ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে বাংলাদেশের পুঁজি ২৬৫

match report 24
Vinkmag ad
264432
বাংলাদেশ ইনিংসেই নয় শুধু তামিম ইকবাল এখন চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শীর্ষ রান সংগ্রাহকও!

এজবাস্টনের উইকেট নিয়ে কথা হচ্ছিল দ্বিতীয় সেমিফাইনাল মাঠে গড়ানোর আগে থেকেই। ব্যাটিং বান্ধব উইকেট হতে যাচ্ছে ম্যাচে এমনটা জেনে গিয়েছিলো টাইগাররা। প্রতিপক্ষ যেহেতু ভারত তাই বড় স্কোর গড়তেই হবে আগে ব্যাটিং করলে এমন চাপ ছিলোই। ইনিংস শেষে তবে কি বলতেই হচ্ছে চাপ নিতে পারেনি বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানরা!

নিজেদের জন্য ঐতিহাসিক এই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দ্বিতীয় সেমিফাইনালে টসে হেরে যান বাংলাদেশ কাপ্তান মাশরাফি বিন মর্তুজা। ভারতীয় কাপ্তান ভিরাট কোহলি এজবাস্টনের মাঠে টস জিতে ফিল্ডিং বেছে নিতে ভাবেননি এক মুহুর্তও। টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বাংলাদেশ উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে মাঠে নামেন সৌম্য সরকারকে সাথে নিয়ে।

264430
টুর্নামেন্টে নিজের দ্বিতীয় অর্ধশতক তুলে নেয়ার পথে মুশফিকের স্লগ।

পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে হাসেনি সৌম্যের ব্যাট তাই টাইগার ভক্তদের আশা ছিল এ ম্যাচ নিয়ে। কিন্তু সবাইকে হতাশার সাগরে ডুবিয়ে প্রথম ওভারের শেষ বলে কোন রান সংগ্রহ না করেই বিদায় নেন সৌম্য। ওয়ান ডাউনে কোচ হাথুরুসিংহের আস্থার প্রতিদান দিতে সাব্বিরের শুরুটা ছিল মারকুটে। ৪ চারে ১৯ রান করে সাব্বির বিদায় নেন দলের রান যখন ৩১।

মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গে নিয়ে তামিম ইকবালের ইনিংস মেরামতের লড়াইটা শুরু হয় এরপরই। ভারতীয় বোলারদের কোণঠাসা করে দিয়ে এ দুজন এগোতে থাকেন দুর্দান্ত প্রতাপে। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ১২৩ রানের বড় জুটি গড়ে বাংলাদেশকে এই দুই ব্যাটিং জিনিয়াস দেখাচ্ছিলেন বড় স্কোরের স্বপ্ন।

264436
নাহ! সাকিব আল হাসান ছুঁতে পারলেন না পাঁচ হাজার রানের চুড়া। ধোনির হাতে কাটা পড়ে সাজঘরের পথটাই ধরতে হলো সাকিবকে।

নিজের ৩৮তম ওয়ানডে অর্ধশতক তুলে নেয়া তামিমও এগোচ্ছিলেন টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় শতকের পথে। ৮২ বলে ৭ চার আর এক ছয়ে তামিমের রান যখন ৭০, হঠাৎই কেদার যাদভের মঞ্চে উত্থান ঘটে। তামিমকে সরাসরি বোল্ড করে কেদার যাদভ ভারতকে এনে দেন ব্রেক থ্রু। শতক না পেলেও এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের সম্মানটা তামিম ইকবালের আক্ষেপ একটু হলেও ঘুচাবে। এক শতক, দুই অর্ধশতকে ৪ ম্যাচে ৭৩.২৫ গড়ে তামিমের সংগ্রহ ২৯৩ রান। তবে ২৭১ রান নিয়ে তামিমের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছেন ভারতীয় উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান শেখর ধাওয়ান।

264437
দুর্দান্ত বোলিং নৈপুণ্য দেখিয়ে ৩৯ রান দিয়ে দুই উইকেট তুলে নিয়েছেন ভারতীয় পেসার জশপ্রীত বুমরাহ।

এই ম্যাচে সাকিব আল হাসানের সামনে ছিল দ্বিতীয় বাংলাদেশী হিসেবে পাঁচ হাজার রান আর পঞ্চম অলরাউন্ডার হিসেবে পাঁচ হাজার রান এবং দু’শো উইকেটের মাইলফলকের হাতছানি। সে পথে ভালই এগোচ্ছিলেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। কিন্তু ২৩ বলে ১৫ রান করে জাদেজার বলে ধোনির হাতে ক্যাচ দিয়ে সাকিবকে ফিরতে হয় সাজঘরে। সাকিব ফিরে যাওয়ার দুই রানের মধ্যে মুশফিকও বিদায় নেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ২৬তম অর্ধশতক তুলে নিয়ে। ৮৫ বলে ৪ চারে মুশফিক সাজান নিজের ইনিংস।

শেষদিকে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ২১ আর মোসাদ্দেক ১৫ রান করে ফিরে গেলে বাংলাদেশের ইনিংসকে সম্মানজনক অবস্থায় পৌঁছে দেন দলনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। তার ২৫ বলে ঝড়ো ৩০ রানে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে বাংলাদেশের পুঁজি দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ২৬৪ রান।

ভারতীয় বোলারদের মধ্যে জশপ্রীত বুমরাহ, ভুবনেশ্বর কুমার আর কেদার যাদভ তিনজনই তুলে নেন সমান দুই উইকেট। রবীন্দ্র জাদেজা শিকার করেন একটি উইকেট।

প্রথম ইনিংস শেষে সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ডঃ

বাংলাদেশঃ ২৬৪/৭ (৫০ ওভার) তামিম ইকবাল ৭০, মুশফিকুর রহিম ৬১, মাশরাফি বিন মর্তুজা ৩০*, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ২১, সাব্বির রহমান ১৯, সাকিব আল হাসান ১৫, মোসাদ্দেক হোসেন ১৫, তাসকিন আহমেদ ১০*, সৌম্য সরকার ০। জশপ্রীত বুমরাহ ২/৩৯, কেদার যাদভ ২/২২, ভুবেনশ্বর কুমার ২/৫৯

 

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

দীর্ঘায়িত হলো সাকিবের অপেক্ষা

Read Next

রান সংগ্রাহকের তালিকায় শীর্ষে তামিম

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
0
Share