নতুন খেলোয়াড়ের সন্ধানে বিসিবি, ফিটনেস নিয়ে আরও কঠোর অবস্থান

বিসিবি লোগো
Vinkmag ad

সাম্প্রতিক সময়ে ঘরোয়া ক্রিকেটের অবকাঠামোগত পরিবর্তন সহ বিভিন্ন ইস্যুতে বেশ সচেষ্ট অবস্থান বিসিবির। যার মধ্যে ফিটনেসে কঠোর অবস্থানের প্রশংসা করেছে ক্রিকেটাররাও, বিসিবি সভাপতি বলছেন অব্যাহত থাকবে এই অবস্থান। বরং ভবিষ্যতে ফিটনেস টেস্টের মানদন্ড বাড়তে পারে আরও, এছাড়া ২০২৩ বিশ্বকাপ সামনে রেখে নতুন ক্রিকেটারে সন্ধানেও নেমেছে বিসিবি।

আগামী বছর ফিটনেস টেস্টের মানদন্ড বাড়ালেও জানিয়ে নেওয়া হবে আগেই উল্লেখ করেন নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘আমরা ফিটনেস নিয়ে কাজ করেছি আপনারা দেখেছেন। আমরা যে ফিটনেস লেভেল দিয়েছি, আমি বলেছি সামনের বছর আমরা এটা আরেকটু বাড়াতে চাই এবং এটা আগেই জানিয়ে দিতে চাই। এবার যেমন শেষ মুহূর্তে থাকায় অনেকের আপত্তি ছিল, আমি বলেছি আগের থেকে জানিয়ে দিতে যেন সবাই এক বছর আগেই জানে। আমাদের যে প্রিমিয়ার লিগ (ডিপিএল) আছে সেটাতেও কিন্তু এই ফিটনেস টেস্ট পাশ করে আসতে হবে।’

‘ফিটনেস টেস্ট আজকে বসে ঠিক করেছি সব ঢাকায় হবে। বাইরের থেকে করলে হবে না। এখানে এসে সবাইকে একই জায়গায় টেস্ট দিতে হবে। সো সময় আছে তাঁদের উন্নতি করার, এবং এটা উচিত। এবার শ্রীলঙ্কা সফরে (‘এ’ দলের সফর) গিয়ে আমাদের অনুধাবন হয়েছে, আমরা জিতে এসেছি। কিন্তু দুইদিন পরে দ্বিতীয় ইনিংসে গিয়েই দেখি কেউ খেলতে পারছে না। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তো এইগুলো গ্রহণযোগ্য না।’

নাজমুল হাসান পাপন
ফাইল ছবি

পেসারদের নিয়ে শঙ্কিত বিসিবি সভাপতি জোর দিয়েছেন তাদের ফিটনেসে, ‘প্রথম দিকে অসুবিধা হবে জানি, কিন্তু আস্তে আস্তে সবাই পারবে। অবশ্যই তাঁরা পারবে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। বিশেষ করে পেস বোলাররা যারা, তাঁদের ফিটনেসে বেশি সমস্যা। বাইরের ওরা একটার পর একটা টেস্ট খেলেই যাচ্ছে কিচ্ছু হচ্ছে না, আমাদের এখানে একটা ওয়ানডে খেলেই ইনজুরি। ফিটনেসে যদি এখন থেকে হাত না দেই আমাদের ক্রিকেট আর সামনে আগাবে না। কাজেই ফিটনেসের প্রতি একটা জোর দিয়েছি।’

২০২৩ বিশ্বকাপ সামনে রেখে নতুন ক্রিকেটারদের নিয়ে কাজ করবে বিসিবি। দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ২০২০ সাল পর্যন্ত চলবে এই পরীক্ষা নীরিক্ষা,‘নতুন প্লেয়ারের সন্ধানে নেমেছি। অনেক পরীক্ষা নীরিক্ষা হবে, এতোদিন শুধু জেতার জন্য খেলেছি, জিততেই হবে এমন মানসিকতায়। এখন কিন্তু আমরা পরীক্ষা করব। অলরেডি কিছু পরীক্ষা নীরিক্ষা দেখেছেন। অনেক কিছু হচ্ছে, হবে; তাতে সাময়িকভাবে মনে হবে এটা কেন হচ্ছে, এটা কেন করছি।’

‘ কিন্তু সব কিছুই আমাদের লংটার্ম চিন্তা করে করা হচ্ছে। ২০২০ পর্যন্ত বেশকিছু পরীক্ষা নীরিক্ষা হবে, কিন্তু ২০২১ এ গিয়ে আমরা যে টিমটা বানাব সেটা ২০২২(আসলে ২০২৩) সালের বিশ্বকাপ খেলার জন্য একটা সলিড টিম বানাতে চাচ্ছি। এখানে যেন কারো কোনো চিন্তা ভাবনা না থাকে কি হচ্ছে না হচ্ছে, এটা হলে ভালো হত। যা করার এখনই করে ফেলব। আমরা একটু লংটার্ম চিন্তা করে কাজগুলো করছি।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

পাকিস্তান সফর টার্গেট করে যথাসময়ে বিপিএল

Read Next

টি-টোয়েন্টি সিরিজের আগে স্টার স্পোর্টসের ব্যাঙ্গাত্মক বিজ্ঞাপন

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Total
6
Share