইকেট হারিয়ে ২৭৬ রানে পিছিয়ে থেকে শেষ করে দ্বিতীয় দিন।

৯০ রানের অবিচ্ছেদ্য জুটিতে দ্বিতীয়দিন শেষ করা ওয়ার্নার-লাবুশানে যোগ করেন আরও ৩৯ রান। ১৫১ রানে অপরাজিত থেকে দিনশুরু করা ওয়ার্নার অবশ্য যোগ করতে পারেননি তিন রানের বেশি। অভিষিক্ত নাসিম শাহের একমাত্র শিকার হয়ে ওয়ার্নার ফিরলে ভাঙে জুটি। ওয়ার্নারের পর দ্রুতই ফেরেন স্টিভ স্মিথও (৪)। এরপর ম্যাথ্য ওয়েডকে নিয়ে ১১০ রানের জুটি গড়েন লাবুশানে।

৯৭ বলে ৭ চার ১ ছক্কায় ৬০ রান করে হারিস সোহেলের শিকার হয়ে ফেরেন ম্যাথু ওয়েড। ততক্ষণে ১৬১ বলে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির দেখা পেয়ে যান লাবুশানে। প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন ডাবল সেঞ্চুরির দিকেই, দলীয় ৫৪৬ রানের মাথায় ৭ম ব্যাটসম্যান হিসেবে শাহেন শাহ আফ্রিদির বলে বাবর আজমকে ক্যাচ দিয়ে ফিরলে তা আর হয়নি।

আউট হওয়ার আগে ২৭৯ বলে ২০ চারে করেন ১৮৫ রান। শেষদিকে ট্রেভিস হেড করতে পারেন ২৪ রান। এছাড়া টিম পেইন ও নাথান লায়নের ব্যাট থেকে আসে সমান ১৩ রান। অল আউট হওয়ার আগে অস্ট্রেলিয়া থামে ৫৮০ রানে। ২০৫ রান খরচায় ৪ উইকেট নিয়ে পাকিস্তানের সেরা বোলার লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহ। দুটি করে উইকেট নেন শাহেন শাহ আফ্রিদি ও হারিস সোহেল। একটি করে শিকার নাসিম শাহ ও ইমরান খানের।

৩৪০ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেই বিপাকে পাকিস্তান। মিচেল স্টার্ক ও প্যাট কামিন্স তোপে মাত্র ২৫ রানেই হারিয়ে বসে তিন উইকেট। অধিনায়ক আজহার আলি, হারিস সোহেল করেন যথাক্রমে ৫ ও ৮ রান, অন্যদিকে আসাদ শফিক ফেরেন খালি হাতে। ওপেনার শান মাসুদ ২৭ ও বাবর আজম অপরাজিত ২০ রানে। দুজনের দৃঢ়তায় পাকিস্তান দিনশেষ করে ৩ উইকেটে ৬৪ রানে। ২৫ রান খরচায় ২ উইকেট নেন স্টার্ক, প্যাট কামিন্স নেন ১৬ রানে ১ উইকেট।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

দেশকে বড় লজ্জার হাত থেকে বাঁচালেন মুশফিক

Read Next

ফাইনালে আবারও বাংলাদেশের স্বপ্নভঙ্গ, পাকিস্তানের শিরোপা জয়

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
3
Share