শহীদের ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে বিসিবি, সিদ্ধান্ত আসবে দ্রুতই

মোহাম্মদ শহীদ

জাতীয় লিগের প্রথম পাঁচ রাউন্ডে খেলতে পারেননি বিপ টেস্টে উতরাতে না পারার কারণে। বিসিবির বিশেষ বিবেচনায় খেলার সুযোগ হয় ৬ষ্ঠ ও শেষ রাউন্ডে। কিন্তু মাঠে নেমেই বিতর্কিত ইস্যুতে শিরোনামে পেসার মোহাম্মদ শহীদ। খুলনার বিপক্ষে ঢাকা বিভাগের ম্যাচে সতীর্থ পিটিয়ে ইতোমধ্যে ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞায় শাহাদাত হোসেন। আর পুরো ঘটনার সূত্রপাত শহীদের হাত ধরেই। ফলে শাস্তির অপেক্ষায় তিনিও, বিসিবির তরফ থেকে সিদ্ধান্ত আসবে দ্রুতই।

খুলনা বিভাগের বিপক্ষে ঐ ম্যাচে সতীর্থ আরাফান সানি জুনিয়রকে বল চকচকে করে দেওয়ার নির্দেশ দেন পেসার শাহাদাত হোসেন। কিন্তু তা উপেক্ষা করেন আরাফাত, বিষয়টিকে স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেননি শাহাদাত, পাশ থেকে দৌড়ে এসে আরাফাতের সাথে বকাঝকা শুরু করেন শহীদ। যার সূত্র ধরে এক পর্যায়ে গায়ে তুলে বসেন শাহাদাত, দেন চড় থাপ্পর। এমনকি অভিযোগ আছে দিয়েছেন লাথিও!

মাঠের বাইরে ব্যক্তিগত জীবনেও উশৃঙ্খল জীবনযাপনে খবরের শিরনাম হয়েছেন ৩৩ বছর বয়সী পেসার শাহাদাত। বছর চারেক আগে গৃহকর্মীকে শারীরিক নির্যাতনের দায়ে স্ত্রীসহ খাটতে হয়েছে জেলও। এসব অতীত রেকর্ড পরযালোচনা সাপেক্ষে বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটি সিদ্ধান্ত দুই বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞাসহ ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা আরোপ ও তিন লাখ টাকা জরিমানার।

শাহাদাত ইতমধ্যে শাস্তির আওতায় এলেও নাটের গুরু শহীদের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত আসতে যাচ্ছে দ্রুত। শহীদ ইস্যুতে বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটি নয় সিদ্ধান্ত আসবে টুর্নামেন্ট কমিটির সাথে আলোচনার পর, আজ (২০ নভেম্বর) মিরপুরে সাংবাদিকদের এমনটাই জানান নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন। আর দেশের ক্রিকেটের বৃহত্তর স্বার্থেই আচরণবিধি ভঙ্গজনিত অপরাধের সাজায় কঠোর হচ্ছে বিসিবি এমনটাও দাবি সুমনের।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘শহীদের ব্যাপারে এখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। শহীদের যে রিপোর্ট সেটা আমাদের হাতে এসেছে ম্যাচ অফিসিয়ালরা যেটা দিয়েছে। কালকে আমরা একটু ব্যস্ত ছিলাম বসতে পারিনি। আজকে হয়তো আবার বসব। টুর্নামেন্ট কমিটির সাথে বসে সিদ্ধান্তটা নিতে হবে। শাহাদাতের ব্যাপারটা ছিল টেকনিক্যাল কমিটিতে আসছে, ম্যাচ অফিসিয়ালরা পাঠিয়েছেন সেটা নিয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। শহীদের ব্যাপারটা হবে আমাদের যে টুর্নামেন্ট কমিটি তাদের সাথে বসতে হবে।’

‘আমাদের টুর্নামেন্ট কমিটি কি বলে, কি করতে পারে সেটা নিয়ে বসব। সিরিয়াস একটা ব্যাপার আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন আমরা কিছু কিছু ব্যাপারে একটু ছাড় দিতে চাচ্ছিনা। ক্রিকেটের বৃহত্তর স্বার্থেই। হয়তো এটা মানবিক দিক দিয়ে অনেকে কিছু বলতে পারে কিন্তু একটা জিনিস বুঝতে হবে যা করছি ক্রিকেটের বৃহত্তর স্বার্থেই করছি। কারণ প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট অনেক মর্যাদার জায়গা। সেটাকে যদি কেউ অমূল্যায়ন করে তাঁকে সেটার মূল্য দিতে হবে।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

বুলবুল, সারোয়ার ইমরানদের কোলকাতায় না যাওয়ার কারণ জানালেন দুর্জয়

Read Next

সাইফের অপেক্ষার পালা বাড়লো

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
3
Share