নতুন সাকিব-তামিম তৈরিতে ‘ফাহিম স্যার’ এর নির্দেশনা

নাজমুল আবেদীন ফাহিম সাকিব আল হাসান সৌম্য সরকার

আনুষ্ঠানিকভাবে গতকালই (৩০ সেপ্টেম্বর) বিসিবির সাথে ১৪ বছরের পথ চলার ইতি ঘটলো। শেষবারের মত প্রিয় কর্মস্থল ত্যাগের পূর্বমুহূর্তে নিজের বিদায়ের কারণ জানানোর পাশাপাশি ভবিষ্যত সাকিব-তামিমদের জন্য বোর্ডের করণীয়ও বাতলে দিলেন। বোর্ডের গেম ডেভেলপমেন্ট থেকে নারী দলের প্রধান, কাজের পরিধি ছোট হয়েছে সেখানেও। পূর্ণ স্বাধীনতা যে পাচ্ছিলেন না তাও জানিয়েছেন স্পষ্টই, এতবছর কাজ করে বোর্ডের এমন আচরণের কারণ অজানা খোদ নাজমুল আবেদীন ফাহিমেরও।

নাজমুল আবেদীন ফাহিম সাকিব আল হাসান সৌম্য সরকার
সংগ্রহীত ছবি

বোর্ডের বিপক্ষে যায় এমন কিছু বলার কারণেই কি তার ব্যাপারে বোর্ডের উদাসীনতা? সাংবাদিকদের করা এমন প্রশ্নে সরাসরি জানিয়েছেন বোর্ড নিয়ে কখনোই বলেননি এমন কিছু। তিন দশক ধরে ক্রিকেটার তৈরির কারিগর হিসেবে কাজ করা নাজমুল আবেদীন বলেন,আমি সিউর না, ‘আমার মনে হয়না আমি কখনো বোর্ডের বিপক্ষে যায় এমন কিছু কোথাও বলেছি। নৈতিক জায়গায় আমি কখনো আপোষ করিনি। সবসময় ক্রিকেট বোর্ডের জন্যই কাজ করেছি, এরকম হয়েছে হয়তো কখনো বলেছি এটা হলে ভালো হয়, ওটা করলে ভালো হয়।’

তার হাত ধরেই উঠে এসেছে আজকের সাকিব,তামিম, মুশফিক, নাসিররা। তারও আগে কাজ করেছেন নাফিস, আশরাফুল, আফতাবদের নিয়ে। এখনও টেকনিক্যাল সমস্যায় পড়লে সাকিব-মুশফিকরা তার কাছেই ছুটে আসেন। বিসিবির চাকরি ইস্তফা দেওয়ায় পরবর্তী সাকিব-তামিমদের সাথে কাজ করা কিংবা তৈরির পথে নাজমুল আবেদীনের মেধা, পরামর্শ, দিক-নির্দেশনা থেকে বঞ্চিত হবে ক্রিকেটাররা এমনটাই করা হচ্ছে ধারণা।

নাজমুল আবেদীন ফাহিম মুশফিকুর রহিম
সংগ্রহীত ছবি

তবে বিসিবিতে শেষবারের মত অফিস শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বহু তারকা ক্রিকেটারের গুরু বলেন, ‘হারাচ্ছে যেমন আবার পাচ্ছেও। কারণ এখন আমি চাইলেই যখন তখন তাদের পাশে দাঁড়াতে পারবো। আগে হয়তো অনেক বিধিনিষেধের জন্য আমি সময় দিতে পারিনি, কিছু কাজে নিজেকে যুক্ত করতে পারিনি। এখন হয়তো সেটা আর থাকছেনা, আমি কথায় হোক, কাজে হোক কিংবা লেখায় হোক ক্রিকেটের পাশে থাকতে পারবো।’

কোচ, ম্যানেজার, কিউরেটর নানা পদেই বিসিবির সাথে ছিলেন যুক্ত। বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট ম্যাচের পিচ তার হাতে তৈরি, এরপর জন্ম দিয়েছে একঝাঁক তারকা ক্রিকেটারের। বিসিবি থেকে বিদায়লগ্নে তরুণদের গড়ে তোলার ব্যাপারে দিয়ে গেলেন পরামর্শ, ‘আমার অনুরোধ থাকবে যে ছেলেটা ১০ বছর পর সাকিব আল হাসান হবে বা তামিম ইকবাল খান হবে যার বয়স এখন ১৪ তার দিকে যেন আমরা তাকাই৷ তাকে যেন সেভাবে গড়ে তুলি, সম্মান দেই যেন তার বেড়ে ওঠা সহজ হয়, সঠিক হয়। ও যখন বেড়ে উঠবে একজন সাহসী যোদ্ধা হিসেবে বেড়ে উঠবে। আমরা এখন যে পরিবেশে ক্রিকেটারদের পরিচর্যা করি সেটা ঠিক ওরকম যুদ্ধক্ষেত্র নয়। আমার মনে হয় এদিকে নজর দেওয়া উচিত আর সেটা নিয়ে ক্রিকেট বোর্ডের সবাই কাজ করি, যতগুলো ইউনিট আছে যতগুলো উইং আছে সবাই মিলে যদি কাজ করি। আমার মনে হয়না এমন কোন কারণ নাই, সেরকম একটা ক্রিকেট জাতি হিসেবে আমরা উঠে আসতে পারবোনা।’

নাজমুল হাসান তারেক

Read Previous

জয়সুরিয়া-শানাকার অমন জুটির পরেও জয় পাকিস্তানের

Read Next

পারলেন না তুষার, পেরেছেন কাপালি

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Total
0
Share