ইনদোরে বাংলাদেশের বোলারদের দুঃস্বপ্নের দিন

মায়াঙ্ক আগারওয়াল রবীন্দ্র জাদেজা

সংক্ষিপ্ত স্কোর (২য় দিন শেষে): বাংলাদেশ ১৪০/৭ (৫৪), সাদমান ৬, ইমরুল ৬, মুমিনুল ৩৭, মিঠুন ১২, মুশফিক ৪৩, মাহমুদউল্লাহ ১০, লিটন ২১*, মিরাজ ০; ইশান্ত ১৮/১, উমেশ ৩৯/১, শামি ২৭/৩, অশ্বিন ৪৩/২।

ভারত ৪৯৩/৬ (১১৪), মায়াঙ্ক ২৪৩, রোহিত ৬, পুজারা ৫৪, কোহলি ০, রাহানে ৮৬, জাদেজা ৬০*, সাহা ১২, উমেশ ২৫*; রাহি ১০৮/৪, এবাদত ১১৫/১, মিরাজ ১২৫/১।

ভারত ৩৪৩ রানে এগিয়ে।

উমেশের ঝড়ো ব্যাটিংঃ মায়াঙ্ক আগারওয়াল ও ঋদ্ধিমান সাহা আউট হবার পরে বাংলাদেশী বোলারদের দুঃস্বপ্ন দেখার ব্যাপ্তি বাড়ান উমেশ যাদব। ১০ বলে ৩ ছক্কা ও ১ চারে ২৫ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। ৭৬ বলে ৬ চার ও ২ ছক্কায় ৬০ রান করে অপরাজিত থাকেন রবীন্দ্র জাদেজা।

এবাদত পেলেন ১ম উইকেটঃ এবাদত হোসেন ম্যাচে নিজের ১ম উইকেটের দেখা পান ঋদ্ধিমান সাহাকে বোল্ড করে। ১০০ এর বেশি রান হজম করা এবাদত ফেরান ১২ রান করা সাহাকে।

মায়াঙ্ককে ফেরালেন মেহেদীঃ ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ হবার পর থেকে একটু বেশি মারমুখী হয়ে উঠেছিলেন। শেষমেশ থেমেছেন ২৪৩ রান করে। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে ক্যাচ দিয়েছেন আবু জায়েদ চৌধুরী রাহিকে।

 

View this post on Instagram

 

Whatta innings from Mayank Agarwal! #INDvBAN

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

মায়াঙ্কের ২য় ডাবলঃ এর আগেও একবার সেঞ্চুরিকে ডাবল সেঞ্চুরিতে পরিণত করেছিলেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল। আজ করলেন দ্বিতীয় বারের মতো। মেহেদী হাসান মিরাজকে ছক্কা হাঁকিয়ে ২০০ রানের গন্ডি পার করেন তিনি। এর আগে অধিনায়ক ভিরাট কোহলি ড্রেসিংরুম থেকে ২টি আঙ্গুল দেখিয়ে ডাবল করার কথা বলেছিলেন মায়াঙ্ককে। দ্বিশতক হবার পর দেখিয়েছেন ৩ টি আঙ্গুল। নির্দেশনা স্পষ্ট- ট্রিপল সেঞ্চুরি করতে হবে!

ক্যারিয়ারে দুইটি ডাবল সেঞ্চুরি করতে সবচেয়ে কম ইনিংস-

০৫- বিনোদ কাম্বলি
১২- মায়াঙ্ক আগারওয়াল
১৩- স্যার ডন ব্র্যাডম্যান
১৪- লরেন্স রো
১৫- গ্রায়েম স্মিথ

 

View this post on Instagram

 

Double hundred number 2 for Mayank Agarwal. #INDvBAN

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

লিডের ঘরে ২০০ঃ মেহেদী হাসান মিরাজের করা ৯৭ তম ওভারের ১ম বলে সিঙ্গেল নিলেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল। তাতে ভারতীয় দলের রান বেড়ে হলো ৩৫০, লিডটা ২০০। নিজের দ্বিতীয় ব্যক্তিগত শতকের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল।

সেঞ্চুরি হাতছাড়া হলো রাহানেরঃ ভারতের আগের ৩ উইকেট নিয়েছিলেন রাহি। ৪র্থ উইকেটও এলো রাহির বলে। ১৭২ বলে ৮৬ রান করে আবু জায়েদ রাহির বলে তাইজুল ইসলামকে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন রাহানে।

 

View this post on Instagram

 

Rahane will feel bad when he will see the replay. #INDvBAN

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

সংক্ষিপ্ত স্কোর (২য় দিন, ২য় সেশন শেষে): বাংলাদেশ ১৪০/৭ (৫৪), সাদমান ৬, ইমরুল ৬, মুমিনুল ৩৭, মিঠুন ১২, মুশফিক ৪৩, মাহমুদউল্লাহ ১০, লিটন ২১*, মিরাজ ০; ইশান্ত ১৮/১, উমেশ ৩৯/১, শামি ২৭/৩, অশ্বিন ৪৩/২।

ভারত ৩০৩/৩ (৫৪), মায়াঙ্ক ১৫৬*, রোহিত ৬, পুজারা ৫৪, কোহলি ০, রাহানে ৮২*; রাহি ৭৩/৩।

আগারওয়ালের ১৫০ঃ ৩২ রানের মাথায় জীবন ফিরে পেয়েছিলেন। সেই পাওয়া সুযোগটা দারুণভাবে কাজে লাগাচ্ছেন তিনি। ইতোমধ্যেই পার করেছেন ব্যক্তিগত ১৫০ রানের গন্ডি।

 

View this post on Instagram

 

Mayank Agarwal is hurting Imrul Kayes & Bangladesh! #INDvBAN

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

তিন অঙ্কের লিডঃ জমে উঠেছে মায়াঙ্ক আগারওয়াল ও আজিঙ্কা রাহানের ৪র্থ উইকেট জুটি। জুটি ১০০ রানের গন্ডি পার করেছে আগেই। এবার লিডে ১০০ রানের গন্ডি পার করলো ভারত। সেঞ্চুরি পূর্ন করে মারমুখী হয়েছেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল। ফিফটি পূর্ন করা রাহানেও মনোযোগী দ্রুত রান তোলাতে।

মায়াঙ্কের সেঞ্চুরিঃ ইমরুল কায়েস যদি সহজ ক্যাচটা নিতে পারতেন, তাহলে গতকালই সাজঘরে যেতেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল। ইমরুল হাতে বল জমাতে পারেননি, তবে উইকেটে ঠিক জমে গেছেন মায়াঙ্ক। ক্যারিয়ারে মাত্র ৮ম টেস্ট খেলতে থাকা আগারওয়াল তুলে নিয়েছেন নিজের ৩য় টেস্ট শতক।

 

View this post on Instagram

 

3rd test Hundred for Mayank Agarwal. #INDvBAN

A post shared by cricket97 (@cricket97bd) on

সংক্ষিপ্ত স্কোর (২য় দিন, ১ম সেশন শেষে): বাংলাদেশ ১৪০/৭ (৫৪), সাদমান ৬, ইমরুল ৬, মুমিনুল ৩৭, মিঠুন ১২, মুশফিক ৪৩, মাহমুদউল্লাহ ১০, লিটন ২১*, মিরাজ ০; ইশান্ত ১৮/১, উমেশ ৩৯/১, শামি ২৭/৩, অশ্বিন ৪৩/২।

ভারত ১৮৮/৩ (৫৪), মায়াঙ্ক ৯১*, রোহিত ৬, পুজারা ৫৪, কোহলি ০, রাহানে ৩৫*; রাহি ৫৮/৩।

লিড নিল ভারতঃ ৪১ তম ওভারে মেহেদী হাসান মিরাজের বলে বাউন্ডারি হাকিয়ে ইনদোরে ভারতের লিড নিশ্চিত করলেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল। ২০১৯ সালে টেস্টে ভারতের পক্ষে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক মায়াঙ্ক এগিয়ে যাচ্ছেন সেঞ্চুরির পথে।

কোহলির ডাকঃ বাংলাদেশকে আরো এক সাফল্য এনে দিলেন আবু জায়েদ চৌধুরী রাহি। এবারে অবশ্য জালে বড় মাছ ধরেছেন রাহি। ভিরাট কোহলিকে ডাকের স্বাদ উপহার দিয়েছেন তিনি। কোহলিকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন তিনি। শুরুতে অবশ্য অনফিল্ড আম্পায়ার আউট দেননি। পরে রিভিউ নিয়ে তৃতীয় উইকেটের দেখা পায় টাইগাররা। ঘরের মাঠে এই দিয়ে তিনবার টেস্টে কোন রান না করে সাজঘরে ফিরলেন কোহলি।

সাইফের ক্যাচঃ মেহেদী হাসান মিরাজ আঙ্গুলে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়ার পর সাবস্টিটিউট হিসাবে মাঠে নেমেছিলেন সাইফ হাসান। দাঁড়িয়েছিলেন গালিতেই। চেতেশ্বর পুজারা (৫৪) আবার সুযোগ দেন গালিতে ক্যাচ দিয়ে। এ দফায় গালিতে ফিল্ডিং করা সাইফ হতাশ করেননি। ক্যাচ ধরেছেন বটে, তবে ব্যাথা পেয়ে মাঠ ছাড়েন তিনিও। বদলী হিসাবে মাঠে নেমেছেন নাইম হাসান। স্টাম্প মাইকে লিটনকে বলতে শোনা গেলো- ‘নাইম, গালিতে দাঁড়াবা?’

পুজারার ফিফটিঃ ১ম দিনের শেষ দিকে আবু জায়েদ রাহির বলে স্লিপে সহজ ক্যাচ ছেড়েছিলেন ইমরুল কায়েস। আজ দ্বিতীয় দিনের শুরুতে আবার সুযোগ তৈরি করেছিলেন রাহি। যদিও এই দফায় একটু কঠিন সুযোগই ছিল গালিতে থাকা ফিল্ডার মেহেদী হাসান মিরাজের জন্য। যা মিরাজের আঙ্গুলে লেগে বাউন্ডারির পথ ধরে। পরে মাঠ ছাড়েন মিরাজ। সুযোগ দেবার পরের বলে বাউন্ডারি মেরে নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৩ তম ফিফটির দেখা পান পুজারা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম দিন শেষে): বাংলাদেশ ১৪০/৭ (৫৪), সাদমান ৬, ইমরুল ৬, মুমিনুল ৩৭, মিঠুন ১২, মুশফিক ৪৩, মাহমুদউল্লাহ ১০, লিটন ২১*, মিরাজ ০; ইশান্ত ১৮/১, উমেশ ৩৯/১, শামি ২৭/৩, অশ্বিন ৪৩/২।

বাংলাদেশ একাদশঃ ইমরুল কায়েস, সাদমান ইসলাম অনিক, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, আবু জায়েদ রাহি, এবাদত হোসেন।

ভারত একাদশঃ মায়াঙ্ক আগারওয়াল, রোহিত শর্মা, চেতেশ্বর পুজারা, ভিরাট কোহলি, আজিঙ্কা রাহানে, রবীন্দ্র জাদেজা, ঋদ্ধিমান সাহা, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, উমেশ যাদব, মোহাম্মদ শামি ও ইশান্ত শর্মা।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

টেস্ট স্কোয়াডে জায়গা পেলেন লকি ফার্গুসন

Read Next

ধারাভাষ্যের প্রস্তাব পেয়ে ফিরিয়ে দিয়েছেন মাশরাফি

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
6
Share