নাইম, সৌম্য’র দাপুটে ব্যাটিংয়ে ইমার্জিং দলের বড় জয়

মোহাম্মদ নাইম শেখ সৌম্য সরকার

বিকেএসপির ৪ নম্বর মাঠে জয় দিয়ে বাংলাদেশের ইমার্জিং এশিয়া কাপের শুরু করার মঞ্চটা বোলাররা প্রস্তুতই করে রেখেছিল। সৌম্য সরকার, নাইম শেখরা ব্যাট হাতে পারফরম্যান্সটাও করেছেন দাপুটে, দুজনের জোড়া ফিফটিতে হংকংয়ের বিপক্ষে ৯ উইকেটের বড় জয় পায় বাংলাদেশ ইমার্জিং দল।

বাংলাদেশ অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত’র টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্তকে শুরু থেকেই যথার্থ প্রমাণ করেন সুমন খান, মেহেদী হাসানরা। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারানো হংকং ৯ উইকেটে ১৬৪ রানের বেশি করতে পারেনি। যদিও ১ম উইকেটের দেখা পেতে স্বাগতিকদের ৫.৫ ওভার অব্দি অপেক্ষা করতে হয়। হংকংয়ের ওপেনার ক্যামেরুন লাচলান কসলানকে বোল্ড করেন পেসার সুমন খান।

সুমন খানের সাথে উইকেট শিকারে অফ স্পিনার মেহেদী হাসান যোগ দিলে ৩ উইকেটে ৩৯ রানে পরিণত হয় হংকং। চতুর্থ উইকেটে কিঞ্চিত শাহ ও ওয়াজিদ শাহ মোহাম্মদ হাল ধরা চেষ্টা করেন। ৯.২ ওভার দুইজন একসঙ্গে উইকেটে থেকে যোগ করতে পারেন ৩০ রান।নাজমুল হোসেন শান্তর ক্যাচ বানিয়ে কিঞ্চিত শাহকে ফিরিয়ে এই জুটি ভাঙেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। এরপর ওয়াজিদ শাহ মোহাম্মদও আর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি।

দলীয় ৭৫ রানে ফেরেন ৫ম ব্যাটসম্যান হিসেবে। এরপর ৫১ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক মোহাম্মদ আইজাজ খান ও হারুন মোহাম্মদ আরশাদ। আইজাজ করেন ২৫ রান, আরশাদের ব্যাট থেকে আসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩৫ রান। নির্ধারিত ৫০ ওভারে হংকং ৯ উইকেট হারিয়ে করতে পারে ১৬৪ রান। বাংলাদেশের হয়ে ৪টি উইকেট নেন সুমন খান, ২ উইকেট পান মেহেদী হাসান। ১ টি করে উইকেট নেন হাসান মাহমুদ ও আফিফ হোসেন ধ্রুব।

১৬৫ রানের সহজ লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ওপেনার নাইম শেখ যেন ভারতের বিপক্ষে তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে যেখানে শেষ করেছেন সেখান থেকে শুরু করেন। ভারতের বিপক্ষে ঐ ম্যাচে ৪৮ বলে ৮১ রান করেও দলকে জেতাতে না পারলেও আজ (১৪ নভেম্বর) তার ৫২ বলে ৫২ রানে ইনিংসটি দলকে বড় জয় পেতে সাহায্য করে। উদ্বোধনী জুটিতে সৌম্য সরকারের সাথে যোগ করেন ৯৪ রান, ৫২ বলে ৮ চারে ৫২ রান করে ফেরেন এহসান খানের শিকার হয়ে।

ইনিংসে এটিই হংকংয়ের একমাত্র শিকার। নাইমের বিদায়ের পর দলপতি নাজমুল হোসেন শান্তকে নিয়ে বাকি পথ অনায়েসেই পাড়ি দেন সৌম্য সরকার। দলকে বড় জয় এনে দেওয়ার পথে সৌম্য খেলেন ৭৪ বলে ৯ চার ৩ ছক্কায় ৮৪ রানের অপরাজিত ইনিংস। অন্যদিকে শান্ত অপরাজিত ছিলেন ২২ বলে ২ চারে ২২ রান করে। বাংলাদেশ লক্ষ্য পৌঁছায় মাত্র ২৪.১ ওভারেই। বাংলাদেশের পরবর্তী ম্যাচ ভারতের বিপক্ষে ১৬ নভেম্বর।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

হংকং ১৬৪/৯ (৫০), আহসান ৭, ক্যামেরুন ১৪, ওয়াসিফ ৩, কিঞ্চিত ২৪, ওয়াজিদ ১৭, আইজাজ ২৫, আরশাদ ৩৫, এহসান ৫, আফতাব ৪, রওনক ৫*, মহসীন ৮*; হাসান ১০-৪-১৬-১, সুমন ১০-০-৩৩-৪, সৌম্য ১০-২-৩৬-০, মেহেদী ১০-১-২৩-২, বিপ্লব ৩-০-৪-০, ধ্রুব ৭-০-৪১-১।

বাংলাদেশ ১৬৬/১ (২৪.১ ওভারে), নাইম শেখ ৫২, সৌম্য সরকার ৮৪*, নাজমুল হোসেন শান্ত ২২*; আইজাজ খান ৩-০-২৫-০, খান মহসিন ১-০-১২-০, এহসান খান ৮-০-৩৯-১, হারুন মোহাম্মদ ২-০-১৮-০, কিঞ্চিত শাহ ৫-০-২১-০, রওনক ৩.১-০-২৯-০, আফতাব ২-০-২২-০।

ফলাফলঃ বাংলাদেশ ইমার্জিং দল ৯ উইকেটে জয়ী।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

হৃদয়ের দাপুটে শতকে টাইগার যুবাদের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহের রেকর্ড

Read Next

লঙ্কান যুবাদের রেকর্ড ব্যবধানে হারালো টাইগার যুবারা

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
13
Share